• শিরোনাম

    ঝুঁপড়ি দোকানে উন্মুক্ত মঞ্চ আড়াল: শ্রীহীন সৈকত

    দীপক শর্মা দীপু | ০৫ নভেম্বর ২০১৯ | ১১:৩৭ অপরাহ্ণ

    ঝুঁপড়ি দোকানে উন্মুক্ত মঞ্চ আড়াল:  শ্রীহীন সৈকত

    অসংখ্য ঝুঁপড়ি দোকানে শ্রীহীন হয়ে উঠেছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের প্রধান পর্যটন জোন লাবণী পয়েন্ট। শুধু তাই নয় ঝুঁপড়ি দোকানের কারনে আড়াল হয়ে গেছে সৈকতের উন্মুক্ত মঞ্চ।
    কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের বিভিন্ন পয়েন্টে গড়ে উঠেছে অসংখ্য ঝুঁপড়ি দোকান। কিছু দিন পর নতুন নতুন ঝুঁপড়ি দোকান তৈরি হচ্ছে বালিয়াড়ির উপর। এতে সৈকতটি ঝুঁপড়ি দোকানের বাজারে পরিনত হচ্ছে। বিশেষ করে সুগন্ধা সী ইন পয়েন্ট ও লাবনী পয়েন্ট ঝুঁপড়ি দোকান গড়ে উঠেছে। আর এসব ঝুঁপড়ি দোকান তৈরির টোকেন দেন জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেল।

    সরেজমিনে দেখা যায়, সমুদ্র সৈকতের প্রধান পর্যটন স্পর্ট লাবনী পয়েন্টে প্রায় অর্ধশত ঝুঁপড়ি দোকান রয়েছে। এসব ঝুঁপড়ির সংখ্যা বাড়তেই আছে। ছাতা মার্কেটের পাশে এসব ঝুঁপড়ি বসানো হলেও এখন তা উন্মুক্ত মঞ্চে চলে এসেছে। মঞ্চের একপাশে লাগিয়ে ঝুঁপড়ি দোকান করার টিকেট দেয়া হয়েছে। এতে মঞ্চের এক পাশের সিঁড়ি ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। শুধু তাই নয় দোকান বেড়ে যাওয়ায় এখন উন্মুক্ত মঞ্চ দেখা যাচ্ছেনা। উক্ত মঞ্চে অনুষ্ঠান হলে একপাশের দর্শক অনুষ্ঠান দেখা থেকে বঞ্চিত হবে। ঝুঁপড়ি দোকানের কারনে উন্মুক্ত মঞ্চ আড়াল হয়ে গেছে। আর মঞ্চের সাথে লাগোয়া ঝুঁপড়ির কারনে উন্মুক্ত মঞ্চের আগের সৌন্দর্য বিনষ্ট হয়ে গেছে। এছাড়া মঞ্চের সামনে বালির স্তুপ বড় হয়ে যাওয়া এবং ইটের ওয়াকওয়ের দেয়াল থাকায় সৈকত ভেঙ্গে যাওয়ার কারনে উন্মুক্ত মঞ্চ অব্যবহার যোগ্য হয়ে পড়ছে। আগে উক্ত মঞ্চে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, টিভি মিডিয়া, বড় বড় গ্রুপ জাঁকজমক অনুষ্ঠান করতো। এখন মঞ্চের এই অবস্থার কারনে আর বৃহৎ কোন অনুষ্ঠান আয়োজন করেনা।
    এ ব্যাপারে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশরাফুল আফসার জানান, উন্মুক্ত মঞ্চের সাথে লাগোয়া কোন দোকান থাকার কথা না। এছাড়া মঞ্চ আড়াল করে দোকান করার অনুমতি কাউকে দেয়া হয়নি। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    দেশবিদেশ/নেছার

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ