• শিরোনাম

    ‘জুয়ার রাজা’ বিএনপি নেতা আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান সহ এক সপ্তাহেই ২ সম্রাট আটক

    কক্সবাজারে অনলাইন ক্যাসিনোতে জড়িত দেড়শ

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ৩১ অক্টোবর ২০১৯ | ১:৫০ পূর্বাহ্ণ

    কক্সবাজারে অনলাইন ক্যাসিনোতে জড়িত দেড়শ

    গত এক সপ্তাহেই দেশের অন্যতম পর্যটন শহর কক্সবাজারের জুয়া ও ক্যাসিনো জগতের দুই স¤্রাট ধরা খেয়েছেন। অনলাইন ক্যাসিনো স¤্রাট হিসাবে পরিচিত মোস্তফা কামাল নামের এক তরুণ ধরা খেয়েছেন গত ২৩ অক্টোবর। পুলিশের হাতে আটক তরুণ মোস্তফা কামালের উদ্বৃতি থেকে জানা গেছে, পর্যটন শহর কক্সবাজারে অনলাইন ক্যাসিনোতে জড়িত রয়েছেন ১৫০ জনের ক্যাসিনো খেলোয়াড়। কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন এ সব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
    সর্বশেষ গত মঙ্গলবার ঢাকার শাহজালাল বিমান বন্দরে ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও বিপুল অংকের নগদ টাকার ব্যাগ সহ ধরা পড়েছেন ৭৫ বছর বয়ষ্ক কক্সবাজারের ‘জুয়ার রাজা’ হিসাবে পরিচিত বিএনপি নেতা আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান। পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে ঢাকা থেকে কক্সবাজারগামি একটি বিমানের যাত্রী ছিলেন আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান।
    ওই সময় বিমান বন্দরের শুল্ক কর্মকর্তারা বিএনপি নেতা আবদুল হাকিম চেয়ারম্যানের লাগেজ তল্লাশী করে বিপুল পরিমাণ ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও নগদ টাকা খুঁজে পান। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ তাকে আটক করে। ঢাকা বিমান বন্দর থানার উপ পরিদর্শক আবদুল মান্নান বাদী হয়ে আবদুল হাকিম চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে একই থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

    কক্সবাজারের চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহমান গতরাতে জানান-‘ চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হাকিম ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও নগদ টাকা সহ ঢাকায় আটক হবার কথা শুনেছি।’ অপরদিকে কক্সবাজার জেলা বিএনপি’র সাংগটনিক সম্পাদক জামিল ইব্রাহিম নিশ্চিত করেন যে, আটক আবদুল হাকিম দীর্ঘদিন ধরেই বিএনপি রাজনীতিতে জড়িত রয়েছেন। এমনকি তিনি (আবদুল হাকিম) মাতামুহুরী সাংগটনিক বিএনপি’র উপদেষ্টা ছিলেন।
    চকরিয়ার সাহারবিল ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মুহসীন বাবুল জানিয়েছেন, আটক হওয়া বিএনপি নেতা আবদুল হাকিম দীর্ঘকাল ধরেই কক্সবাজার ও চট্টগ্রামে জুয়া খেলে আসছেন। তবে সাম্প্রতিক সময়ে এমন বৃদ্ধ বয়সেই আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান রাজধানী ঢাকায় ক্যাসিনো জগতে জড়িয়ে পড়েন। মুহসীন বাবুল আরো জানান, বিগত অর্ধশত বছর ধরে আবদুল হাকিম নিয়মিত জুয়া খেলায় জড়িত রয়েছেন। আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান হচ্ছেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদীর শ্বশুর।

    গত কয়েক মাস আগে কক্সবাজারের একটি ক্লাবে এক অপ্রীতিকর ঘটনার পর আবদুল হাকিম কক্সবাজার ত্যাগ করেন। তিনি প্রতিদিন সন্ধ্যায় চকরিয়া থেকে কক্সবাজার খেলতে আসতেন এবং ভোররাতে ঘরে ফিরতেন। এভাবেই কয়েক যুগ পার করেন তিনি। এমনকি এমন একটি কথাও চকয়িায় চাওর রয়েছে যে, কোন একবার ঈদের জামায়াতের নামাজও তিনি আদায় করতে পারেননি। কেননা ভোর রাতে গিয়ে তিনি ঘুমিয়ে পড়েন। আর ঘুম থেকে উঠতে না পেরে ঈদের জামাতও তিনি পাননি।
    সাম্প্রতিক সময়ে তিনি ঢাকায় ক্যাসিনোতে দুই কোটি টাকা জিতে যান। এরপরই তিনি ঢাকায় ক্যাসিনোতে জড়িয়ে যান এক প্রকার স্থায়ীভাবে। জুয়া খেলে আটক আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান বিপুল পরিমাণের সহায় সম্পদের মালিক হবার কথাও এলাকায় চাওর রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, চকরিয়ার জলদাশ সম্প্রদায়কে বঞ্চিত করে রামপুর মৌজার ৪২০ একরের চিংড়ি জমি জবর দখল করে নেন বিতর্কিত ব্যক্তি আটক আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান। জলদাসের চিংড়ি জমি দখলের ঘটনা থেকেই বিতর্কিত হয়ে পড়েন আবদুল হাকিম চেয়ারম্যান।

    এদিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানিয়েছেন, শহরের নুনিয়াছড়া এলাকা থেকে অনলাইন ক্যাসিনোতে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক হওয়া তরুণ মোস্তফা কামালের কাছে পিলে চমকানো তথ্য মিলেছে। পুলিশ সুপার মোস্তফা কামালের উদ্বৃতি দিয়ে জানান, পর্যটন শহর কক্সবাজারে ১৫০ জনের নিজস্ব আইডি পাওয়া গেছে- যারা কিনা সবাই অনলাইন ক্যাসিনোতে জড়িত। পুলিশ মোস্তফা কামালের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। সেই সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলছে। ####

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ