• শিরোনাম

    আলোচনায় বাবা-মেয়ের প্রার্থীতা

    চকরিয়া-পেকুয়া আসনে প্রচারণায় তুঙ্গে নৌকা-ধানের শীষ

    মুকুল কান্তি দাশ,চকরিয়া: | ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১:৩৮ পূর্বাহ্ণ

    চকরিয়া-পেকুয়া আসনে প্রচারণায় তুঙ্গে নৌকা-ধানের শীষ

    আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্টিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চকরিয়া-পেকুয়া (কক্সবাজার-১) আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার লক্ষ্যে রাজনৈতিক দলের ব্যানারে ও স্বতন্ত্রসহ আটজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। প্রতীক পাওয়ার পর নিজ দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে ভোটারদের মন জয় করতে ব্যাপক প্রচারণা নিয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন নৌকা প্রতীকের মহাজোট প্রার্থী আলহাজ্ব জাফর আলম ও ধানের শীষ প্রতীকের ঐক্যফ্রন্টের এডভোকেট হাসিনা আহমেদ। এই দুই অন্যতম প্রার্থীর মধ্যে গণসংযোগ, প্রচার ও কেন্দ্র কমিটি গঠন, পোস্টার লাগানোসহ নানা দিক দিয়ে ১৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যা পর্যন্ত এগিয়ে ছিলেন আওয়ামীলীগের জাফর আলম। অন্যদিকে দীর্ঘদিন মাঠে না থাকা হাসিনা আহমেদের অনুপস্থিতি পুষিয়ে নিতে পাড়ায় পাড়ায় প্রচার শুরু করেছেন।
    চকরিয়া ও পেকুয়া দুই উপজেলার একটি পৌরসভা ও ২৫টি ইউনিয়ন নিয়ে কক্সবাজার -১ সংসদীয় আসন। এই আসনে মোট ভোটার রয়েছেন ৩ লাখ ৯০ হাজার ৮২৯ জন। তৎমধ্যে চকরিয়ায় পুরুষ ১ লাখ ৪৮ হাজার ৯০১ ও নারী ভোটার ১ লাখ ৩৫ হাজার ৬৪৯ জন মিলিয়ে মোট ২লাখ ৮৪ হাজার ৫৫০ জন। পেকুয়ায় মোঠ ভোটার ১ লাখ ৬ হাজার ২৭৯ জন। তৎমধ্যে পুরুষ ৫৫ হাজার ৬২৬ ও নারী ৫০ হাজার ৬৫৩ জন। এই ভোটাররা চকরিয়ার ৯৯টি ও পেকুয়ার ৪০টি কেন্দ্রে নিজেদের ভোট প্রয়োগ করবেন। কক্সবাজার-১ চকরিয়া-পেকুয়া আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লড়ছেন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মহাজোট প্রার্থী জাফর আলম (নৌকা), সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট হাসিনা আহমেদ (ধানের শীষ), জাতীয় পাটির কেন্দ্রীয় কমিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান সাংসদ মো. ইলিয়াছ (লাঙ্গল), ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা হাজি আবু মো.বশিরুল আলম (হাতুড়ি), তানিয়া আফরিন (মোটর সাইকেল), স্বতন্ত্র বদিউল আলম (সিংহ), ইসলামী শাসনতন্ত্রের আলী আজগর (হাতপাখা) ও জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (বিএনএ) মো. ফয়সল (হারিকেন)।
    গতকাল শুক্রবার ১৪ ডিসেম্বর দুপুরে চকরিয়ার কাকারাসহ নিকটবর্তী কয়েকটি ইউনিয়ন ও পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, ৮ জন প্রার্থীর মধ্যে সর্বত্র সাটানো ও টাঙ্গানো হয়েছে নৌকার প্রার্থী জাফর আলম ও ধানের শীষের প্রার্থী হাসিনা আহমেদের পোস্টার। ওই সময় পর্যন্ত অন্য ৬ প্রার্থীর কোন পোস্টার চোখে পড়েনি।
    পর্যটন জেলা কক্সবাজারের ভিআইপি আসন হিসেবে পরিচিত দুই উপজেলা চকরিয়া-পেকুয়া নিয়ে কক্সবাজার-১ তথা ২৯৪ নং আসনটিতে ১৯৭৩ সালের পর অনুষ্টিত ৯টি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের কোন প্রার্থী জেতেনি। তাই এবার এ আসনটিতে নতুন মুখ জাফর আলম আওয়ামীলীগে তথা মহাজোটের প্রার্থী হয়ে জেতার চ্যালেঞ্জ নিয়ে মাঠে নেমেছেন। সে লক্ষ্য বাস্তবায়নে তিনি তৃণমূল নেতাকর্মীদের পাশে পেয়েছেন। পাশাপাশি জাফর আলমকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে ঘোষনার পর দলটির নেতাকর্মী সমর্থকরা দৃঢ প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন দীর্ঘ ৪৩ বছর পর এই আসনটি জিতে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিয়ে প্রমান করবে সঠিক নেতাকে মনোনয়ন দিলে জেতা অসম্ভব নয়।
    জানতে চাইলে জাফর আলম বলেন, জাতীরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার পর এই আসনটিতে নয়বার নির্বাচন হলেও নৌকার কোন প্রার্থী জিতেনি। সেই বেদনা দূর করতে টানা ১০ বছর পাড়া-গাঁয়ে কর্মীদের সংগঠিত করেছি। পরিণত করেছি নৌকার ঘাটি হিসেবে। এই সময়ে আওয়ামীলীগের নেতৃত্বাধীন সরকার ব্যাপক উন্নয়নও করেছে এখানে। তাই শুধু দলীয় নেতাকর্মী নয় সাধারণ মানুষও উন্নয়নের যাত্রা অব্যাহত রাখতে এবার নৌকায় ভোট দেবেন।
    পক্ষান্তরে ধানের শীষের প্রার্থী হাসিনা আহমেদ গণসংযোগে গিয়ে ভোটারদের বলছেন, দেশে এখন ন্যায়বিচার নেই। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া কারাগারে। তাকেসহ সকল কারবন্দী নেতাকর্মীদের মুক্তি ও আমার স্বামী সাবেক প্রতিমন্ত্রী সালাহউদ্দিন আহমদকে দেশে ফিরিয়ে আনতে এবং ন্যায়বিচার ও উন্নয়নের সমতা প্রতিষ্টা করতে ধানের শীষে ভোট দেয়ার বিকল্প নেই।
    আওয়ামীলীগ ও বিএনপি ছাড়া ওয়ার্কার্স পার্টির হাজী বশিরুল আলমের হাতুড়ি মার্কায় ভোট চেয়ে মাইকিং করতে দেখা গেছে। তিনি বলেন, পোস্টারও টাঙ্গানো হবে দুইএকদিনের মধ্যে। অন্য প্রার্থীদের প্রচারণা বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত নজরে আসেনি।
    চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার নূরুদ্দীন মুহাম্মদ শিবলী নোমান বলেন, ভোট আদায়ে প্রশাসন নিরপক্ষে ভূমিকায় রয়েছে। এ ভূমিকা শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ট, নিরপেক্ষ এবং উক্ত নিরেপক্ষতা যাতে জনগণের নিকট দৃশ্যমান হয় তা নিশ্চিত করার লক্ষে চকরিয়ায় ১৬ সদস্য বিশিষ্ট ভিজিলেন্স ও অবজারভেশন টীম গঠন করা হয়েছে।##
    আলোচনায় বাবা মেয়েঃ-
    আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনে লড়তে মহাজোট তথা আওয়ামীলীগের প্রার্থী হয়েছেন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাফর আলম। তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে আরাম হারাম করে প্রচারণা শুরু করেছেন জেতার লক্ষে। একই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন জাফর আলমের মেয়ে তানিয়া আফরিন। তার প্রতীক মোটর সাইকেল। বাবা ও মেয়ে প্রার্থী হওয়ায় অনেকেই নানা ধরনের আলোচনা করছেন। আলোচনায় মুখ্যতা পাচ্ছে হয়তো মেয়ে তানিয়া আগামীতে রাজনীতিতে নামার প্রাক-প্রস্তুতি নিতেই প্রার্থী হয়েছেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ