• শিরোনাম

    ইউএনওর ঘটনাস্থল পরিদর্শন

    টেকনাফে স্লুইচ গেইট বন্ধ করায় পানিতে শত পরিবার

    জসিম উদ্দিন টিপু,টেকনাফ। | ২৮ জুলাই ২০১৮ | ১:৫১ পূর্বাহ্ণ

    টেকনাফে স্লুইচ গেইট বন্ধ করায় পানিতে শত পরিবার

    টেকনাফে মৎস্যঘের রক্ষার নামে পাউবোর স্লুইচ গেইট বন্ধ করে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করে শত পরিবারকে কয়েকদিন ধরে পানিতে ডুবিয়েছে প্রভাবশালী চক্র। এই ঘটনার খবর পেয়ে ইউএনও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
    জানা যায়, ২৭ জুলাই বিকাল ৪টারদিকে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসান উপজেলার হ্নীলা দক্ষিণ লেদার ছুরি খালের স্লুইচ বন্ধ করে জলাবদ্ধতা সৃষ্টির মাধ্যমে জনজীবন ব্যাহত করার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি কথিত মৎস্য ঘেঁর মালিক কবিরকে ডেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রবল বৃষ্টিতে জমে থাকা পানি নেমে যাওয়ার পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য কঠোর নির্দেশনা প্রদান করেন। অন্যথায় কঠোর আইনী পদক্ষেপ নেওয়ার আহবান জানান।
    উল্লেখ্য, দক্ষিণ লেদার মৃত গোলাম শরীফের পুত্র কবির আহমদ (৫৬) মৎস্য ঘেঁর রক্ষার নামে পাশর্^বর্তী পূর্বে বেড়িবাঁধের স্লুইচ গেইটের দরজা বন্ধ থাকায় গত ৫/৬দিনের টানা ভারীবর্ষণে প্লাবিত স্থানীয় মৃত নাজির হোছনের পুত্র কালা মিয়া, কালা মিয়ার পুত্র অলি আহমদ, নজির আহমদ, আলী আহমদ, মৃত মোঃ সেলিমের পুত্র আজিজুর রহমানের বসত-বাড়ি পানিতে ডুবে যায়। এতে স্থানীয় ৫ পরিবারের খোরাকের ১০ বস্তা ধান, ২৩ বস্তা চাল, লেদা জুনিয়র হাইস্কুলের ৮ম শ্রেণী পড়–য়া ছাত্রের বই, খাতা এবং ৫/৬টি মোরগ-মুরগী মরে ভেসে যায়। ২টি গৃহ পালিত গরু নিখোঁজ হয়ে যায়। দক্ষিণ মৃত আবুল হোছনের পুত্র ছৈয়দ আকবরের ১১শ মণ, আলী আহমদের পুত্র করম আলীর ৪শ মণ লবণ এই জলাবদ্ধ পানির নীচে রয়েছে বলে জানান।
    এছাড়া মোচনী রাস্তার পূর্ব পাশের্^ নতুন স্থাপিত রোহিঙ্গা বস্তির এইচ-৮ ব্লকের ৭৫টি ঘর পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। এই ব্যাপারে শেড মাঝি ইয়াছিন বলেন, রাতের প্রবল বৃষ্টিতে প্রবল বৃষ্টিতে হঠাৎ আমাদের রোম ডুবে যায়। সকালে গিয়ে শুনি গোদার মালিক সুলিশের দরজা বন্ধ করে দিয়েছে। এখন রান্না-বান্না করে খেতে এবং থাকতে বিষম কষ্ট হচ্ছে। আমরা রোহিঙ্গা বলে কাউকে বিচার দিতে পারিনি।
    এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসান জানান, প্রভাবশালীরা স্লুইচ গেইট বন্ধ করে জন-জীবন ব্যাহত করার বিষয়টি অবগত হয়ে সরেজমিনে এসেছি। শীঘ্রই স্লুইচ গেইটের দরজা খুলে দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
    কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সবিবুর রহমান জানান, স্লুইচ গেইট দেখাশুনার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অংশ গ্রহণে হ্নীলাসহ প্রত্যেক ইউনিয়ন ও উপজেলা ভিত্তিক কমিটি করা আছে। ওই ইউনিয়নের কমিটি অনেক আগেই অকার্য্যকর হয়ে পড়েছে। কমিটি পূর্ণগঠনসহ পাউবোর পক্ষ থেকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

    দেশবিদেশ /২৮ জুলাই ২০১৮/নেছার

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ