• শিরোনাম

    কে হচ্ছেন উখিয়া উপজেলার অভিভাবক

    উপজেলা নির্বাচনের প্রতি মানুষের আগ্রহ দিনদিন বাড়ছে

    রফিক উদ্দিন বাবুল, উখিয়া | ০২ মার্চ ২০১৯ | ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ

    উপজেলা নির্বাচনের প্রতি মানুষের আগ্রহ দিনদিন বাড়ছে

    কে হচ্ছেন উখিয়া উপজেলার অভিভাবক? তা নিয়ে ভোটাররা এ মুহুর্তে কোন সুনির্দিষ্ট মন্তব্য না করলেও আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে অংশ গ্রহনের জন্য মানুষের আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে। নির্বাচনকে ঘিরে সৃষ্টি হতে যাচ্ছে উৎসবের আমেজ। বৃহত্তর ভোটার ও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের বুকভরা স্বপ্ন এবার তারা তাদের কাঙ্খিত প্রার্থীকে নিজের মূল্যবান ভোটটি নিসন্দেহে প্রদান করতে পারবেন। ইতিমধ্যে চায়ের দোকান, হোটেল রেষ্টুরেন্ট ও বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে বিশেষ করে উপজেলা চেয়ারম্যান নিয়ে চলছে নানা আলোচনা সমালোচনা। ওঠে আসছে সরকার দলীয় প্রার্থীর কথা। তারা বলছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দিয়েছে তার সাথে পাল্লা দিয়ে ভোটযুদ্ধে প্রতিদন্ধি প্রার্থী কতটুকু এগিয়ে যেতে পারে তা দেখার বিষয়। তবে একাধিক ভোটার উপজেলা নির্বাচন নিরপেক্ষ ও সুষ্ট ভাবে সম্পন্ন হওয়ার আশা প্রকাশ করছে।
    উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিস সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বাছাইয়ের দিনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী এড. অণিল কান্তি বড়–য়া ও শাহজানের মনোনয়ন পত্র অসম্পূর্ণ থাকায় রিটার্নিং অফিসার ওই দুই জনের মনোনয়ন পত্র বাতিল ঘোষনা করেছেন। বর্তমানে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বহাল রয়েছে। আগামী ৭ মার্চ মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। ওই দিনের জন্য প্রার্থীরা অপেক্ষা করলেও বসে নেই আওয়ামীলীগের একক প্রার্থী অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী। তিনি শুক্রবার জালিয়াপালং ইউনিয়নের পাইন্যাশিয়া জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করেন। জুমার নামাজে হামিদুল হক চৌধুরীর জন্য দোয়া কামনা করেন মুসল্লিরা। পরে স্থানীয় চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সোলতান মাহমুদের সাথে মতবিনিময় শেষে জুমার নামাজে আগত মুসল্লিদের উদ্দেশ্য বলেন, তার অন্তিম মুহুর্তে চাওয়া পাওয়া কিছু নেই। মানুষের সেবা করার জন্য মহান আল্লাহপাক রাব্বুল আল আমিন তাকে গুরুতর অসুস্থতার হাত থেকে বাঁচিয়ে তুলেছেন। তাই বাকি জীবন টুকু গণ মানুষের জন্য উৎসর্গ করতে চান। তিনি আরো বলেন, অনেক সময় সত্যকথা ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্টা করতে গিয়ে কেহ না কেহ মনে কষ্ট পেয়েছেন। এ জন্য তিনি সকলের প্রতি ক্ষমাসুন্দও দৃষ্টিতে দেখার জন্য আহবান জানান। দাবী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার মাথায় হাতবুলিয়ে দোয়া করেছেন। তার এ দোয়া টুকু যেন আল্লাহ তালার দরবারে পৌছতে পারে সে জন্য জাতি, ধর্ম,বর্ণ দলমত নির্বিশেষে সকলে দোয়া কামনা করেন। আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে তৃনমুলের সাধারন মানুষের দৌড়গোড়ায় গিয়ে যেন সেবা করতে পারি সে সুযোগ টুকু অকাতরে দান করার অনুরোধ জানান। পরে তিনি সোনার পাড়া হয়ে সোনাইছড়ি,কোটবাজার, রাজাপালং এলাকায় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সরওয়ার জাহান চৌধুরীর সাথে মতবিনিময় শেষে ডেইলপাড়া, গয়ালমারা এলাকায় গণসংযোগ করেন।
    এ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে, জালিয়াপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী জানান, যেহেতু তার পরিবারে একজন ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন। ততাপিও মানুষের যে গনজোওয়ার প্রত্যক্ষ করা গেছে তাতে মনে হয় আল্লাহর অসীম রহমত বর্ষিত হলে অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী এ উপজেলার অভিভাবক হতে পারেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ