• শিরোনাম

    চকরিয়ায় শান্তিপূর্ণ ও নিরুত্তাপ নির্বাচন

    মুকুল কান্তি দাশ,চকরিয়া: | ১৯ মার্চ ২০১৯ | ১২:৩৮ পূর্বাহ্ণ

    চকরিয়ায় শান্তিপূর্ণ ও নিরুত্তাপ নির্বাচন

    চকরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাঁচ স্তরের নিরাপত্তাবলয় সৃষ্টি করায় অবাধ, সুষ্ট ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্টিত হয়েছে। বিকেল ৩টায় গোলযোগের অভিযোগে পৌরসভার পালাকাটা প্রাথমিক সরকারী বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছে। অপর ৯৮টি কেন্দ্রে কোন অভিযোগ উঠেনি। তবে, কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি ছিলো অত্যন্ত স্বল্প। বিএনপি-জামায়াতের সমর্থকরা বেশিরভাগ ভোটার নির্বাচনমুখি না হওয়ায় ভোট প্রয়োগ কম হয়েছে। তবে, কিছু কিছু কেন্দ্রে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত ভোটাররা কিছু কিছু কেন্দ্রে উপস্থিত হওয়ায় ভোটের হার ৫০ শতাংশ ছাড়িয়েছে।
    এ রিপোর্ট লেখার সময় কেন্দ্রে ভোট গণণা শেষে উপজেলা কন্ট্রোল রুমে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।
    বিভিন্ন প্রার্থীদের এজেন্টেদের সুত্রে জানা গেছে, বেশির ভাগ কেন্দ্রে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস মার্কার ফজলুল করিম সাঈদী এগিয়ে রয়েছেন। কন্ট্রোল রুমে প্রতিটি কেন্দ্র থেকে পাঠানো ভোট গণণা করছে।
    উত্তর মানিকপুর কেন্দে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার তাজউদ্দিন জানিয়েছেন, আমার কেন্দ্রে ২৪ শতাংশ ভোট প্রয়োগ হয়েছে। অনুরুপভাবে ৯৯টি কেন্দ্রের মধ্যে অন্তত ৮০টি কেন্দ্রে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ ভোট প্রয়োগের মধ্যে সীমাবদ্ধ রয়েছে।
    সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সকাল ৮টার দিকে বেশ কিছু ভোটারের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি ছিলো একেবারে নগণ্য।
    চকরিয়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন বলেন, নির্বাচন সুষ্ট ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্টিত হয়েছে। উপজেলার ৯৯টি কেন্দ্রের জন্য ২০জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি ৬ প্লাটুন বিজিবি, ১ হাজার ১’শ জন পুলিশ সদস্য নিয়োজিত ছিলো। এর মধ্যে প্রতিটি কেন্দ্রে একটি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স, পৌরসভায় ২টি স্ট্রাইকিং ফোর্স এবং দুই কেন্দ্র মিলে একটি করে পুলিশের ভ্রাম্যমান টিম দায়িত্ব পালন করছে। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে ১২জন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। চকরিয়া পৌরসভার পালাকাটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গোলযোগ উঠায় তৎক্ষণিকভাবে সেটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
    চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) কাজী মো.মতিউল ইসলাম বলেন, উপজেলা নির্বাচন সুষ্ট ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর ছিলো বিধায় কোন রকমের ঝামেলা ছাড়াই নির্বাচন সুষ্টভাবে সম্পন্ন করেছি।
    এদিকে চকরিয়া উপজেলা নির্বাচন সরজেমিন পরিদর্শন করেছেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন, জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনসহ জেলার বিভিন্ন পর্যায়ের শীর্ষ কর্মকর্তারা।
    তারা অভিন্ন বক্তব্যে বলেন, নির্বাচন সুষ্টু করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক অবস্থায় ছিলো। ভোটারের উপন্থিতি ছিল সন্তোষজনক। সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণ ভোট আয়োজনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর অবস্থানে ছিলো।
    উল্লেখ্য, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছেন। সাধারণ ভাইস-চেয়ারম্যান পদে ৫জন এবং মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ