বৃহস্পতিবার ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

তীব্র গরম

ডায়রিয়া রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৯

ডায়রিয়া রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি

ফাইল ছবি

বৈশাখ মাসে গরমের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথে জেলাব্যাপী বাড়ছে ডায়রিয়ার মতো সংক্রামক ব্যাধিতে আক্রান্তের সংখ্যা। শুধু কক্সবাজার সদর হাসপাতালেই প্রতিদিন ৫০ থেকে ৬০ জন ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগি ভর্তি হচ্ছেন। শিশু থেকে শুরু করে মহিলা এবং বয়স্ক পুরুষরাও এই তালিকায় রয়েছেন।
সদর হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, জেলার মধ্যে চলতি বছর সদর উপজেলার খুরুশকুল এবং রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের লোকজন ডায়রিয়া আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। সংক্রামক ব্যাধি হওয়ায় একই পরিবারের একাধিক সদস্যও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন। গত এক সপ্তাহের মধ্যে সদর হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে একটি পরিবারের একাধিক সদস্য ভর্তি হন চিকিৎসার জন্য। উল্লিখিত এলাকাগুলোর পাশাপাশি চলতি বছর সাগরে মাছ ধরতে যাওয়া মাঝি-মাল্লাদের মধ্যে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেশি দেখা যাচ্ছে। ইতোমধ্যে কয়েকজন মাঝি-মাল্লা সংকটাপন্ন অবস্থায় ভর্তি হওয়ার পর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।
হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা গেছে, ২০ শয্যার ওয়ার্ডটি রোগিতে পরিপূর্ণ। ২০ জনের স্থলে চিকিৎসা নিচ্ছেন প্রায় ৪০ জন রোগি। ওয়ার্ডে জায়গা না হওয়ায় কয়েকজনকে বাইরে অতিরিক্ত বিছানা দিয়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। হাসপাতালের সবচেয়ে নোংরা এবং অপরিচ্ছন্ন এই ওয়ার্ডে জীবন বাঁচানোর তাগিদে বাধ্য হয়েই চিকিৎসা নিচ্ছেন তাঁরা। অনেকেই ১ থেকে ২দিন পর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যান। আবার অনেককেই ৪ থেকে ৫ দিন ওয়ার্ডে কাটিয়ে দিতে হয়।
১৫ এপ্রিল রাত ১২ টায় হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে ভর্তি হন খুরুশ্কুল ইউনিয়নের পূর্ব হামজার ডেইলের কালামিয়া। চিকিৎসাধীন কালামিয়ার এক স্বজন এই প্রতিবেদককে বলেন, তীব্র গরমের কারণে হঠাৎ কালামিয়ার ডায়রিয়া এবং বমি দেখা দেয়। ওই রাতেই তারা তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। পরদিন (১৬ এপ্রিল) সকাল ১১ টায় ডাক্তার এসে দেখে গেছেন। হাসপাতালের পক্ষ থেকে ইনজেকশন ও স্যালাইন দেয়া হয়েছে। কিন্তু সুস্থ হওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।
কক্সবাজার সদর হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে কর্তব্যরত এক নার্স জানিয়েছেন, সাধারণত এই সময়ে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগির সংখ্যা বেশি থাকে। জুন মাস পর্যন্ত এই অবস্থা বজায় থাকবে বলেও জানান তিনি।

Comments

comments

Posted ১:০৬ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৯

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com