• শিরোনাম

    নতুন মোড়কে ‘দেবদাস’

    দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক | ১১ জুন ২০১৮ | ১১:২৯ অপরাহ্ণ

    নতুন মোড়কে ‘দেবদাস’

    নতুন মোড়কে আবার নির্মাণ হয়েছে ‘দেবদাস’। ঈদের টেলিফিল্ম হিসেবে এটি নির্মাণ করছেন জাকারিয়া সৌখিন। আর প্রধান তিন চরিত্রে এবার দেখা যাবে অপূর্ব, মেহজাবিন এবং জাকিয়া বারী মমকে। তবে পুরো গল্পটি এবার নির্মিত হয়েছে বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে। আর তাই মূল গল্প ঠিক রেখে সবকিছুতেই পরিবর্তন আসতে যাচ্ছে।
    নতুন স্বাদের এই ‘দেবদাস’র নাম রাখা হয়েছে ‘জলসাঘর’। চরিত্রগুলোর নামও পাল্টে গেছে। দেবদাসের নাম রাখা হয়েছে পবন, পার্বতীর নাম অবনী আর চন্দ্রমুখীর নাম চারুলতা।
    এ বিষয়ে নির্মাতা বলেন, ‘দেখুন দেবদাসের মতো প্রেমের উপন্যাস কখনো পুরানো হয় না। গল্পের মূল বিষয়টি সবসময়ই নতুন। তাই বর্তমান সময়ে গল্পটিকে ভেবেছি। আর বর্তমান সময়কে প্রাধান্য দিতে গিয়েই অনেককিছু পাল্টে গেছে। কিন্তু গল্পের মূল আবেগ ঠিক আছে।
    ‘জলসাঘর’-এ দুটো বিষয় নিয়ে কাজ করা হয়েছে। দেবদাস বা পবনের সম্পর্কের ধরন এবং তার জীবন। দেবদাসের সাথে পার্বতী এবং চন্দ্রমুখীর সম্পর্কটা আসলে ‘ব্যাথা’র। সে কারো সাথেই ‘সুখে’র সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারেনি, গড়েছে ব্যাথার সম্পর্ক। আর এ কারনেই তার জীবনাটাও জলসাঘরের মতোই। ক্ষণিকের আনন্দ কিংবা বেদনার ঘোরÑ তারপর সব শূণ্য।
    ‘জলসাঘর’-এ অভিনয় প্রসঙ্গে অপূর্ব বলেন, ‘অবশ্যই খুব কঠিন একটি চরিত্র। অনেক বড় অভিনেতারা এ চরিত্রে অভিনয় করেছেন। আমি সেই একই চরিত্রে অভিনয় করতে যাচ্ছি, তাও বর্তমান সময়ে। অবশ্যই কঠিন। আমি চেষ্টা করবো।’
    মেহজাবিন অভিনয় করছেন পার্বতী বা অবনী চরিত্রে। তিনি বলেন, ‘নির্মাতা যখন আমাকে প্রথম শেয়ার করেছিল বিষয়টি, বেশ ইন্টারেস্টিং লেগেছিলো। বর্তমান সময়ে হলেও মূল গল্প তো একই। সবাই সেভাবেই বিচার করবে, দেখবে। তাই চ্যালেঞ্জিং প্রজেক্ট।
    জাকিয়া বারী মম বলেন, ‘ভালো হবে আশা করি। আমার ভালো লেগেছে, চন্দ্রমুখীকে অনেক মানবিকভাবে নির্মাতা এবার উপস্থাপন করছেন। আসলে চন্দ্রমুখীর অনেক উদার একটি চরিত্র। মূল গল্পে কিংবা সিনেমাগুলোতে এ বিষয়টি নাচ-গানের ভিড়ে হারিয়ে গেছে। কিন্তু আমাদের প্রজেক্টে ঠিক উল্টোটি ঘটবে।
    প্রধান তিন চরিত্রে অপূর্ব, মেহজাবিন এবং মমকে নেয়ার বিষয়ে নির্মাতা জাকারিয়া সৌখিন জানান, টেলিভিশন নাটকে এ মূহুর্তে এ তিনজন বেশ জনপ্রিয়। দর্শকও তাদের ভালো অভিনয়শিল্পী হিসেবেই ভাবে। আর চরিত্রের যে বুনন, সেখানে এরা তিনজনই বেশি মানানসই।
    ‘জলসাঘর’ ঈদের দ্বিতীয় দিন দুপুর ২টা ১০ মিনিটে বাংলাভিশনের পর্দায় দেখা যাবে।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    চোখের ইশারায় চলে ক্যাফে!

    ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮

    কালো রং ও মেয়ের গল্প

    ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ