• শিরোনাম

    পৌরসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহন বাকী ১দিন...

    জাতীয় নির্বাচনের মতোই প্রচারণা প্রার্থীদের

    সাইফুল ইসলাম: | ২৩ জুলাই ২০১৮ | ৬:২২ পূর্বাহ্ণ

    জাতীয় নির্বাচনের মতোই প্রচারণা প্রার্থীদের

    পর্যটন নগরী কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহন অনুষ্টিত হতে বাকী মাত্র একদিন। প্রার্থীদের প্রচারণা অনেকটা জাতীয় নির্বাচনে মতোই মনে হচ্ছে। যেহেতু প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীক নিয়ে পৌরসভা নির্বাচন, সেহেতু প্রচারণায় অনেকটা জাতীয় নির্বাচনের মতোই হবে বলে দাবি সচেতন মহলের। বিশেষ করে পৌরসভার যেদিকে দেখি, সেদিকে বিভিন্ন আঙ্গিকে মাইকিং, ডিজিটাল ব্যানার, পোষ্টার, ফেস্টুনে ভরপুর পৌর এলাকায়। প্রচার-প্রচারণায় নতুন নতুন কৌশলে ব্যস্ত প্রার্থীরাও। প্রত্যেক দলের নেতা-কর্মী সংগঠিত করে প্রচার-প্রচারণার সুবিধায় বিকেল থেকে রাত অবধি নির্ঘুম রাত কাটছে প্রার্থী ও কর্মীরা। পাশাপাশি প্রার্থীদের প্রচারণা শেষ দিন আজ। সরেজমিনে দেখা গেছে-প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন প্রার্থীরা, সঙ্গে ছড়াচ্ছেন রকমারি প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি।

    কক্সবাজার পৌর পিতার আসন ভাগিয়ে নিতে ব্যস্ত সরকার দলীয় তথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মনোনীত মেয়রপ্রার্থী নৌকা প্রতীক নিয়ে মুজিবুর চেয়ারম্যান, বিএনপির মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ধানের শীর্ষ প্রতীক নিয়ে রফিকুল ইসলাম, জামায়াত সমর্থিত নাগরিক কমিটির মনোনীত নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে সরওয়ার কামাল, জাতীয় পাটির মনোনীত মেয়রপ্রার্থী লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে রুহুল আমিন সিকদার ও ইসলামী শামনতন্ত্র আন্দোলনের মনোনীত মেয়রপ্রার্থী হাতপাখা নিয়ে মো. জাহেদুল রহমান লড়ছেন। প্রচারণার জন্য ঘুম হারাম হচ্ছে আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান দলীয় নেতাকর্মীদের। তিনি বলেন, চোখে ঘুম নেই, ঘুম হারাম হয়ে গেছে। রাতদিন ২৪ ঘন্টার মধ্যে তিন ঘণ্টাও ঘুমাতে পারেনি। শুধু আওয়ামীলীগ নয়, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ ও সহযোগী অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীদেরও একই অবস্থা। আমার কর্মীরা ঘুমাতে পারছেন না।

    শুধু প্রচারণা আর প্রচারণা। তিনি আরও বলেন, পৌরসভায় সব জায়গায় আমার দলের সবাই ঐক্যমতে হয়ে কাজ করছেন। আমার বিশ্বাস আমি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হব। জামায়াত সমর্থিত নাগরিক কমিটির মেয়রপ্রার্থী সরওয়ার কামাল বলেন-জনগণের জন্য নিজের অর্ধেক জীবন চলে গেছে। ২৯ বছর কাউন্সিলর-মেয়র ছিলাম। পৌরবাসীর জন্য অনেক কিছু করেছি। বরাবরের মতোই আমাকে ভালোবেসে ভোট দেয় ভোটাররা। এবারেও বিপুল ভোটে আমি বিজয়ী হবো ইনশাল্লাহ। তফসীল ঘোষনার পর থেকে ঘুম আমারও হারাম হয়ে গেছে প্রচার-প্রচারণায়। অপরদিকে বসে নেই ধানের শীষের মেয়রপ্রার্থী রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন- আচরনবিধি অনুযায়ী নেতাকর্মিদের নিয়ে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছি। দলের শীর্ষ নেতারাও বসে নেই প্রচারণায়। সুষ্ঠু ভোট হলে আমি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবো ইনশাল্লাহ।

    এদিকে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে রুহুল আমিন সিকদার ও ইসলামী শানসনতন্ত্র আন্দোলনের প্রার্থী মো. জাহেদুর রহমানও প্রচারণার রয়েছেন। ভোটাররা জানিয়েছেন- ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হতে মাত্র একদিন বাকী। কে হবে, পৌর পিতা, তা নানা আশংকায় ভোটরসহ প্রার্থীরা। পৌর এলাকার সব মানুষ কাজ বাদ দিয়ে ভোটগ্রহনের দিন গুনছেন। নির্বাচনকে ঘিরে পৌর এলাকায় এখন মানুষের মাঝে উৎসবের আমেজ। প্রসঙ্গত: কক্সবাজার পৌরসভার ১২ টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৮৩ হাজার ৭২৮ জন। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ৪৪ হাজার ৩৭৩ জন ও মহিলা ভোটার রয়েছেন ৩৯ হাজার ৩৫৫ জন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক জানান, সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। আচরণবিধির ব্যাপারে কোনো প্রার্থীকে ছাড় দেওয়া হবে না।

    দেশবিদেশ /২৩ জুলাই ২০১৮/নেছার

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ