বুধবার ৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

বড় মহেশখালী ইউনিয়ন

নৌকা প্রতীকে সাজেদুল করিমকে দেখতে চায় এলাকাবাসী

  |   বৃহস্পতিবার, ০৪ নভেম্বর ২০২১

নৌকা প্রতীকে সাজেদুল করিমকে দেখতে চায় এলাকাবাসী

দেশবিদেশ প্রতিবেদক, মহেশখালী
মহেশখালীর সর্ব সাধারণ ও কর্মিদের কাছে তারুণ্যের প্রতীক। নেতাদের কাছে আস্থার প্রতীক। সাধারণ জনগণের মাঝে আশা—ভরসা। বড় মহেশখালীর প্রতিটি ঘরে ঘরে গৃহিণীদের কাছে পৌঁছে যাওয়া একটি নাম জননেতা সাজেদুল করিম।
জন্মলগ্ন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত সাজেদুল করিম বড় মহেশখালী ইউনিয়নের জাগিরাঘোনার বাসিন্দা হাজী মোস্তাক আহমদের জ্যৈষ্ঠপুত্র। পূর্ব থেকেই তৃণমূলে ছিলেন খুবই জনপ্রিয়। এখনও সমান ভালোবাসা নিয়ে জনপ্রিয়তা শীর্ষে আছেন জানান বড় মহেশখালীর ইউনিয়নের বাসিন্দারা। তারা চান এবার বড় মহেশখালী ইউনিয়ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নৌকার কান্ডারী হোক আপাদমস্তক আওয়ামী লীগার এই সাজেদুল করিম। বর্তমানে তিনি মহেশখালী উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
বড় মহেশখালীর বাসিন্দা শামীম জানান, ছাত্রজীবন থেকে সংগ্রামী হওয়ায় এলাকাবাসী ও তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতা—কর্মিদের কাছে খুবই প্রিয়ভাজন ব্যক্তিত্ব। রাজনীতির মাঠে দীর্ঘ ত্যাগ—তিতীক্ষার পর মহেশখালী উপজেলা যুবলীগের আহবায়কের দায়িত্ব পেয়ে সংগঠনকে নিয়ে গেছেন মুজিবাদী আদর্শের যুব সংগঠন, যুবকদের ছায়াস্থল। অনেকই যখন নিজের আখের গোছাতে ব্যস্ত ঠিক তখনই তিনি রাজনৈতিক ক্যারিয়ারকে ভিন্নভাবে ব্যবহার না করে নিজেকে সবসময় নিয়োজিত রেখেছেন জনসেবায় এবং আপোষহীন মানসিকতায়।

তিনি দৃঢ়ভাবে আরো বলেন, সাজেদুল করিমকে দিয়েই ঘুচবে দীর্ঘদিনের আক্ষেপ বড় মহেশখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের। যদি তাকে নৌকার প্রার্থী হিসেবে উপজেলা, জেলা এবং সর্বোপরি জননেত্রী শেখ হাসিনা বাছাই করেন তাহলে বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মানুষ বিজয়ী করে মুখ উজ্জ্বল করবেন। কারণ বাংলাদেশ লবণ চাষী বাচাঁও পরিষদের আহবায়ক হিসেবে এই এলাকার মানুষের অন্যতম পেশা এবং ব্যবসা লবণের ন্যায্য দাম পেতে রাজ পথে আন্দোলন করে দাবি আদায় করে মানুষের পাশে থেকে অনন্য ভূমিকা রেখেছেন।
ফকিরাঘোনার বাসিন্দা নুরুল আবছার বলেন, হাজী মোস্তাক আহমদ নিজ এলাকা এবং মহেশখালীতে সহজ—সরল এবং সাদামাটা—সাদামনের মানুষ হিসেবে সুপরিচিত। তারই সন্তান হিসেবে সাজেদুল করিম বাবার পথে হেঁটে জনপ্রিয়তা ও এলাকাবাসীর ভালোবাসা অর্জন করেছেন। তাই এবার বড় মহেশখালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী (নৌকা) পদে সাজেদুল করিমকে চায় এলাকাবাসী।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কক্সবাজার জেলা শাখা আয়োজিত সমাবেশে কক্সবাজার ‍পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে বক্তব্য রাখছেন সাজেদুল করিম, ফাইল ছবি।

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, হাজী মোস্তাক আহমদ তার দীর্ঘ জীবনের সততা এবং সংগ্রামী জীবনের মাঝে আওয়ামী আদর্শে ছিলেন অবিচল। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মহেশখালী উপজেলা শাখা (এড.এসএএম রফিক উল্লাহ—ইসহাক মিয়া কমিটি) অর্থ সম্পাদক ছিলেন হাজী মোস্তাক।
এরপর থেকে বাবার কার্যক্রম মানুষের মধ্যে অব্যাহত রাখতে বাবা হাজী মোস্তাক আহমদের দেখানো পথে নামেন সাজেদুল করিম। এরই পাশাপাশি একই এলাকা এবং প্রতিবেশী হওয়ায় জেলার কিংবদন্তিতুল্য নেতা মরহুম এস.এম রফিক উল্লাহর রাজনৈতিক কর্মকান্ডও তাঁকে প্রবলভাবে আকৃষ্ট করে। যার ফলে অনুপ্রাণিত হয়ে ছোটবেলা থেকে জনগণের সেবক হওয়া ইচ্ছা সৃষ্টি হয়।যার প্রতিফলন ঘটান দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগের রাজনীতির মাধ্যমে।

জাগিরা ঘোনার বাসিন্দা একজন প্রবীণ মুরব্বি বলেন, সেই কিশোর বয়সেই এলাকার গরিব—দুঃখী ও সমস্যায় পড়ে থাকা মানুষের উপকার করে আসছেন সাজেদুল। নিজ চোখে এলাকার মেহনতী মানুষের পাশে দাঁড়ানো বাবার শিক্ষনীয় কার্যক্রম , বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি সম্মান ও ভালোবাসা বুকে ধারণ করে ইউনিয়নে সক্রিয় হয়ে পড়েন ছেলে সাজেদুল করিম।নিজ ইউনিয়নের কোনো মানুষ বিপদে পড়লেই সবার আগে ছুটে যাওয়া মানুষটি তিনিই। প্রতিনিয়ত অসহায় মানুষের পাশে থাকায় সাজেদুল করিম এখন সবার ভরসার মানুষ। ইউনিয়নের মানুষের চাওয়া সাজেদুল করিমকে এবার নৌকা প্রতীকে বড় মহেশখালী ইউনিয়ন থেকে মনোনয়ন দেওয়া হোক। তবেই উন্নয়ন হবে এলাকার ও মানুষের।

বড় মহেশখালী ইউনিয়নের বাজার এলাকার বাসিন্দা শাহাজাহান এবং স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বললে তারা দৈনিক আজকের দেশবিদেশকে বলেন, সাজেদুল করিমকে নৌকা প্রতীকে মনোয়ন দিলে তিনি বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন। কারণ তিনি এলাকায় বাবার মতোই জনপ্রিয়। তিনি চেয়ারম্যান হলে এলাকার অনেক উন্নয়ন হবে। সবচেয়ে বড় কথা হলো, সাজেদুল করিম ভাই গরিবের কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন। এরপর সাধ্যমতো তিনি সমাধানের চেষ্টা করেন। সাজেদুল করিম চেয়ারম্যান হিসেবে যোগ্য প্রার্থী। তাকে দলের মনোনয়ন দিলে ইউনিয়নবাসী অনেক উপকৃত হবে। আমরা তাকে চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চাই।
বড় মহেশখালী গ্রামের আরো অনেকে সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সাজেদুল করিম বর্তমানে খুবই জনপ্রিয়। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বড় মহেশখালী মানুষের পাশে থেকে সেবা করে যাচ্ছেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন বিশ্বস্থ কর্মি। আমরা তাকে নৌকা প্রতীক দেওয়ার দাবি করছি।

এ বিষয়ে বড় মহেশখালী ইউনিয়নের নৌকার মননোয়ন প্রত্যাশী মহেশখালী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সাজেদুল করিম দৈনিক আজকের দেশবিদেশকে বলেন, আওয়ামী লীগের প্রতি আমার বাবা সারাজীবন নিবেদিত ছিলেন। কঠিন সময়েও তিনি দলের সিদ্ধান্ত এবং ভালো লাগা থেকে এক চুলও সরেননি। এটা আওয়ামী লীগের সবাই অবগত। বাবার কাছ থেকে সরাসরি অসহায় মানুষের জন্য কীভাবে কাজ করতে হয় সেটা বাবা শিখিয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে দলের জন্য কাজ করছি। দলের মানুষের জন্য কাজ করছি। এবার এলাকার মানুষ খুব করে চায় আমাকে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে। দল আমার আমার রাজনৈতিক কার্যক্রম বিবেচনা করে যা সিদ্ধান্ত দেবে সেটাই আমার সিদ্ধান্ত। ইনশাআল্লাহ শেষ দম থাকা পর্যন্ত সৎ ও নিষ্ঠার সঙ্গে দলের জন্য, জনগণের জন্য কাজ করে যাবো।

উল্লেখ্য, সাজেদুল করিম শিক্ষা জীবনে স্নাতক পাশ করেন। রাজনৈতিক জীবনের ছাত্রজীবনে মহেশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ—সভাপতি দায়িত্বে দিয়ে শুরু করার পর যুবলীগ, স্বেচ্ছসেবক লীগ এবং জাতীয় সংসদের নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করেন। তারমধ্যে জেলা যুবলীগের সদস্য, ও অর্থ সম্পাদক, এবং বর্তমানে মহশখালী উপজেলা যুবলীগের আহবায়কের মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও নবম, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সদস্য সচিবের চ্যালেঞ্জিং গুরুদায়িত্ব পালন করে সফল হন।

এডিবি/জেইউ।

 

Comments

comments

Posted ১:৪৬ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৪ নভেম্বর ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com