শুক্রবার ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

টেকনাফে ভূল প্রশ্ন পত্রে অনুষ্ঠিত হলো জেএসসি পরীক্ষা

টেকনাফ অফিস   |   বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮

টেকনাফে ভূল প্রশ্ন পত্রে অনুষ্ঠিত হলো জেএসসি পরীক্ষা

টেকনাফে ভূল প্রশ্ন পত্রে অনুষ্টিত হলো জেএসসি পরীক্ষা। বুধবার ১৪ই নভেম্বর টেকনাফ পাইলট হাই স্কুল কেন্দ্রে ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা পরীক্ষায় এ ঘটনা ঘটে। এতে টেকনাফ এজাহার বালিকা ও শাহপরীরদ্বীপ হাজি বশির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩০ শিক্ষার্থীর জেএসসি পরীক্ষায় পাশ করা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।
বুধবার পরীক্ষা শেষে এজাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীরা নিজ বিদ্যালয়ে এসে শিক্ষকদের কাছে বিষয়টি তুলে ধরেন। এসময় বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও একাডেমিক সুপারভাইজারকে বিষয়টি জানানো হয়।
বুধবার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে যে প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা গ্রহন করা হয়েছে সেই প্রশ্ন পত্রে দেখা যায়, জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা-২০১৮, ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা (সৃজনশীল ও বহুনির্বাচনী অভিক্ষা) সেট-০১, নীচে লিখা রয়েছে ২০১৬ সালের সিলেবাস অনুযায়ী। পূর্ণমান ৬০+৪০। বিষয় কোড-১১১। অপরদিকে যেটি ২০১৮ সালের নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের সঠিক প্রশ্ন পত্র তাতে দেখা যায় সেটিও হুবহু একই রকম ছাপানো। সেই প্রশ্নটিতে নীচে ২০১৬ সালের সিলেবাস অনুযায়ী সেই লিখাটি নেই। তাছাড়া নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের প্রশ্নের মান রচনামূলক ৭০ ও নৈবত্তিক ৩০।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ প্রশ্নপত্রটি কেন্দ্রে প্রেরন করা হয়েছে ২০১৬ সালের অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের জন্য। কিন্তু কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ ভুলে সেই প্রশ্ন পত্রটি দিয়েই নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা গ্রহন করেন। এতে উক্ত ৩০ পরীক্ষার্থী ঠিকমতো উত্তর লিখতে পারেনি। ফলে তাদের উক্ত পরীক্ষায় উর্ত্তীণ না হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।
ভুল প্রশ্নে পরীক্ষা দেওয়া পরীক্ষার্থী আসমাউল হুসনা, তানজিনা মনি, রাফিফা আক্তার, ফরিদা ইয়াছমিনের সাথে এজাহার বালিকা বিদ্যালয়ে কথা হয় এ প্রতিবেদকের সাথে। তারা জানায়, এজাহার বালিকার ১৬ জন ও শাহপরীরদ্বীপ হাজি বশির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৪ জন সহ মোট ৩০ জন পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের ৫ নাম্বার কক্ষে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে আসছিলো। বুধবার যথারীতি ইসলাম ও নৈতিক পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে তারা। পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষন পর একপর্যায়ে প্রশ্ন কমন না পড়ায় তাদের সন্দেহ হয়। বিষয়টি উক্ত কক্ষের দায়িত্বরত শিক্ষককে জানালে তিনি তাৎক্ষনিক কোন ব্যবস্থা নেন নি। পরে পরীক্ষা শেষে উক্ত কেন্দ্রের শিক্ষকরা বিষয়টি স্কুলে অথবা বাড়িতে গিয়ে না বলার জন্য পরীক্ষার্থীদের শিখিয়ে দেন। ভুল প্রশ্ন পত্রের কারণে তাদের পরীক্ষা ভালো হয়নি বলে জানায় তারা।
এজাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শিউলী রাণী চৌধুরী জানান বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। ওই কেন্দ্রে এজাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯৫ জন পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে বলে জানান তিনি।
এব্যাপারে কেন্দ্র সচিব টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর হোসেনের মুঠোফোনে বারবার কল করা হলেও মোবাইল সংযোগ না দেওয়ায় বক্তব্য জানা যায়নি।
অপরদিক উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার নুরুল আবসার দাবী করেন ভুল প্রশ্নে পরীক্ষা গ্রহন করলেও কোন অসুবিধা হবে না। সেই ৩০ পরীক্ষার্থীর খাতা আলাদাভাবে প্যাকেট করা হয়েছে। তাদের আলাদা ভাবে মূল্যায়ন করার জন্য বোর্ড কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে।

Comments

comments

Posted ১:০১ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com