মঙ্গলবার ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

এবার ফুটপাতে জমেনি ঈদ বাজার

তারেকুর রহমান   |   শনিবার, ০৮ মে ২০২১

এবার ফুটপাতে জমেনি ঈদ বাজার

একসাথে লকডাউন ও পবিত্র রমজান মাস, কেনাকাটা যা হচ্ছে মার্কেটেই হচ্ছে। শহরে উন্নয়নমূলক কাজে রাস্তা সংস্কারের কারনে প্রতিবারের মতো এবার ফুটপাতে জমছে না ঈদ কেনাকাটা।

ফুটপাতের দোকান ব্যবসায়ীরা বলছেন, রাস্তায় সংস্কার কাজ চলা, লকডাউনের কারণে সন্ধ্যার পরে প্রশাসনের অভিযান এবং দূরের মানুষ শহরে আসতে না পারায় ফুটপাতের দোকানগুলোতে ক্রেতা উপস্থিতি কম।

শুক্রবার (০৭ মে) সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ার পরও শহরের বিভিন্ন স্থান ঘুরে ফুটপাতের দোকানগুলোতে ক্রেতার তেমন উপস্থিত লক্ষ্য করা যায়নি।

সবসময় জমজমাট থাকা লালদিঘীর পশ্চিম-দক্ষিণ পাড়ের ফুটপাতের দোকানগুলো ছিল ফাঁকা। সরেজমিনে দেখা যায়, বেশিরভাগ দোকানে ক্রেতা একেবারেই নেই। কিছু দোকানে অল্পকিছু ক্রেতা আছেন।

লালদিঘীর পশ্চিম পাড়ের ফুটপাত দোকানের ব্যবসায়ী আবুল বশর বলেন, ‘লকডাউনের কারণে কোনো ক্রেতা-গ্রাহক নেই। সাধারণত প্রতি বছর ঈদে আমাদের ব্যবসা এতো ঠান্ডা যায় না। আর এখানে তো সবসময়ই ভিড় থাকে। এমনি সময়ে যা থাকে ঈদের সময়ে সেটাও নাই।’

ফায়ার সার্ভিস এলাকায় শফিকুর রহমান দীর্ঘদিন ধরে ফুটপাতের দোকান ব্যবসা করে আসছেন। ঈদ সামনে রেখে বাহারি রঙের পোশাক কিনে এনেছেন কুমিল্লা থেকে। কিন্তু কাঙ্খিত ব্যবসা হচ্ছে না বলে মন খারাপ করে বলেন, ‘ফুটপাতে বেচা-বিক্রির এমন দূরাবস্থা হবে জানলে মাল কিনে আনতাম না। এতো কম বেচা-বিক্রি আমি আর দেখি নি। লোকজন মার্কেট থেকে কিনার জন্য আমাদের দিকে তাকাচ্ছে না।’

দোকানের খরচ আর বিভিন্ন জায়গায় ‘উৎকোচ’ দিয়ে এবারের ঈদে আর লাভ হবে না বলে মনে করেন সোনালী ব্যাংকের নিচে জুতার ব্যবসায়ী ফরহাদ উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘আমরা ফুটপাতে ব্যবসা করলেও আমাদের বিভিন্ন খরচ রয়েছে। ঈদ উপলক্ষে চট্টগ্রাম থেকে সুন্দর সুন্দর ডিজাইনের মাল আনছিলাম। কিন্তু ফুটপাতের দোকানগুলোতে গ্রাহক কমে যাওয়ায় সেই মাল বিক্রি হবে কি না সেটাই এখন চিন্তা।’

এদিকে ফুটপাতে ক্রেতা যারা আসছেন তাদের মধ্যে নেই আবার স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই। একসঙ্গে জড়ো হয়ে গায়ে গা ঘেঁষেই কিনছেন মালামাল।
কোথাও নেই জীবাণুনাশক বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রয়োগের ব্যবস্থা।

কেনাকাটা করতে আসা নতুন বাহারছড়ার ইব্রাহীম মাহমুদ বলেন, ‘এখানে কোন স্বাস্থ্যবিধি নেই। এই ঝামেলার মধ্যে আমি যদি দূরে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে থাকি তাহলে আর কিছু কিনতেই পারব না। কারণ এখানে সবাই ভিড় করছেন। তবুও এখানে আসি কারণ এখানে কিছুটা কমে কিনতে পারি। শপিং সেন্টারে গেলে দেখা যাবে একই জিনিস অনেক দামে কিনতে হবে।

Comments

comments

Posted ১:৪৪ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ০৮ মে ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

(192 বার পঠিত)

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com