মঙ্গলবার ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম
খবর আন্দবাজার পত্রিকার

ক্যান্সারের চিকিৎসায় নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার

দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক   |   বুধবার, ১১ জুলাই ২০১৮

ক্যান্সারের চিকিৎসায় নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার

ক্যান্সার চিকিৎসায় নতুন একটা পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন ভারতের এক চিকিৎসক। তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর। ১৯৯৯ সালে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার কার্গিল যুদ্ধ চলাকালে তিনি সৈনিকদের সুস্থ করে তুলতে কার্গিলের হাসপাতালে দাঁড়িয়ে দিন-রাত চিকিৎসা দিয়ে গেছেন। লড়াইটা আজও বজায় রেখেছেন তিনি। তবে যুদ্ধক্ষেত্র আজ আর কার্গিল নয়, লড়াইয়ের ময়দান এখন দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস (এইমস)। লক্ষ্য একটাই, কীভাবে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের অল্প সময়ে সঠিক পদ্ধতিতে অস্ত্রোপচার করে দ্রুত সুস্থ করে তোলা যায়।

সে কাজে আজ অনেকটাই সফল ভারতর পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলপির ছেলে মুকুরদীপি রায়। দেহে নাভির নীচের অংশে যে নানা ধরনের ক্যান্সার হয়ে থাকে, সেই আক্রান্ত কোষগুলিকে অস্ত্রোপচার করে বাদ দেওয়ার একটি সম্পূর্ণ নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন সার্জিক্যাল অঙ্কোলজির ওই বাঙালি চিকিৎসক। যে পদ্ধতিকে সমীহ করতে বাধ্য হয়েছে বিশ্বও।

দু’বছর আগে তার ‘রিভার ফ্লো’ পদ্ধতিকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেয় ‘ওয়ার্ল্ড জার্নাল অব মেথোডলজি’। এরপর গত দু’বছর ধরে সেই পদ্ধতি মেনে শুরু হয় প্রয়োগ। এই সময়ে প্রায় ১০৫টি ছোট-বড় অস্ত্রোপচার করেছেন একাধিক জাতীয়-আন্তর্জাতিক পদকপ্রাপ্ত এই চিকিৎসক। গত মে মাস পর্যন্ত ১০৫টি অস্ত্রোপচারে সাফল্য আসায় ‘রিভার ফ্লো’র প্রয়োগকেও স্বীকৃতি দিয়েছে ‘ওয়ার্ল্ড জার্নাল অব সার্জারি’।

প্রথাগত পদ্ধতিতে ছেলে-মেয়ে নির্বিশেষে কোমরের নীচে অস্ত্রোপচার করলে ক্ষতস্থান শুকাতে দীর্ঘ সময় লাগে। মুকুরদীপি রায় বলেন, ‘‘অর্ধেকের বেশি রোগীর ক্ষেত্রে দেখা গেছে অস্ত্রোপচারের পরে আবার সেই ক্ষতস্থানে সংক্রমণ হওয়ায় রোগীরা ফের হাসপাতালে ফিরে আসেন। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেলাইয়ের স্থানের চামড়া গলে যায়। ফলে শরীরের অন্য জায়গা থেকে চামড়ার সঙ্গে পেশি তুলে নিয়ে এসে সেই ক্ষতস্থান ভরতে হয়। এতে এক দিকে সেই রোগী ও তার পরিবারের হয়রানি হয়। অন্যদিকে পুরনো রোগীরা হাসপাতালে থাকার ফলে জায়গা পান না নতুনরা। মুকুরদীপির দাবি, ‘‘আমার নতুন পদ্ধতিতে অস্ত্রোপচারের স্থান এমনভাবে নির্বাচন করা হয় যাতে ধমনী কেটে না যায়।’’ এই পদ্ধতিতে অস্ত্রোপচারের পরে ক্ষতস্থানে চামড়া পচে যাওয়ার একটি ঘটনাও ঘটেনি বলে তাঁর দাবি।

এইমসের নীতি কমিটি ওই পদ্ধতিকে স্বীকৃতি দেওয়ার পরেই একশোর উপরে রোগীর উপর প্রয়োগ করে প্রতিটিতে সাফল্য পান তিনি। অ্যানোরেক্টাল, গাইনোকলোজিক্যাল ক্যান্সারের ক্ষেত্রেও ওই নতুন পদ্ধতি অত্যন্ত কার্যকর ও এতে রোগীদের বেঁচে থাকার মেয়াদও অনেক বেড়ে যায় বলে দাবি ভারতীয় সেনার ওই প্রাক্তন মেজরের।

Comments

comments

Posted ৪:০৮ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১১ জুলাই ২০১৮

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

রঙ্গনে ঈদের রং
রঙ্গনে ঈদের রং

(766 বার পঠিত)

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com