• শিরোনাম

    ভাসানচরে প্রতিনিধি দল

    এবার ফিরবে কি রোহিঙ্গারা ?

    জাকারিয়া আলফাজ, টেকনাফ | ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ২:০৮ পূর্বাহ্ণ

    এবার ফিরবে কি রোহিঙ্গারা ?

    কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রিতদের মধ্যে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে নোয়াখালীর ভাসানচরে স্থানান্তরের উদ্যেগ নেয় সরকার। সেখানে সরকারের নিজস্ব তহবিলে রোহিঙ্গাদের বসবাস উপযোগী ১২০ টি গুচ্ছগ্রামসহ বিভিন্ন অবকাঠামো তৈরী করা হয়েছে। কিন্তু নানা কারণে সরকারের এ পদক্ষেপের বিরোধিতা করে ভাসানচরে যেতে অনীহা প্রকাশ করে আসছিল রোহিঙ্গারা।
    রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ভাসানচর সম্পর্কে রোহিঙ্গাদের নেতিবাচক ধারণার কারণেই তারা সেখানে যেতে অনাগ্রহী। তবে এ সম্পর্কে সরেজমিনে আরো বেশি ধারণা নেয়ার জন্য রোহিঙ্গাদের একটি প্রতিনিধি দলকে ভাসানচর পাঠানোর উদ্যেগ নেয় সরকার। উখিয়া ও টেকনাফের আশ্রিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ৪০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল গত শুক্রবার ভাসানচরে পৌঁছায়। প্রতিনিধি দলে দুই নারী সদস্যও রয়েছেন। তারা ভাসানচর স্বচক্ষে দেখে ক্যাম্পে ফিরে সাধারণ রোহিঙ্গাদের এ সম্পর্কে ধারণা দেবেন। আগামী মঙ্গলবার প্রতিনিধি দলের ভাসানচর পরিদর্শন শেষে ক্যাম্পে ফেরার কথা।
    এদিকে ভাসানচর সম্পর্কে ক্যাম্পের রোহিঙ্গাদের যথেষ্ট ভুল ধারণা রয়েছে। কে বা কারা রোহিঙ্গাদের মাঝে ভাসানচর সম্পর্কে বিভিন্ন ধরনের বানোয়াট গল্প গুজব শুনিয়েছেন। প্রশ্ন ওঠেছে রোহিঙ্গা প্রতিনিধি দল পরিদর্শন শেষে ক্যাম্পে ফিরে সাধারণ রোহিঙ্গাদের সে ভুল ভাঙতে পারবে নাকি প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার মতো ভাসান স্থানান্তরের পদক্ষেপও ভেস্তে যাবে ?
    ভাসানচর পরিদর্শনে যাওয়া টেকনাফের জাদিমুরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মাঝি মো. নুর আজকের দেশবিদেশকে বলেন, আমরা শুক্রবার বিকালে ভাসানচরে পৌঁছায়। ভাসানচর অনেক বড় এলাকা তাই সবগুলো জায়গা আমরা ঘুরে ঘুরে দেখছি। পুরো এলাকা দেখা শেষে ক্যাম্পে ফিরে আমরা রোহিঙ্গাদের এ সম্পর্কে জানাবো। তবে আমরা বাস্তবে যতটুকু দেখিছি ততটুকুই রোহিঙ্গাদের মাঝে প্রচার করবো। এতে মিথ্যা বা অসত্য প্রকাশের ইচ্ছা আমাদের নেই।
    তিনি আরো বলেন, যেটুকু দেখেছি ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের বসবাসের জন্য ইটের তৈরী সুন্দর ঘরবাড়ি তৈরি করা হয়েছে। এখানকার ওয়াশব্লক গুলো দেখে ভালো লেগেছে। প্রাকৃতিক দূর্যোগের ক্ষতি থেকে রক্ষা পেতে এখানে আশ্রয়কেন্দ্র তৈরী করা হয়েছে। তবে আমাদের আরো অনেক কিছু দেখা বাকি রয়েছে, সবকিছু দেখে আমরা ভালোমন্দ পুরোটা বলবো।
    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিনিধি দলের আরেক সদস্য আজকের দেশবিদেশকে বলেন, সাগরপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় উদ্ধার হওয়া ৩০৭ জন রোহিঙ্গা আগে থেকেই ভাসানচরে রয়েছেন। আমরা তাদের সঙ্গে সাক্ষাত করে কথা বলেছি, তাদের কাছ থেকেও ভাসানচর সম্পর্কে ধারণা নেওয়ার চেষ্টা করেছি। তবে আগে থেকে সেখানে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের অনেকেই আমাদের দেখামাত্র বিলাপ কান্নাকাটি করেছেন।
    কক্সবাজারের অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. শামসুদ্দোজা বলেন, প্রতিনিধি দলে নারী সদস্যসহ বিভিন্ন ক্যাম্পের রোহিঙ্গারা রয়েছে। ভাসানচর সম্পর্কে রোহিঙ্গাদের নেতিবাচক ধারণা রয়েছে। তাই নিজের চোখে দেখার জন্য তাদের সেখানে নেয়া হয়েছে। আগামী মঙ্গলবার তাদের ফেরার কথা। তারা ক্যাম্পে ফিরে এসে অন্য রোহিঙ্গাদের বুঝালে রোহিঙ্গারা ভাসানচর যেতে আগ্রহ প্রকাশ করতে পারেন।
    তবে কক্সবাজারের স্থানীয় বাসিন্দারা ভাবছেন, রোহিঙ্গা প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ভাসানচর থেকে ফিরে কোন একটি কারণ দেখিয়ে প্রত্যাবাসনের মতো ভাসানচর যেতে বেঁকে বসতে পারে। কারণ তারা উখিয়া ও টেকনাফে মাদক কারবার থেকে শুরু করে স্থানীয়দের সঙ্গে মিলে ব্যবসা বাণিজ্যসহ চলাফেরায় অবাধ স্বাধীনতা ভোগ করছে। তাই তারা সহজে ভাসানচর ফিরতে চাইবেনা বলে ধারণা স্থানীয়দের। তবে স্থানীয়দের দাবি, রোহিঙ্গাদের দ্রুত কাঁটাতারের বেড়ার সীমানায় রেখে অবৈধ সবধরনের সুযোগ সুবিধা গ্রহণের পথ বন্ধ করে দিলে তারা ভাসানচর নয় মিয়ানমার ফিরতেও রাজি হবে।
    এদিকে উখিয়া ও টেকনাফের পাহাড়ে ৩২ টি ক্যাম্পে ঘনবসতিপূর্ণ অবস্থায় বসবাস করছেন প্রায় এগারো লাখ রোহিঙ্গা। মিয়ানমারের রাখাইন থেকে পালিয়ে আশ্রয় নেয়ার তিন বছর পূর্ণ হলেও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কিংবা অন্যত্র স্থানান্তর কোনটি সফল না হওয়ায় কক্সবাজারের স্থানীয় বাসিন্দারা বেশ নাখোশ। ছোট আয়তনে এত বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাদের ঠাসাঠাসি করে বসবাসের পাশাপাশি তাদের কারণে এখানকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি, পাহাড়ি বনভূমিসহ পরিবেশের উপর মারাত্মক প্রভাব স্থানীয়দের নিয়মিত হাঁপিয়ে তুলছে।
    টেকনাফের হ্নীলা এলাকার বাসিন্দা হারুন অর রশিদ বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে আমরা বেশ সমস্যায় রয়েছি। তাদের প্রত্যাবাসনই হবে চূড়ান্ত সমাধান। তবে প্রত্যাবাসন বিলম্ব হলে অন্তত অর্ধেক রোহিঙ্গাকে অন্যত্র সরিয়ে উখিয়া ও টেকনাফের উপর চাপ কমানোর ব্যবস্থা নেয়া দরকার।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ