শনিবার ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

পেকুয়ায় ওয়াকফের জমি নিয়ে উত্তেজনা 

পেকুয়া প্রতিনিধি   |   বুধবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২১

পেকুয়ায় ওয়াকফের জমি নিয়ে উত্তেজনা 

পেকুয়ায় আজগর আলী সিকদার ওয়াকফ এষ্টেটের জমি নিয়ে দেখা দিয়েছে উত্তেজনা। ৩৮ শতক ওয়াকফের জমি জবর দখলে নিতে দখলবাজ চক্রের ভাড়াটে লোকজন দফায় দফায় জমিতে হানা দিচ্ছে। এতে করে ওয়াকফের মোতাওয়াল্লী পক্ষের চাষী ও দখলবাজ চক্রের মধ্যে ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। জমি জবর দখলকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে যে কোন মুহুর্তে বড় ধরনের সংঘাত ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা বিরাজ করছে। উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের মগঘোনা গ্রামে ১৯ ডিসেম্বর (রবিবার) সকাল ১০ টার দিকে ও ১৬ ডিসেম্বর সকাল ৮ টার দিকে দু’দফা ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। তবে উভয়পক্ষের মধ্যে এখনো বড় ধরনের মারপিট হয়নি। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আজগর আলী সিকদার ওয়াকফ এষ্টেটের ৩৮ শতক জায়গা নিয়ে মগনামার পশ্চিমকুল গ্রামের মৃত আবদুল খালেকের পুত্র মোক্তার হোসেন গং ও একই ইউনিয়নের সিকদারপাড়ার মৃত মোহাম্মদ সাদেক হোসেন চৌধুরীর পুত্র নাসিমুল হক গংদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। মগনামা মৌজায় আজগর আলী সিকদার ওয়াকফ এষ্টেটের বিপুল জমি রয়েছে। সিএস রেকর্ড থেকে মনুমিয়া সিকদারের ৩ পুত্র আজগর আলী, আবদু রহমান ও আবদু ছমদ সিকদার ওই জমি ওয়াকফ নামার মাধ্যমে দলিল সৃজন করে। ওয়াকফ আওলাদ শর্তমতে ওয়াকিফগণ ওই জমি সরকারের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অধীন ওয়াকফ করেন। যার ইসি নং ১৬৭৯। এ দিকে আজগর আলী সিকদার ওয়াকফের জমিজমা ওয়াকিফদের ওয়ারিশগণ মোতাওয়াল্লীর অধীনে রক্ষণাবেক্ষণ করছিলেন। ওই সম্পত্তির ৩৮ শতক জমি নিয়ে আধিপত্য বিস্তার চলমান রয়েছে। স্থানীয়রা জানান, চলতি লবণ মৌসুমে ৩৮ শতক জমিসহ ওয়াকফর জমি চাষাকে লাগিয়ত করা হয়। মুহুরীপাড়া গ্রামের মৃত হুমায়ুনের পুত্র ছৈয়দ করিমকে চাষা হিসেবে জমি লাগিয়ত করা হয়। সম্প্রতি ওই জমি জবর দখল প্রচেষ্টা চলছে। মৃত সাদেক হোসেনের পুত্র নাসিমুল হক চৌধুরী জানান, এ জমি আমার দাদারা ওয়াকফকে দলিল দিয়েছেন। আওলাদ হিসেবে দাদার ছেলে সন্তান পরবর্তীতে নাতি পুতিরা রক্ষনাবেক্ষণ করছিলাম। আমরা ওই জমি প্রতি বছর চাষাকে লাগিয়ত করি। চলতি বছর লবণ মৌসুমের জন্য ওই জমি আমরা ছৈয়দ করিমকে লাগিয়ত করেছি। পশ্চিমকুলের মৃত আবদুল খালেকের পুত্র মোক্তার হোসেন তার ভাই মাওলানা হাবিবুল্লাহসহ ভাড়াটে লোকজন ওয়াকফের জমি জবর দখলের চেষ্টা করছে। তারা ১৬ ডিসেম্বর সকাল ৮ টার দিকে জমিতে গিয়ে চাষাকে হামলার চেষ্টা চালায়। এমনকি পরবর্তীতে ১৯ ডিসেম্বর সকাল ১১ টার দিকে একই ব্যক্তিরা দ্বিতীয় দফা জমিতে গিয়ে তান্ডব চালায়। নাইমুল হক চৌধুরী বলেন, ওয়াকফর জমি কিভাবে জবর দখল চেষ্টা চালায়। আমরা পেশীশক্তির বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা চাই। এহেতাছামুল হক বলেন, ভাড়াটে লোকজন গিয়ে ভয় দেখাচ্ছে। মোক্তার হোসেন সন্ত্রাসী নিয়ে জমিতে গিয়েছে। মো: ইসমাইল চৌধুরী জানান, এ জমি আরএস ১৩ নং খতিয়ান থেকে ওয়াকফ দলিল হয়েছে। এরপর বিএস ৮৪৫ ও দিয়ারা ১৬ নং খতিয়ানে রেকর্ড প্রচার আছে। মোক্তার হোসেন গং অহেতুক হয়রানি করছে। মৃত মো: ছাদেক হোসেন চৌধুরীর স্ত্রী শামসুন্নাহার বলেন, এ জমি আমরা রক্ষনাবেক্ষণ করছিলাম। আমাদের ছেলেরা মোতাওয়াল্লীর পক্ষে জমি দেখভাল করছিল। আহমদ হোসেনের স্ত্রী মোমেনা খানম বলেন, মোক্তার হোসেন গং জমিতে না যাওয়ার জন্য আমাদের ছেলেদের হাকাবকাসহ হুমকি ধমকি দিচ্ছে। তারা কয়েকদিনের ব্যবধানে একাধিকবার জমিতে গিয়ে হাকাবকা করেছে। আজগর আলী সিকদার ওয়াকফ এষ্টেটের মোতাওয়াল্লী ইমরুল কায়েস বলেন, ওয়াকফের জমি তথ্য গোপন করে শুনেছি একটি পক্ষ জমাভাগ করে ফেলেছে। ওয়াকফ সম্পত্তি কিভাবে বিক্রি ও দলিল হবে।

Comments

comments

Posted ৯:২৬ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com