শনিবার ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

ঈদগাঁওয়ে মা ও দু’শিশু খুনের জট খুলছেনা, আসামীরা অধরা

সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও   |   বৃহস্পতিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২১

ঈদগাঁওয়ে  মা ও দু’শিশু খুনের জট খুলছেনা, আসামীরা অধরা

কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামপুরে মা ও তার দু’শিশু খুনের ঘটনার জট খুলছেনা। নিহতের ঘটনাটি এখনো রহস্যাবৃত। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হলেও এখনো কেউ গ্রেপ্তার হয়নি।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, সম্প্রতি সময়ে ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নে এক গৃহবধূ ও তার দু’শিশু কন্যার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এর মধ্যে গৃহবধূকে ফাঁসিতে ঝুলানো আর দুই মেয়েকে শোবার খাটে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত গৃহবধূর নাম জিশান আক্তার (২৩)। সে ইসলামপুর ইউনিয়নের মধ্যম নাপিতখালি গ্রামের শহিদুল হকের স্ত্রী। তার দু’মেয়ের নাম জাবিন(৫) ও জেরিন(২)।

ঈদগাঁও থানা পুলিশ এদিন রাতে লাশ ৩টি উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন। পরদিন কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে লাশ তাদের আত্মীয়-স্বজনের কাছে হস্তান্তর করেন।

তবে নিহত ৩ জনকে গৃহবধূর পৈত্রিক গ্রাম ঈদগাঁও মধ্যম ভোমরিয়া ঘোনার কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

সংগঠিত নৃশংস এ ঘটনার দু’দিন পর ঈদগাঁও থানায় একটি মামলা রুজু হয়। যার নং-৬।

নিহত গৃহবধূর মাতা মোহছেনা আক্তার এ মামলার বাদী। তিনি ঈদগাঁও মধ্যম ভোমরিয়া ঘোনার নুরুল কবিরের স্ত্রী।

মামলায় শহিদুল হক (৩৩), তার ভাই জিয়াউল হক (৪০) ও জিয়াউল হকের স্ত্রী লুৎফা আক্তার(৩০) সহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪ জনকে আসামি করা হয়েছে।

গত ২৪ ডিসেম্বর রুজুকৃত এ মামলাটি ঈদগাঁও থানার সাব-ইন্সপেক্টর মোঃ রেজাউল করিমকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়। ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধনী/০৩) ১১(ক)/৩০ তৎসহ পেনাল কোড-১৮৬০, যৌতুকের দাবিতে পরস্পরের যোগসাজশে নির্যাতনের মাধ্যমে খুনের অপরাধে মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, নিহত গৃহবধূর স্বামী শহিদুল ব্যবসার কথা বলে দুই বছর পূর্বে শশুর বাড়ির কাছ থেকে জোরপূর্বক তিন লক্ষ টাকা ধার নিয়ে আর ফেরৎ দেয়নি।

প্রয়োজনীয় কাজের জন্য যৌতুক বাবদ সে গত ১৯ ডিসেম্বর আরো ২ লক্ষ টাকা শ্বশুরবাড়ি থেকে এনে দিতে স্ত্রী জিশান আক্তারকে চাপ সৃষ্টি করে। শশুর পক্ষের লোকজন দাবিকৃত টাকা দিতে না পারায় শহিদুল উল্লেখিত আসামিদের যোগসাজশে তার স্ত্রীকে অকথ্য নির্যাতনের মাধ্যমে খুন করে। পরে তাকে ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে রশিতে টাঙ্গিয়ে রেখে আত্মহত্যা হিসেবে চালিয়ে দেয়ার নাটক মঞ্চস্থ করে।
এ সময় উপস্থিত দু’শিশু কন্যার প্রতিবাদ ও কান্নাকাটিতে ক্ষুব্দ হয়ে তাদেরও খুন করে।

ঈদগাঁও থানা পুলিশের সুরতহালের বরাত দিয়ে বাদিনী আরো উল্লেখ করে,অভিযুক্তরা যৌতুক আদায়ে ব্যর্থ হয়ে তার মেয়ে জিশান আক্তার ও দুই অবুঝ শিশু কন্যাকে খুন করে।

এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মোঃ রেজাউল করিম জানান, এজাহারভুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা জানতে চাইলে এ তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, ঘটনাস্থলে ফরেনসিক ডিপার্টমেন্টের লোকজন ছিলেন। তারা তাদের মত তদন্ত করেছেন। আমরা আমাদের মতো কাজ চালিয়েছি। তবে ঘটনাস্থলের পারিপার্শ্বিক আলামত মতে গৃহবধূ নিহতের ঘটনাটি হত্যাকান্ড নয় বলে তার ধারণা। অন্যদিকে বালিশ চাপায় নিষ্পাপ শিশু ২টির মৃত্যু হতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

কিন্তু বালিশ চাপা কে দিয়েছে তা এখনো রহস্যাবৃত্ত। তদন্ত কর্মকর্তা জানান, গৃহবধু বিষপানে আত্মহত্যা করেছে কি না তা যাচাইয়ের জন্য ভিসেরা রিপোর্ট সংরক্ষণ করে ফরেসনিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। লাশের সুরতহাল এবং ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাওয়া সাপেক্ষে প্রকৃত রহস্য উদঘাটিত হতে পারে।

Comments

comments

Posted ৭:১০ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com