• শিরোনাম

    চকরিয়ার সাঈদীর গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে তোলপাড়

    এমপি জাফরের মুখে তীব্র ক্ষোভ ও সমালোচনা

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৬ জুলাই ২০১৯ | ১:৪০ পূর্বাহ্ণ

    এমপি জাফরের মুখে তীব্র ক্ষোভ ও সমালোচনা

    কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে নির্বাচিত বিদ্রোহী প্রার্থী এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ফজলুল করিম সাঈদী গ্রেফতারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের সাথে দেখা করা সহ সরকারি সভা সমাবেশে যোগ দেয়ার বিষয়টি নিয়ে চকরিয়ায় তোলপাড় চলছে। রবিবার কক্সবাজার জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায় তাঁর যোগদান নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদটি প্রকাশের পর থেকেই লোকজনের মধ্যে বিষযটি নিয়ে দারণ ঔৎসুক্যের সৃষ্টি হয়।
    এমনকি চকরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদীর গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে তাঁর সমর্থকদের মধ্যে হতাশা নেমে এসেছে। অপরদিকে তাঁর প্রতিপক্ষ বিষয়টি নিয়ে নেমেছে মাতামাতিতে। অপরদিকে গতকাল সোমবারের আজকের দেশবিদেশ সহ বিভিন্ন গনমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে চকরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী বলেছেন-তিনি মামলাটিতে যথারীতি জামিনে রয়েছেন। জামিনের সহিমুহুরি নকল তিনি সংগ্রহ করে শীঘ্রই জেলা পুলিশের দপ্তরে পৌঁছাবেন।
    রাজধানী ঢাকার পল্টন থানা পুলিশের হাতে জাল অস্ত্রের লাইসেন্স দেখিয়ে ২ টি আগ্নেয়াস্ত্র ক্রয়ের সময় হাতেনাতে গ্রেফতার হন ২০১৪ সালে। এ ঘটনার ব্যাপারে পল্টন থানায় হওয়া মামলায় সাঈদীর বিরুদ্ধে অভিযোগ পত্র দাখিলের পর আদালত গত ১৫ জুন গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। রবিবার আইন শৃংখলা কমিটির সভায় পরোয়ানা জারির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।
    এদিকে গণমাধ্যমে সাঈদীর বিরুদ্ধে জারি করা গ্রেফতারি পরোয়ানার বিষয়টি প্রকাশ হবার পর তিনি গতকাল সোমবার থেকে জনসমক্ষে বের হচ্ছেন না। এমনকি গতকাল সোমবার কক্সবাজারের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার ও জেলা প্রশাসন সহ অন্যান্য বিভাগীয় সরকারি কর্মকর্তাদের চকরিয়ায় বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করাকালীন সময়ে উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদী উপস্থিত ছিলেন না। তরে সাঈদীর সমর্থকরা জানিয়েছেন, তিনি গতকালই রাজধানী ঢাকায় মামলা সংক্রান্ত বিষযে তদবির করতে গেছেন।
    এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে বন্যা সংক্রান্ত বিষয়ে অনুষ্টিত সভায়ও উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদী অনুপস্থিত ছিলেন। উক্ত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় এমপি জাফর আলম তাঁর বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদীর নাম উল্লেখ না করে তাঁর (সাঈদী) তীব্র সমালোচনা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
    এমপি জাফর আলম সভায় প্রশ্ন তুলে বলেন-‘ তিনি কিভাবেইবাউপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসাবে কাজ করবেন ? তিনি কি করে গ্রেফতারি পরোয়ানার তথ্য গোপন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কার্যালয়ে গিয়ে তাঁদের সাথে ছবি তুলেন ? কিভাবে একজন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গ্রেফতারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে খোদ জেলা পুলিশের প্রধান কর্মকর্তার (এসপি) উপস্থিতিতে ঔদ্বত্যপূর্ণ বক্তব্য রাখেন ?
    সভায় এমপি জাফর আরো অভিযোগ তুলে বলেন, তিনিতো গোটা উপজেলায় দখলবাজি করে চলেছেন, বন্যার পানি নিষ্কাশন না হবার নেপথ্যের কারন এরকম দখলবাজিও দায়ি-বলেন এমপি জাফর। উপজেলা চেয়ারম্যানের সমালোচনা করে তিনি বলেন, উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যানকে পর্যন্ত উপজেলা চেয়ারম্যান কোন পাত্তাই দেন না। বরং তাকে উল্টো হুমকি দেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ