• শিরোনাম

    অস্ট্রেলিয়াকে উড়িয়ে ফাইনালে ইংল্যান্ড

    দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক | ১১ জুলাই ২০১৯ | ১০:৩৬ অপরাহ্ণ

    অস্ট্রেলিয়াকে উড়িয়ে ফাইনালে ইংল্যান্ড

    দ্বাদশ বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমি ফাইনালে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হয় ক্রিকেট ইতিহাসের সব থেকে সফল দল অস্ট্রেলিয়া। এরই মধ্যে ফাইনালে উঠেছে নিউজিল্যান্ড। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গী হয়েছে ইংলিশরা। আগামী ১৪ জুলাই লর্ডসে ফাইনালের মহারণে মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড। এবার নতুন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন দেখতে যাচ্ছে ক্রিকেট বিশ্ব।

    ফাইনালের টিকিট নিশ্চিতের ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অজি দলপতি অ্যারন ফিঞ্চ। ৪৯ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে অজিরা তোলে ২২৩ রান। স্রোতের বিপরীতে একাই লড়েছেন স্টিভ স্মিথ। জবাবে, ইংলিশ ওপেনার জেসন রয়ের দারুণ ব্যাটিংয়ে ৩২.১ ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে ইংল্যান্ড। হাতে ছিল আরও ১০৭ বল।

    বার্মিংহামের এজবাস্টনে বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে তিনটায় শুরু হয় ম্যাচটি। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করে গাজী টিভি। প্রথম বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের আশায় পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপ আয়োজন করেছে ইংল্যান্ড। আর ২৭ বছর পর বিশ্বকাপের সেমি ফাইনাল খেলার যোগ্যতা অর্জন করে ইংলিশরা। গ্রুপ পর্বের দু’দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে অজিদের বিপক্ষে ৬৪ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছিল ইংলিশরা। সেটিরও একটা প্রতিশোধ নিয়ে নিল ইংলিশরা।

    টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই পথ হারায় ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। দলীয় ১৪ রানের মাথায় বিদায় নেন দলপতি ও ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ (০), ডেভিড ওয়ার্নার (৯) আর একাদশে নতুন আসা পিটার হ্যান্ডসকম্ব (৪)। এরপর দলের হাল ধরেন স্টিভ স্মিথ এবং অ্যালেক্স ক্যারি। এই জুটিতে আসে ১০৩ রান। জোফরা আর্চারের বাউন্স সামলাতে না পেরে আহত হন ক্যারি। হেলমেটে বল আঘাতের পর ক্যারির থুতুনি দিয়ে রক্ত ঝরে। ব্যান্ডেজ বেধে উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ক্যারি ৭০ বলে চারটি বাউন্ডারিতে করেন ৪৬ রান। মাঝে ০ রানেই বিদায় নেন মার্কাস স্টইনিস।

    স্মিথ-গ্লেন ম্যাক্সওয়েল জুটিতে আসে ৩৯ রান। ম্যাক্সওয়েল ২৩ বলে দুটি চার আর একটি ছক্কায় করেন ২২ রান। প্যাট কামিন্স ৬ রান করে সাজঘরের পথ ধরেন। সতীর্থদের যাওয়া-আসার মধ্যে উইকেটের একপ্রান্ত ধরে খেলতে থাকেন তিন নম্বরে নামা স্মিথ। তাকে সঙ্গ দেন পেসার মিচেল স্টার্ক। এই জুটিতে আসে আরও ৫১ রান।

    ইনিংসের ৪৮তম ওভারে রানআউট হওয়ার আগে স্মিথ করেন ৮৫ রান। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরি মিস করা স্মিথের ১১৯ বলে সাজানো ইনিংসে ছিল না কোনো ছক্কার মার, ছিল ছয়টি বাউন্ডারি। স্মিথের বিদায়ের পরের বলেই ফেরেন ৩৬ বলে একটি করে চার ও ছক্কা হাঁকিয়ে ২৯ রান করা স্টার্ক। নাথান লায়ন ৫, জেসন বেহেরনড্রফ ১ রান করেন।

    ইংলিশ পেসার জোফরা আর্চার ১০ ওভারে ৩২ রান খরচায় তুলে নেন দুটি উইকেট। স্পিনার আদিল রশিদ ১০ ওভারে ৫৪ রানের বিনিময়ে পান তিনটি উইকেট। বেন স্টোকস ৪ ওভারে ২২ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি। ৮ ওভারে ৪৪ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকেন লিয়াম প্লাংকেট। ক্রিস ওকস ৮ ওভারে ২০ রান খরচায় তুলে নেন তিনটি উইকেট। মার্ক উড ৯ ওভারে ৪৫ রান দিয়ে একটি উইকেট পান।

    ২২৪ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে ইংলিশ দুই ওপেনার জনি বেয়ারস্টো এবং জেসন রয় তুলে নেন ১২৪ রান। ১৮তম ওভারে মিচেল স্টার্কের বলে এলবির ফাঁদে পড়েন বেয়ারস্টো। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি তিনি। তার আগে ৪৩ বলে পাঁচটি চারের সাহয্যে বেয়ারস্টো করেন ৩৪ রান। আর এই উইকেট নেওয়ার মধ্যদিয়ে বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ ২৭টি উইকেট নেওয়ার রেকর্ড গড়েন অজি পেসার স্টার্ক। এর আগে বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ ২৬টি উইকেট নিয়ে চূড়ায় বসেছিলেন অজি কিংবদন্তি পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রা।

    দলীয় ১৪৭ রানের মাথায় ‘বিতর্কিত’ এক ক্যাচে বিদায় নেন জেসন রয়। তার আগে ৬৫ বলে ৯টি চার আর ৫টি ছক্কায় করেন ৮৫ রান। তিন নম্বরে নামা জো রুট ৪৬ বলে আটটি চারে ৪৯ রান করে অপরাজিত থাকেন। চার নম্বরে নামা দলপতি ইয়ন মরগান ৩৯ বলে আটটি চারে ৪৫ রান করে অপরাজিত থাকেন।

    ইংল্যান্ড একাদশ: ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), জনি বেয়ারস্টো, জস বাটলার, জোফরা আর্চার, লিয়াম প্লাংকেট, আদিল রশিদ, জো রুট, জ্যাসন রয়, বেন স্টোকস, ক্রিস ওকস এবং মার্ক উড।

    অস্ট্রেলিয়া একাদশ: অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ, জেসন বেহেরনড্রফ, অ্যালেক্স ক্যারি (উইকেটরক্ষক), প্যাট কামিন্স, নাথান লায়ন, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মিচেল স্টার্ক এবং মার্কাস স্টয়নিস।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ