• শিরোনাম

    স্ট্যাচু অব লিবার্টির আদলে জাতির পিতার ভাস্কর্য হবে কক্সবাজারে

    দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক | ১১ মে ২০১৯ | ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

    স্ট্যাচু অব লিবার্টির আদলে জাতির পিতার ভাস্কর্য হবে কক্সবাজারে

    যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যাচু অব লিবার্টির আদলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি ভাস্কর্য তৈরি করা হবে। বঙ্গবন্ধুর শতবর্ষ উদ্যাপন উপলক্ষে কক্সবাজারে এই ভাস্কর্য নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়।

    মুজিববর্ষ উদ্যাপন নিয়ে গত বৃহস্পতিবার মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় এই ভাস্কর্য নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব এস এম আরিফুর রহমান ছাড়াও মন্ত্রণালয়ের অন্য কর্মকর্তারা সভায় উপস্থিত ছিলেন। এ প্রসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদ্যাপনে বছরব্যাপী বর্ণাঢ্য কর্মসূঈ বাস্তবায়ন করা হবে। এ লক্ষ্যে সব মন্ত্রণালয়, সংস্থা এবং দেশের স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকল শক্তি ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে।’ তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা নিয়ে মুজিববর্ষ উদ্যাপন করবে। সরকার এ উপলক্ষে স্ট্যাচু অব লিবার্টির আদলে জাতির পিতার প্রতিকৃতি তৈরি করবে।’

    মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, বঙ্গবন্ধুর ওই প্রতিকৃতি তৈরির জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র ডাকা হবে। কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভের পাশে বঙ্গবন্ধুর বিশালাকার ওই প্রতিকৃতি স্থাপনের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হয়েছে।

    মন্ত্রী মোজাম্মেল আরও বলেন, মুজিববর্ষ উদ্যাপনের অংশ হিসেবে মিত্রবাহিনী সদস্যদের ৫০০ সন্তানের জন্য বৃত্তির ব্যবস্থা করা হবে। তাদের বাছাই করতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ভারতীয় হাইকমিশনকে দায়িত্ব দেয়া হবে।

    তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানী শাসক ও শোষকগোষ্ঠীর কবল থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে জাতির পিতার ঋণ আমরা কোন দিন শোধ করতে পারব না। জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ উদ্যাপন হবে জাতীয় জীবনের এক অনন্য সুন্দর উপলক্ষ।’

    এর অংশ হিসেবে এযাবতকালের ‘সবচেয়ে বড়’ মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের আয়োজন করা হবে জানিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, বছরব্যাপী মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক জাতীয় দিবসগুলো উদ্যাপনে জাতির পিতার বর্ণাঢ্য জীবন ও কর্মকে অধিক গুরুত্ব দেয়া হবে। দেশের বিভিন্ন স্থানে মুজিব মেলার আয়োজন করা হবে।

    জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদ্যাপনে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রীকে সভাপতি করে ১০২ সদস্যের একটি জাতীয় কমিটি এবং জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলামকে সভাপতি করে ৬১ সদস্যের একটি বাস্তবায়ন কমিটি করে সরকার। এছাড়া জাতির জনকের জন্মশতবর্ষ সুষ্ঠুভাবে উদ্যাপনে আটটি বিষয়ভিত্তিক উপ-কমিটিও করা হয়েছে।

    ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নেন শেখ মুজিবুর রহমান। কালক্রমে তার হাত ধরেই ১৯৭১ সালে বিশ্ব মানচিত্রে নতুন দেশ হিসেবে স্থান করে নেয় বাংলাদেশ। আসছে ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্মের শত বছর পূর্ণ হবে। আর ঠিক পরের বছর ২৬ মার্চ বাংলাদেশ উদ্যাপন করবে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী।

    বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদ্যাপনে ২০২০ ও ২০২১ সালকে ‘মুজিববর্ষ’ হিসেবে ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতবছর এক অনুষ্ঠানে বলেন, এ আয়োজনে সব বয়স ও শ্রেণী পেশার মানুষকে সম্পৃক্ত করা হবে। শিশু, তরুণ, যুবক সকলের জন্য আলাদা কর্মসূচী থাকবে। আয়োজনের বিস্তৃতি থাকবে দেশের সকল ওয়ার্ড পর্যন্ত। সেদিন তিনি আরও বলেন, ‘জাতির পিতা রক্ত দিয়ে ঋণ শোধ করে গেছেন। তার রক্তের ঋণ আমাদের শোধ করতে হবে।’

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    মাতারবাড়ী ঘিরে মহাবন্দর

    ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ