• শিরোনাম

    চেয়ারম্যান পদে আ’লীগ ২, জাপা ১

    কক্সবাজারের ৬ ইউপিতে শান্তিপূর্ণভাবে উপ-নির্বাচন সম্পন্ন

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৬ জুলাই ২০১৯ | ১:২২ পূর্বাহ্ণ

    কক্সবাজারের ৬ ইউপিতে শান্তিপূর্ণভাবে উপ-নির্বাচন সম্পন্ন

    কক্সবাজার জেলার ৬ ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন হয়েছে চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য এবং সাধারণ সদস্য পদে উপ-নির্বাচন। নির্বাচনে ৫০ ভাগের বেশি ভোটার তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কারণে নির্বাচন চলাকালে কোথাও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।
    অনুষ্ঠিত নির্বাচনে চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদে একই দলের মনোনীত প্রার্থী রাশেদ মোহাম্মদ আলী এবং কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়নে উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটন বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।
    চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী ৮ হাজার ৭৬০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ইউনিয়ন জামাতের সভাপতি ফরিদুল আলম মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৯৪৭ ভোট। এই উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচনে ৭২৫ ভোট পেয়ে ফুটবল প্রতীকের প্রার্থী সাইফুল করিম বেসরকারিভাবে মেম্বার নির্বাচিত হয়েছেন।
    টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রাশেদ মোহাম্মদ আলী ১০ হাজার ৯২৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত জালাল উদ্দিন চৌধুরী আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৩৩০ ভোট। একই উপজেলার সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড ১,২ ও ৩ এ মাইক প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ৫৬১ ভোট পেয়ে শাহেনা রহমান বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।
    কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদে উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটন ৪ হাজার ২৯২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী তৌহিদুল ইসলাম খোকন আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৬৪৮ ভোট। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল কালাম ১ হাজার ৯২৭ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন।
    মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড ৪,৫, ও ৬ এ তালগাছ প্রতীকের প্রার্থিনী ২ হাজার ১৩৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।
    উল্লেখ্য, নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণপরিবেশে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন ৩জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, ১১ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত করাসহ পর্যাপ্ত সংখ্যক সশস্ত্র পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব ও কোস্টগার্ড সদস্য মোতায়েন করে।
    বড়ঘোপ ইউপিতে শহীদ উদ্দিন ছোটন
    লিটন কুতুবী,কুতুবদিয়া থেকে জানান,
    অনেক জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচন। বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন কুতুবদিয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটন।
    তিনি ঘোড়া প্রতীক নিয়ে মোট ভোট পেয়েছেন ৪হাজার ২৯২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী তৌহিদুল ইসলাম খোকন আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩হাজার ৬৪৮ ভোট। অন্যদিকে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী আবুল কালাম নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১হাজার ৯২৭ ভোট। বিজয়ীপ্রার্থীর পরাজয়ের ব্যবধান ৬৪৭ ভোট। মোট ভোটার ১৯ হাজার ২৬৩ ভোট। এ নির্বাচনে মোট ভোটার অংশগ্রহণ করেছে ৯হাজার ৯৬০জন। অবৈধ ভোটার ৯৬ভোট। বৈধ ভোটার ৯হাজার ৮৬৬ ভোট। উপ-নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি ৯হাজার ৩০৩ ভোটার। তবে এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ভোটে অংশগ্রহণ করেছে ৫১.৭%। বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনে মোট ভোট কেন্দ্র ছিল ৯টি। এ তথ্য কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার মুহাম্মদ জামসেদুল ইসলাম সিকদার নিশ্চিত করেন।
    এ উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের ভরাডুবির নিয়ে রাজনৈতিকভাবে অনেক প্রশ্ন উঠেছে স্থানীয় আ’লীগের নেতাকর্মীদের ভূমিকা নিয়ে।
    কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) সুপ্রভাত চাকমা জানান, বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদে উপ-নির্বাচন সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার জন্য দুইজন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট,একজন জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট নিরলসভাবে কাজ করেন।
    কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ দিদারুল ফেরদাউস জানান, এ নির্বাচনে দুইদল কোস্টগার্ড,প্রতি ভোট কেন্দ্রে অফিসারসহ ৫জন পুলিশ, প্রতি ভোট কেন্দ্রে ১৭জন আনসার ছিল। তাদের প্রচেষ্ঠায় এবং পরিশ্রমে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে।
    টেকনাফ থেকে জানান
    হ্নীলা ইউপি ও সাবরাং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড উপনির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন হয়েছে। ভোট গ্রহণ শেষে ঘোষিত ফলাফলে সাবেক সাংসদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলীর পুত্র নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী রাশেদ মাহমুদ আলী এবং সাবরাং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে শাহেনা বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছে।
    পূর্ব ঘোষণানুসারে ২৫জুলাই সকাল ৯টা হতে হ্নীলা ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হয়।
    বিকাল ৫টায় ভোট গ্রহণ শেষে গণনার পর বেসরকারীভাবে কেন্দ্র ওয়ারী ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এতে (১) আলী আকবর পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-২৬০,মোটর সাইকেল-১১৮৯,আনারস-৯২,(২) নাইক্ষ্যংখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-৩৭৩, মোটর সাইকেল-১০০১,আনারস-৪৬,(৩)হ্নীলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-২৭৫৬, মোটর সাইকেল-৯৮,আনারস-১০৯,(৪) পানখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-৪০০, মোটর সাইকেল-৮১,আনারস-১৩৪৫,(৫) সুফিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-১৪৭১,মোটর সাইকেল-৯৬,আনারস-৪৮৬,(৬) উলুচামরী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-১১৬০,মোটর সাইকেল-১৭৯,আনারস-২৪৩,(৭) রঙ্গিখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-১৪১২,মোটর সাইকেল-৩১১,আনারস-৩৫২,(৮)লেদা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-১৭১১,মোটর সাইকেল-২২৩,আনারস-৩৩২,(৯)জাদিমোরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা-১৩৮১,মোটর সাইকেল-১৫২, আনারস-১৮৩ ভোট পেয়েছেন। প্রাপ্ত ভোট পর্যালোচনা করে নৌকা প্রতীক ১০হাজার ৯শ ২৪ ভোট, মোটর সাইকেল ৩হাজার ৩শ ৩০ ভোট এবং আনারস ৩হাজার ১শ ৮৮ভোট পেয়েছেন। এতে নৌকা ১ম,মোটর সাইকেল ২য় এবং আনারস ৩য় স্থান হয়েছেন।
    অপরদিকে সাবরাং ইউনিয়নের (১,২ ও ৩নং ওয়ার্ডের) সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার পদে উপনির্বাচনে বেসরকারীভাবে ঘোষিত ফলাফলে শাহেনা রহমান (বি,এ) মাইক প্রতীকে ২হাজার ৫শ ৬১ ভোট, ছেনুয়ারা বেগম সূর্যমুখী ফুল প্রতীক ৫শ ৬৬ ভোট,আমিনা খাতুন হেলিকপ্টার প্রতীক ৪শ ৫৫ভোট পেয়েছেন।আমিনা খাতুন হেলিকপ্টার প্রতীক ৪শ ৫৫ভোট পেয়েছেন।
    শাপলাপুর ইউনিয়নের সংরক্ষিত আসনে মনোয়ারা
    নিজস্ব প্রতিবেদক, মহেশখালী থেকে জানান
    মহেশখালীর শাপলাপুর ইউপির ৪,৫ ও ৬ নাম্বার ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনে উপনির্বাচনে মনোয়ারা বেগম( তালগাছ) প্রতীক নিয়ে ২১৩৮ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হয়েছে।
    ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিত উপ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মনোয়ারা বেগম (তালগাছ) ২১৩৮ ভোট, ছখিনা বেগম (সূর্যমূখী ফুল) ৭০৫ ভোট, ডেজি আক্তার (বই) ৬২ ভোট। মোট ৫৫৬৭ ভোট, পুরুষ ভোটার ২৭৪৮জন,মহিলা ভোটার ২৮১৯জন, ৩টি কেন্দ্রে,১৪টি বুথে এ ভোট অনুষ্টিত হয়। উক্ত নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও মহেশখালী উপজেলার নির্বাচন অফিসার মোঃ জুলকার নাঈম জানান নির্বাচন সুষ্টু ভাবে অনুষ্টানের লক্ষে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। নির্বাচনের দায়িত্বে ২জন ম্যাজিস্ট্রেট, ১প্লাটুন বিজিবি, বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও আনসার সদস্য মোতায়েন ছিল। উল্লেখ্য সদ্য সমাপ্ত হওয়া উপজেলা নির্বাচনে মনোয়ারা বেগম ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় আসনটি শুন্য ঘোষনা করা হয়।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ