• শিরোনাম

    কক্সবাজার জেলা রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মতবিনিময় সভা :(রিটার্নিং অফিসার বললেন-‘আপনারা নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি মেনে চলুন। দেখবেন কোন সমস্যাই হচ্ছে না। আচরণবিধি করা হয়েছে পরিবেশ শান্ত রাখার জন্য।’)

    নির্বাচনী প্রচার নিয়ে প্রার্থীদের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ

    দেশবিদেশ রিপোর্ট | ২১ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১:৪০ পূর্বাহ্ণ

    নির্বাচনী প্রচার নিয়ে প্রার্থীদের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ

    আগামী ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন নিয়ে জেলা পর্যায়ে প্রথম অনুষ্টিত মতবিনিময় সভায় প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীরা একে অপরকে দুষলেন। কেউ বললেন-আমি এবং আমার কর্মীরা নির্বাচনী প্রচারণায় নামতে পারছি না। আমাদের দেখলেই ধাওয়া দেয়। একজন প্রার্থীর পক্ষে বলা হয়েছে-তিনি প্রতিপক্ষের আক্রমণের ভয়ে প্রচারণায় বের হতে পারছেন না। এমনকি আক্রমণের ভয়ে জেলা শহরে এই মতবিনিময় সভায়ও পর্যন্ত যোগ দিতে পারেননি।

    তবে তারা সবাই বললেন-আমরা একটি নিরাপদ এবং নির্বাচনের সুষ্টু পরিবেশ চাই। যেখানে কোন হানাহানি হবে না। কারও জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে না হানাহানির পরিবেশ। প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীদের এসব অভিযোগ আর পাল্টা অভিযোগের জবাবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন বলেছেন-‘আপনারা নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি মেনে চলুন। দেখবেন কোন সমস্যাই হচ্ছে না। আচরণবিধি করা হয়েছে পরিবেশ শান্ত রাখার জন্য।’

    গতকাল বৃহষ্পতিবার বিকালে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এমপি প্রার্থী, প্রার্থীদের প্রতিনিধি ও রাজনৈতিক দলগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের সাথে অনুষ্টিত মতবিনিময় সভায় এরকম অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন।

    মতবিনিময় সভায় কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনের বিএনপি এমপি পদপ্রার্থী শাহাজাহন চৌধুরী বলেন-‘টেকনাফের ওসি’র নেতৃত্বে পুলিশ আমার দলীয় কর্মীদের নির্যাতন করা হচ্ছে। সেখানে আমার কোন কর্মীকে ধানের শীষ প্রতীকের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে দেয়া হচ্ছে না।’ সাবেক দলীয় এমপি শাহাজাহান চৌধুরী বলেন-আমি এর আগেও অনেকগুলো নির্বাচনের প্রার্থী ছিলাম। কিন্তু এরকম দশায় আর কোন সময় পড়িনি। তিনি বলেন, নির্বাচনী কর্মকান্ড শুরু আগেই স্থানীয় এমপি আমাকে হত্যার হুমকিও দিয়েছেন। এসব বিষয়গুলো তিনি রিটার্নিং অফিসারের কাছে এর আগে লিখিতভাবে জানানোর কথাও ব্যক্ত করেন।

    বিএনপি এমপি পদপ্রার্থী শাহজাহান চৌধুরীর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে একই আসনের আওয়ামী লীগের মনোনীত এমপি প্রার্থী শাহীন আকতারের স্বামী এবং বর্তমান এমপি আবদুর রহমান বদি অভিযোগ করেন-‘ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকরা আমার এলাকায় এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।’ এমপি বদি বলেন, গত ৩০ নভেম্বর ধানের শীষ প্রতীকের লোকজন তার গাড়ীতে গুলি চালিয়ে তাকে হত্যার চেষ্টা করেছে। তিনি সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধুরীর ছোট ভাই উখিয়ার শাহজালাল চৌধুরীর বিরুদ্ধে গত ক’দিন ধরে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টির অভিযোগ করেন। এমপি বদির আশংকা জামায়াত নেতা শাহজালাল চৌধুরী যে কোন সময় বড় ধরণের একটি অঘটন ঘটাতে পারে এলাকায়।

    কক্সবাজার-৩ (রামু-কক্সবাজার সদর) আসনের বিএনপি মনোনীত এমপি প্রার্থী লুৎফুর রহমান কাজল অভিযোগ করে বলেন, রামু উপজেলায় আমার কোন প্রচারণা অফিস স্থাপন করতে দেয়া হচ্ছে না। সেখানে আমার কর্মীদের আটক করা হচ্ছে-তাদের বিরুদ্ধে নির্যাতনমূলক ব্যবস্থা চরম পর্যাযে পৌছেছে। তিনি অভিযোগ করেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর লোকজন এ ধরণের ঘটনাগুলো করছেন। এমপি প্রার্থী কাজল দুঃখের সাথে বলেন-‘ বিষয়টা এমন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে যে, যেন আমাকে হাত-পা বেঁধেই সাঁতার কাটতে নামিয়ে দেয়া হয়েছে। এরকম হলে কি সাঁতার কাটানো যায় ?’

    একই আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাইমুম সরওয়ার কমল বলেন-ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকরা আমার নৌকা প্রতীকের ২টি নির্বাচন অফিস পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ফেসবুকে আমার বিরুদ্ধে ধানের শীষের সমর্থকরা অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। এমপি কমল অভিযোগ করেন, বিএনপি নেতা-কর্মীরা জাল ব্যালট নিয়ে এখন থেকেই ভোটের কেলেংকারির কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

    কক্সবাজার-২ (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসনের মুসলিম লীগের প্রার্থী শহীদুল্লাহ অভিযোগ করেন-‘আমার এলাকায় আমার পোষ্টারগুলো নিচে নামিয়ে দিয়ে উপরে পোষ্টার লাগানো দেয়া হচ্ছে। এলাকার ছাত্রলীগ কর্মীরা এরকম ঘটনা ঘটাচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। একই আসনের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী জসিম উদ্দিন নদভী এলাকা নিয়ে একই রকমের অভিযোগ তুলেছেন।

    কক্সবাজার-১ (পেকুয়া-চকরিয়া) আসনের বিএনপি প্রার্থী মিসেস হাসিনা আহমদের প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে কক্সবাজার জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শামীম আরা বেগম স্বপ্না অভিযোগ করেন-সেখানে ধানের শীষ প্রতীকধারী মিসেস হাসিনা আহমদকে নির্বাচনী প্রচারণায় নামতেই দেয়া হচ্ছেনা। ধানের শীষ প্রতীক ধারী প্রার্থী হাসিনা আহমদকে গত কয়েক দিন ধরে সেখানে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর লোকজন ধাওয়া দিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করে বলেন-হাসিনা আহমদ আজকের এই মতবিনিময় সভায়ও আসতে পারেননি নিরাপত্তাজনিত কারনে।

    এরকম অভিযোগের জবাবে কক্সবাজার- ২ আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জাফর আলমের পক্ষে চকরিয়ার আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল আবছার পাল্টা অভিযোগ তুলে বলেন- ধানের শীষ প্রতীকধারী প্রার্থীর সমর্থকরা নৌকা প্রতীকের অফিস ভাংচুর করে চলেছে। এমনকি অফিস আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিচ্ছে। গত ক’দিনে নৌকা প্রতীকের প্রচারণায় জড়িত টমটম গাড়ীও আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। তিনি হাসিনা আহমদের পক্ষে অভিযোগের তীব্র আপত্তি জানান।

    মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মাসুদুর রহমান মোল্লা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ আশরাফুল আফসার, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা সহ জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তারা, বিজিবি, র‌্যাব ,পুলিশ ও আনসার সহ নির্বাচনী কাজে জড়িত অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ