• শিরোনাম

    রাত বারোটায় ভূমিকম্প হবে গুজব ছড়িয়ে পাড়ায় পাড়ায় আতঙ্ক সৃষ্টি

    চকরিয়া ও পেকুয়ায় গভীর রাতে বাড়ি ছেড়ে রাস্তায় মানুষ!

    ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া | ২৭ মার্চ ২০২০ | ৯:০২ অপরাহ্ণ

    চকরিয়া ও পেকুয়ায় গভীর রাতে বাড়ি ছেড়ে রাস্তায় মানুষ!

    করোনার প্রভাব বিস্তার রোধে একসঙ্গে দুইজনের চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা জারি করে সারাদেশের মতো সরকারি আদেশ মেনে কক্সবাজারের চকরিয়া ও পেকুয়ার মানুষ বাড়িতেই অবস্থান করছিলেন দুইদিন ধরে। এমন পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার রাত বাড়ার সাথে সাথে পাড়ায় পাড়ায় গুজব ছড়িয়ে পড়ে ‘রাত বারোটায় ভূমিকম্প হবে, আপনারা সবাই বাড়ি থেকে বেরিয়ে রাস্তায় নেমে আসুন।’
    সংঘবদ্ধ একটি চক্র পাড়ায় পাড়ায় এমন গুজব ছড়িয়ে দেওয়ার পর সেই গুজবে ভর করে ঠিকই মানুষ রাস্তায় বেরিয়ে পড়ে। বিভিন্নস্থানে জটলা হয়ে পড়ে মানুষের। তারা একে অপরের সাথে মিশে যাওয়ায় সরকারি আদেশও অমান্য হয়। হৈ চৈও পড়ে গেলে অনেকের মাঝে আতঙ্কও ছড়িয়ে পড়ে। পরে অবশ্য রাত বারোটা পার হলে অনেকের বুঝতে বাকী ছিলনা, ভূমিকম্প হবে কথাটি ছিল নিছকই গুজব।
    খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এর আগে রাত ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মসজিদে মসজিদে আজান দেওয়া শুরু হয়। একইভাবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অনেক বাড়িতেও উলুধ্বনী ও শঙ্খধ্বনী বেজে উঠে। এর পর পরই প্রচার হয়ে পড়ে রাত বারোটায় ভয়াবহ ভূমিকম্প হবে।
    দুই উপজেলার ইউনিয়ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে রাজনৈতিক দলের বিভিন্ন নেতাকর্মীর সঙ্গে আলাপ করে নিশ্চিত হওয়া গেছে, প্রতিটি এলাকায় এ ধরণের গুজব ছড়িয়ে পড়লে মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় অনেক জনপ্রতিনিধি ও সচেতন ব্যক্তিরা এটি নিছক গুজব বলে জানালেও তা বিশ্বাস না করে গভীর রাতে বাড়ি থেকে বের হয়ে রাস্তায় নেমে আসেন।
    করোনা বিষয়ে মানুষের মাঝে বেশ কয়েকদিন ধরে সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়ে আসা কালের কণ্ঠ শুভসংঘ, স্বাধীন মঞ্চ, পিস ফাইন্ডারসহ একাধিক স্বেচ্ছাসেবী ও সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উদ্বেগ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, বিশ্বব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনার বিস্তাররোধে সরকার সারাদেশের মানুষকে লকডাউনে নিয়েছে। ভাইরাসটি ছোঁয়াচে হওয়ায় একজনের সঙ্গে আরেকজনের দূরত্ব বজায় রাখতেও কাজ শুরু করেছেন। এমন পরিস্থিতিতে ভূমিকম্পের গুজব ছড়িয়ে এবং ধর্মের ব্যবহার করে সবাইকে বাড়ি থেকে বের রাস্তায় নামিয়ে আনা হয়েছে। এতে সবাই একাকার হয়ে মিশে গেছে। তাহলে করোনা নিয়ে সচেতনতার প্রশ্নে কি দাঁড়ালো!
    ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পেকুয়া থানার ওসি মো. কামরুল আজম বলেন, ‘করোনার প্রভাব বিস্তার ঠেকাতে একসঙ্গে দুইজনের চলাফেরা বন্ধ করতে পুলিশ মাঠে কাজ করে আসছিল। এই পরিস্থিতিতে হঠাৎ বৃহস্পতিবার রাতে ভূমিকম্প হওয়ার গুজব ছড়ালে মানুষ তা বিশ্বাস করে রাস্তায় নেমে পড়ে। পরে অবশ্য সেটি যে গুজব ছিল তা জানার পর মানুষ বাড়িতে ঢুকে পড়ে। পুলিশ এবং জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে এলাকায় এলাকায় লোকজনকে গুজবে কান না দিতে সচেতন করা হচ্ছে।’
    একই তথ্য জানিয়ে চকরিয়া থানার ওসি মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘ইতোমধ্যে জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন নির্দেশনা দিয়েছেন, মাঠপর্যায়ে কারা এই গুজব ছড়িয়েছেন, তাদেরকে শনাক্ত করতে। সেই অনুযায়ী গুজব রটনাকারীদের খুঁজে বের করতে পুলিশ কাজ করছে।’
    চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নূরুদ্দীন মুহাম্মদ শিবলী নোমান বলেন, ‘ভূমিকম্প হওয়ার গুজবে যেসব এলাকায় মানুষ বাড়ি থেকে বেরিয়ে রাস্তায় নেমে আসেন, তাদেরকে বুঝিয়ে ফের বাড়িতেই ফেরত পাঠানো হয়। এর পরও ভবিষ্যতে যাতে কেউ গুজবে ভর করে এভাবে হুলুস্থুল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য উপজেলা প্রশাসন তৎপরতা চালাচ্ছে।’ #

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ