• শিরোনাম

    নির্জন কারাবাসে মরিয়ম, সচল টুইটার অ্যাকাউন্ট

    | ২২ জুলাই ২০১৮ | ২:২৩ অপরাহ্ণ

    নির্জন কারাবাসে মরিয়ম, সচল টুইটার অ্যাকাউন্ট

    দুর্নীতির মামলায় রায়ে কারাবন্দি পাকিস্তানের ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ কারাগারে নারী বন্দিদের পড়াতে চেয়েছিলেন। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষ তার এই অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেছে বলে জানিয়েছেন শরিফ পরিবারের এক আইনজীবী। এদিকে, পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) সামাজিক মাধ্যম সেল মরিয়মের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে পোস্ট দেওয়া শুরু করেছে। পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম ডন এখবর জানিয়েছে।

    বেশ কয়েকবার তারিখ পরিবর্তনের পর অবশেষে শনিবার আদিয়ালা কারাগার কর্তৃপক্ষ  নওয়াজ শরিফ, মরিয়ম ও তার স্বামী অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ সফদারের সঙ্গে আইনজীবীদের সাক্ষাতের অনুমতি দিয়েছে। নওয়াজে আইনজীবীদের দলে ছিলেন অ্যাডভোকেট আমজাদ পারভেজ, ব্যারিস্টার সাদ হাশমি, জাফির খান ও মোহাম্মদ আওরঙ্গজেব। পাকিস্তান বার কাউন্সিলের এক সদস্যও নওয়াজের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

    অ্যাডভোকেট পারভেজ জানান, মরিয়ম চেয়েছিলেন কারাগারের নারীদের পড়াশোনা শেখাতে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ তার এই অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেছে। কারণ তাকে নির্জন কারাবাসে রাখা হয়েছে, এমন বন্দিরা অন্য বন্দিদের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ নেই। বারবার অনুরোধের পরও জেল কর্তৃপক্ষ মরিয়মকে কলম ও কাগজ দেয়নি।

    এই আইনজীবী দাবি করেন, জেল কর্তৃপক্ষ শিহালা পুলিশ কলেজের রেস্ট হাউসে স্থানান্তর করতে চাইলেও মরিয়ম যেতে রাজি হননি। ওই রেস্ট হাউসকে সাব-জেল হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

    আইনজীবী দলের এক সদস্য দাবি করেন, নওয়াজ ও মরিয়ম প্রতিদিন চারটি দৈনিক পত্রিকা পাওয়ার কথা। কিন্তু নওয়াজকে ডন এবং মরিয়মকে জং পত্রিকা দেওয়া হচ্ছে। বাবা ও মেয়েকে রাখা হয়েছে ১২ বর্গফুটে ব্যারাকে। এর আশেপাশের ব্যারাক খালি ও দুর্গন্ধযুক্ত। তারা একে অপরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারছেন না। এমনকি অন্য কোনও বন্দিদের সঙ্গেও তাদের সাক্ষাতের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না।

    এই সদস্য আরও দাবি করেন, সফদার কারাগার কর্তৃপক্ষকে আগেই অবহিত করেছিলেন চিকিৎসকরা তাকে নির্দিষ্ট খাবার খেতে বলেছেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ প্রথমে তাকে অস্বাস্থ্যকর খাবার সরবরাহ করে। এতে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। যদিও শুক্রবার থেকে স্বাস্থ্যকর খাবার দিতে শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

    এদিকে, কারাবাস শুরু হওয়ার পর শনিবার মরিয়মের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি বার্তা প্রকাশ করা হয়েছে। এতে করে কারাগারে থাকা মরিয়ম কিভাবে টুইট করলেন তা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব তৈরি হয়েছে। ডন জানিয়েছে, টুইটটি পোস্ট করা হয়েছে মরিয়মে টুইটার পরিচালনকারীর পক্ষ থেকে। এতে বিপ্লবী উর্দু কবি ফয়েজ আহমদ ফয়েজের একটি কবিতার কয়েকটি লাইন তুলে ধরা হয়েছে।

    টুইটটি করা হয়েছে #ভোটকোইজ্জতদো হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে। নওয়াজ শরিফ নির্বাচনি প্রচারণার শুরুতে এই স্লোগান চালু করেছিলেন। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই টুইটটি পাঁচ হাজারের বেশি রিটুইট হয়।

    এই অ্যাকাউন্ট থেকে সর্বশেষ পোস্ট করা হয়েছিল ১৩ জুলাই। ওই দিনই মরিয়ম ও নওয়াজ লন্ডন থেকে পাকিস্তানে ফিরেছিলেন।

    পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) সামাজিক মাধ্যম টিমের এক সদস্য জানান, মরিয়মের টুইটার অ্যাকাউন্টটি পরিচালনা করছে তাদের সেল। মরিয়ম নিজে টুইট করছেন না। তবে এই বিষয়ে দলের নেতৃত্ব থেকে কোনও নির্দেশনা আসেনি। তিনি বলেন, টুইটারে মরিয়মের অনেক ফলোয়ার রয়েছে। আমরা নিজ থেকেই থেকে তার অ্যাকাউন্ট সক্রিয় রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং দলের পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছি।

    উল্লেখ্য, লন্ডনে কেনা বিলাসবহুল চারটি ফ্ল্যাটের মূল্য পরিশোধে দেওয়া অর্থের উৎস দেখাতে ব্যর্থ হওয়ার দায়ে ৬ জুলাই নওয়াজ শরিফ আর তার মেয়ে মরিয়মকে কারাদণ্ড দেয় আদালত। রায় ঘোষণার সময় লন্ডনে অবস্থানরত পিতা ও কন্যা ১৩ জুলাই দেশে ফিরেই গ্রেফতার হন তারা।

    দেশবিদেশ/ ২২জুলাই ২০১৮/নেছার

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ