শুক্রবার ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম
ক্ষোভে কলাগাছ পুঁতলো স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীরা

কমলের ভাগ্যে জুটলো না দলীয় মনোনয়ন

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   সোমবার, ২৬ নভেম্বর ২০১৮

কমলের ভাগ্যে জুটলো না দলীয় মনোনয়ন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি আগেই নিয়েছিলেন। দলীয় হাই কমান্ড তাঁর মনোনয়নও নিশ্চিত করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার হাতে থাকা খসড়া তালিকাতেও তাঁর নাম ছিলো শীর্ষে। বর্তমান সংসদ-সদস্য হওয়ায় তিনিও ধরে নিয়েছিলেন দল তাকেই মনোনয়ন দিচ্ছে। বিষয়টি নিজ সমর্থকদের ইতঃপূর্বে নিশ্চিতও করেছিলেন। এ জন্য তাঁর সমর্থকরা কয়েকদফা মিছিল সহকারে উল্লাসে ফেটে পড়েছিলেন।
কিন্তু তীরে এসেই যেন তরী ডুবলো সাইমুম সরওয়ার কমলের। মনোনয়নের একদম শেষ পর্যায়ে এসেই ঘটলো অঘটন। সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি জানলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর তালিকায় নেই তাঁর নাম। তাঁর স্থলে কক্সবাজার-৩ (কক্সবাজার সদর-রামু) আসনে মনোনয়ন দেয়া হলো মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব জিয়াাউদ্দিন আহমেদ বাবলুকে। জোট রক্ষার স্বার্থে তাঁকে চট্টগ্রাম থেকে এনে কক্সবাজারে প্রার্থী করা হচ্ছে।
অবশ্য বিষয়টি সাইমুম সরওয়ার কমল এম.পি ২৪ নভেম্বর আঁচ করতে পারেন। ওই দিন কক্সবাজার থেকে প্রকাশিত দৈনিকসহ অনলাইন পোর্টালে একটি আবেগঘন বিবৃতি প্রদান করেন তিনি। যে বিবৃতিতে এমপি কমল তাঁর ভাষ্য অনুযায়ী নিশ্চিত দলীয় মনোনয়ন হারানোর বেদনার বহিঃপ্রকাশ ঘটান। এ জন্য দায়ী করেন, নিজের আপন ভাই রামু উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সোহেল সরওয়ার কাজল, বোন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরিসহ কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ নেতাদের। পাশাপাশি ২১ নভেম্বর কক্সবাজার জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি জি.এম রহিমুল্লাহ্র জানাজায় নিজের দেয়া বক্তব্যেরও ব্যাখা দেয়ার চেষ্টা করেন।
এদিকে, ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি এমপি কমল । এমন সংবাদে ক্ষোভে ফেটে পড়ে তাঁর সমর্থকরা। বিশেষ করে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীরা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এই অঙ্গ সংগঠনের গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টা থেকে কক্সবাজার সদর ও রামু ্উপজেলার বিভিন্ন স্থানে কলা গাছ পুঁতে দেয়। সন্ধ্যায় এমপি কমলের পৈত্রিক হোটেল নিদমহল থেকে একদল যুবক বের হয়। এরপরই শহরের লালদিঘির পাড়স্থ কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় এবং এর সংলগ্ন এলাকায় কলাগাছ পুঁততে থাকে। জিয়াউদ্দিন বাবলুকে বয়কট এবং এমপি কমলকে মনোনয়ন দানের দাবিতেই ছিলো প্রতীকি এই প্রতিবাদ। যাতে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীরা ছাড়াও এমপি কমলের বেশ কয়েকজন নিকটাত্মীয় অংশগ্রহণ করেন।

Comments

comments

Posted ১:৫১ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ২৬ নভেম্বর ২০১৮

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com