শনিবার ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

কোটি টাকা নিয়ে উধাও, পথে বসে কাঁদছেন ৩৭ হজযাত্রী

দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক   |   রবিবার, ০৪ আগস্ট ২০১৯

কোটি টাকা নিয়ে উধাও, পথে বসে কাঁদছেন ৩৭ হজযাত্রী

সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেও দালালের খপ্পরে পড়ে হজে যাওয়া হলো না ৩৭ মুসল্লির। হজে পাঠানোর কথা বলে কথিত মোয়াল্লেমসহ একটি চক্র কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে উধাও। এ অবস্থায় কাঁদছেন ৩৭ মুসল্লি।

দালাল চক্রের খপ্পরে পড়ে হজে যেতে না পারায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা। টাকা উদ্ধারসহ প্রতারকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে রোববার প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

কিন্তু কথিত মোয়াল্লেম ওয়াছেদ আলীসহ প্রতারক চক্র এসব হজযাত্রীর কোটি টাকা নিয়ে উধাও। তাই প্রাক-নিবন্ধন করলেও আর হজে যাওয়া হলো না তাদের। অনেকে মিলাদ-মাহফিল, দোয়ার অনুষ্ঠান করে হজে যাওয়ার জন্য স্বজনদের কাছ থেকে বিদায় নিয়েছেন। এখন সমাজে তাদের মুখ দেখানো কঠিন হয়ে পড়েছে। হজে যেতে না পারায় এখন তারা কাঁদছেন।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, পঞ্চগড় সদর উপজেলার টুনিরহাট ফকিরপাড়া এলাকার মোয়াল্লেম ওয়াছেদ আলী ও কুমিল্লার লাকসাম এলাকার আব্দুল জলিল এটিএম ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস লিমিটেড ও সানফ্লাওয়ার এয়ার লিংকার্সসহ বিভিন্ন হজ এজেন্সির নামে দুই লাখ থেকে ৩ লাখ টাকা গ্রহণ করেছেন।

কিন্তু শেষ দিকে এসে টালবাহানা করেন ওয়াছেদ। একপর্যায়ে ঘা ঢাকা দেয় ওয়াছেদসহ প্রতারক চক্রের সবাই। এতে হজের আগ মুহূর্তে দিশেহারা হয়ে পড়েন ৩৭ জন মুসল্লি। চাহিদামতো টাকা দিয়েও হজে যেতে না পারায় কষ্টের সীমা নেই তাদের। দিশেহারা হয়ে বিভিন্ন দপ্তরের সহযোগিতার জন্য ঘুরছেন তারা। ভুক্তভোগীরা তাদের টাকা উদ্ধারসহ প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন তারা।

লিয়াকত আলী নামে আরেক ভুক্তভোগী বলেন, আমরা ওয়াছেদের কথামতো হজে যাওয়ার সব প্রস্তুতি নিয়েছি। বাড়ির সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়েছি। মিলাদ মাহফিল করেছি। হজের কাপড় কিনেছি। এ অবস্থায় আমরা আর যেতে পারলাম না। আমরা এই প্রতারকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। আর কোনো হজযাত্রীর সঙ্গে যেন এমনটা করতে না পারে তারা।

পঞ্চগড় জেলা শহরের মিলগেট এলাকার ক্বারী কছিম উদ্দিন বলেন, শেষ মুহূর্তে এসে আমরা জানতে পারি প্রতারকের খপ্পরে পড়েছি। তারা গাঢাকা দেয়। আমাদের ভুয়া মেডিকেল করিয়েছে তারা। আমাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে জমা দেয়নি। এমনকি আমাদের পাসপোর্টগুলোও তাদের হাতে আছে। আমরা আমাদের টাকা ও পাসপোর্ট উদ্ধারসহ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাই।

এদিকে মোয়াল্লেম ওয়াছেদ আলী ও আব্দুল জলিলের মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাদের নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়।

পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি আমি। তারা আমাকে জানিয়েছেন, প্রাক-নিবন্ধন হলেও মূল নিবন্ধন না হওয়ায় তাদের এবার হজে যাওয়ার সুযোগ নেই। ভুক্তভোগীদের আইনের আশ্রয় নেয়ার পরামর্শ দিয়েছি।

Comments

comments

Posted ১০:৪১ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০৪ আগস্ট ২০১৯

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com