বৃহস্পতিবার ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

কক্সবাজারে সরকারি জায়গা দখলের উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯

কক্সবাজারে সরকারি জায়গা দখলের উৎসব

বাঁকখালী নদীর চরে এভাবেই খুটি গেড়ে দখল করা হচ্ছে

কক্সবাজারের পাহাড় , বনভূমি, খাস জমি, নদী , খাল , সমুদ্র, নালা, ছরাসব জমি এখন দখল হয়ে যাচ্ছে। নিজেদের বাপ-দাদার জমি মনে করে সরকারি জমি দখলের মহোৎসবে নেমেছে প্রভাবশালীরা। শুধু প্রভাবশালী নয় বিভিন্ন বাহিনীও দখল কর্মকান্ড থেমে নেই।
সমুদ্র সৈকতের নাজিরার টেক থেকে ইনানী পর্যন্ত হাজারো দখলবাজ সৈকত দখলে রয়েছে। এখানেও প্রভাবশালীদের সাথে রয়েছে বাহিনীর নাম। ঝাউগাছ দখল করে নাজিরার টেক, ডায়াবেটিক হাসপাতাল পয়েন্ট, রেজু খালের পাশের ঝাউগাছে সহ¯্রাধিক বসতবাড়ি গড়ে উঠেছে। ডায়াবেটিক পয়েন্টে এলাকায় বাহিনী, কবিতা চত্বর সড়কে পুলিশের সাইনবোর্ড, লাবণী পয়েন্টে দুই বাহিনীর স্থাপনা, ছাতা মার্কেট, সী ইন পয়েন্টে জেলা পরিষদের স্থাপনা , তার আশে পাশে মার্কেট , ডেস্টিনি হোটেল, হোটেল সায়মানের সামনের চত্বর , বড়ছরার পাশে, বড়ছড়া ব্রীজের পশ্চিম পাশে, পেঁচারদ্বীপ হোটেল সাম্পান, মারমেইড ইকো রিসোর্ট, মারমেইড বীচ রিসোর্ট সরকারি জমি দখল করে ব্যবসা করছে। সমুদ্র সৈকতের পাশের স্থাপনা উচ্ছেদ করার জন্য উচ্চ আদালতের নির্দেশ রয়েছে। মারমেইড ইকো রিসোর্ট রেজু খালের একাংশ দখল করে রেখেছে। এমন কি খালের উপর স্থাপনা গড়ে তুলেছে। একইভাবে মারমেইড বীচ রিসোর্ট সৈকত দখল করে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।
এদিকে বাঁকখালী নদী দখল করে গড়ে উঠেছে অসংখ্য স্থাপনা। জেলা প্রশাসন, উপকূলীয় বনবিভাগ, নৌ বন্দর কতৃপক্ষের তালিকায় ৪ শতাধিক অবৈধ দধলদারদের নাম রয়েছে। রফিকুল হুদা চৌধুরী, বজলুল করিম ভুট্রো, আতিক উল্লাহ, আবদুল খালেক চেয়ারম্যানসহ অসংখ্য প্রভাবশালীর নাম রয়েছে। তালিকায় নাম থাকা সত্বেও দখল কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে আবদুল খালেক চেয়ারম্যান। উত্তর নুনিয়াছড়াও একটি বাহিনী সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দখলে রেখেছে সরকারি জমি।
কক্সবাজারের বনবিভাগের জমি দখল অব্যাহত রয়েছে। বনবিভাগের জমি আর সরকারি পাহাড় শ্রেনীর ভূমি দখল করতে গেলে কেউ বাঁধা দেয়না। ফলে প্রভাবশালী, ধনী, গরিব সবাই দখল করছে পাহাড়। পাহাড় দখলেও রয়েছে বাহিনী। কক্সবাাজার শহরের গার্লস স্কুলের পাশে, কলাতলী রোডের সুইট ড্রীম হোটেলের সাইনবোর্ড দিয়ে ১০ কোটি টাকা মুল্যের সরকারি জমি দখল করা হয়েছে। এভাবে ভূমিগ্রাসিরা নিজেদের বাপ-দাদার সম্পত্তি মনে করে দখলের মহোৎসবে নেমেছে প্রভাবশালীরা। সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এ ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে দখলের মহোৎসব থামানো যাবেনা বলে আশংকা করেছেন স্থানীয়রা।

Comments

comments

Posted ১:৩৫ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com