• শিরোনাম

    সুষ্ঠু করতে জেলাপ্রশাসনের ব্যাপক প্রস্তুতি

    আজ জেলার ৫ উপজেলায় নির্বাচন

    শহীদুল্লাহ্ কায়সার | ২৪ মার্চ ২০১৯ | ১:৫১ পূর্বাহ্ণ

    আজ জেলার ৫ উপজেলায় নির্বাচন

    আজ ২৪ মার্চ জেলার ৫ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। রামু, মহেশখালী, পেকুয়া, উখিয়া এবং টেকনাফ উপজেলা পরিষদ রয়েছে এই তালিকায়। সকাল ৪ টায় শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ শেষ হবে বিকেল ৪ টায়। নির্বাচন উপলক্ষ্যে উল্লিখিত উপজেলাগুলোতে ঘোষণা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি। মহাসড়ক ছাড়া অন্য সড়কগুলোতে অনুমতি ছাড়া যানবাহন চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।
    নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে নেয়া হয়েছে বিভিন্ন পদক্ষেপ। জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় মোতায়েন করা হচ্ছে পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, কোস্টগার্ড, আনসার বাহিনীর পর্যাপ্ত সংখ্যক সদস্য।
    এবারের নির্বাচনে উল্লিখিত ৫ উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৫২ জন প্রার্থী। তাঁদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১২ প্রার্থী, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৯ প্রার্থী এবং সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১১ প্রার্থিনী।
    ৫ উপজেলার ভোটার সংখ্যা ৮ লাখ ৫৯ হাজার ৬৫ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ৪ লাখ ৪০ হাজার ৪৭৭ জন। মহিলা ভোটার রয়েছেন ৪ লাখ ১৮ হাজার ৬১৮ জন। সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে।
    ১১ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত রামু উপজেলার মোট ভোটার ১ লাখ ৫৮ হাজার ১৮ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ৮১ হাজার ৪১০ জন। নারী ভোটার রয়েছেন ৭৬ হাজার ৬০৮ জন। তাদের জন্য ৬১ টি কেন্দ্র স্থাপন করা হবে । কক্ষ স্থাপন করা হবে ৩১৮ টি।
    রামু উপজেলায় মোট ৯ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ২ প্রার্থী, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ প্রার্থী এবং সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ প্রার্থি রয়েছে।
    চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ২ প্রার্থী হলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও রামু উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজুল আলম এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ও রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোহেল সরওয়ার কাজল। এই উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারীদের মধ্যে রয়েছেন বর্তমান ভাইস-চেয়ারম্যান আলী হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সালাহ উদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হেলাল উদ্দিন ও খুনিয়াপালং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ্ সিকদার।
    সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারি ৩ প্রার্থিনী হলেন, আফসানা জেসমিন পপি, মনোয়ারা ইসলাম নেভী এবং মুসরাত জাহান মুন্নী।
    ১ টি পৌরসভা এবং ৮ টি ইউনিয়নের নিয়ে গঠিত মহেশখালী উপজেলায় ভোটার রয়েছেন ২ লাখ ১১ হাজার ৬১৬ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ১ লাখ ৯ হাজার ৯৪৯ এবং নারী ভোটার রয়েছেন ১ লাখ ১ হাজার ৬৬৭ জন। এই উপজেলার কেন্দ্র স্থাপন করা হবে ৬৮ টি। কক্ষ সংখ্যা হবে ৩৮২।
    মহেশখালী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ৪ প্রার্থী হলেন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ হোছাইন ইব্রাহিম। স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক সাজেদুল করিম, স্বতন্ত্র প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোঃ শরীফ বাদশা এবং ইসলামিক ফ্রন্ট এর এরফান উল্লাহ্।
    এই উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ৭ প্রার্থী হলেন, জাফর আলম, আবু সালেহ, মোঃ জহির উদ্দিন, ফরিদুল আলম, মাহাবুবুল আলম, শাহ নেওয়াজ কামাল এবং গিয়াস উদ্দিন। সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিকারিণী ২ প্রার্থি হলেন, মনোয়ারা কাজল এবং মিনুয়ারা ছৈয়দ।
    ৫ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত উখিয়া উপজেলার মোট ভোটার ১ লাখ ১৮ হাজার ৭৮৫ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ৬০ হাজার ৪ ৮৮ জন। নারী ভোটার রয়েছেন ৫৮ হাজার ২৯৭ জন। তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের জন্য স্থাপন করা হচ্ছে ৪৫ টি কেন্দ্র। যার কক্ষ সংখ্যা হবে ২৩৮।
    ইতঃপূর্বে চেয়ারম্যান এবং সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান পদে কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী না থাকায় উখিয়া উপজেলায় হামিদুল হক চৌধুরী এবং কামরুন নেছা চৌধুরীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার। ফলে উপজেলাটিতে আজ শুধু ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আজকের নির্বাচনে উখিয়া উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ৬ প্রার্থী হলেন, মাহাবুবুল আলম, জাহাঙ্গীর আলম, নুরুল হুদা, আরাফাত উর রহমান জিয়ান চৌধুরী, মোঃ রাসেল এবং রুহুল আমিন।
    ১ টি পৌরসভা এবং ৬ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত টেকনাফ উপজেলায় ভোটার রয়েছেন ২ লাখ ৬৪ হাজার ৪০৬ জন। এই উপজেলায় পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ১ লাখ ৩৩ হাজার ১০ এবং নারী ভোটারের সংখ্যা ১ লাখ ৩১ হাজার ৩৯৬। তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের জন্য স্থাপন করা হবে ১১০ টি কেন্দ্র। যার কক্ষ সংখ্যা হবে ৫৩০টি।
    এই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ প্রার্থী, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ প্রার্থী এবং সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ প্রার্থিনী রয়েছেন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ৩ প্রার্থী হলেন, টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী এবং স্বতন্ত্র ২ প্রার্থী টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান জাফর আহমদ এবং উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরুল আলম।
    ভাইস-চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ৬ প্রার্থী হলেন, জাবেদ ইকবাল চৌধুরী, দেলোয়ার হোসেন, নুরুল হক, ছৈয়দ আলম, রফিক উদ্দিন এবং সরওয়ার আলম। সংরক্ষিত মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারিণী ৪ প্রার্থি হলেন, তাহেরা বেগম, মনোয়ারা পারভীন, মিজবাহার ইউসুফ এবং সমজিদা বেগম।
    ৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত পেকুয়া উপজেলার ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬ হাজার ২৭০ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ৫৫ হাজার ৬২০ এবং নারী ভোটার রয়েছেন ৫০ হাজার ৬৫০ জন। উপজেলায় স্থাপন করা হবে ৪০ টি কেন্দ্র। উল্লেখিত সংখ্যক কেন্দ্রে থাকবে ২০০টি কক্ষ। পেকুয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪ প্রার্থী। তাঁরা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম, স্বতন্ত্র প্রার্থী এস.এম. গিয়াস উদ্দিন এবং পেকুয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম। এই উপজেলায় ভাইস- চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ৬ প্রার্থী হলেন, মেহেদী হাসান, মেহের আলী, সাজ্জাদুল ইসলাম, মোঃ নাছির উদ্দিন, আজিজুল হক এবং মোঃ কায়সার উদ্দিন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ