শনিবার ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

পেকুয়ায় গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টা মামলার তদন্ত করছে পিবিআই 

পেকুয়া প্রতিনিধি   |   বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর ২০২১

পেকুয়ায় গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টা মামলার তদন্ত করছে পিবিআই 

পেকুয়ায় প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় রুজুকৃত মামলার তদন্ত করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই)। প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা ও পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। ওই ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে কক্সবাজারের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা রুজু করে। বিচারিক আদালত ওই নারীর অভিযোগ আমলে নিয়েছেন। বিষয়টি অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআইকে এর দায়িত্বভার ন্যস্ত করে। পিবিআইয়ের তদন্ত টীম ২৩ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পিবিআইয়ের এস,আই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ওসমান গণি উপজেলার টইটং ইউনিয়নের বদুমিয়া হাজিরপাড়ায় পরিদর্শনে যান। উপজেলার টইটং ইউনিয়নের বদুমিয়া হাজিরপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। জখমী নারীর নাম রহিমা বেগম (২০)। তিনি ওই এলাকার প্রবাসী মো: ইদ্রিসের স্ত্রী। আদালতে প্রেরিত আর্জি সুত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ১১ নভেম্বর দুপুর ১২ টার দিকে ওমান প্রবাসী ইদ্রিসের স্ত্রী তার বাড়িতে গোয়ালঘরে কাজ করছিলেন। এ সময় একই এলাকার মৃত আলী মিয়ার পুত্র নুর মোহাম্মদ গোয়ালঘরে গিয়ে ওই নারীকে কুপ্রস্তাবসহ ধর্ষণ চেষ্টা চালায়। এ সময় সম্ভ্রম বাঁচাতে ওই নারী দ্রুত সটকে পড়ছিলেন। তবে বিবাদী ওই গৃহবধূকে শ্লীলতাহানি করে। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে আসামী নুর মোহাম্মদ রহিমা বেগমকে পিটিয়ে জখম করে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। ঘটনায় আইনগত প্রতিকার পেতে জখমী নারী রহিমা বেগম কক্সবাজারের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে চলতি বছরের ১৫ নভেম্বর নালিশি অভিযোগ প্রেরণ করে। যার সিপি মামলা নং ২৮৪/২১। বিচারিক আদালত সেটি আমলে নিয়েছেন। এমনকি পুলিশের তদন্ত সংস্থা পিবিআইকে এর তদন্তভার দেওয়া হয়েছে। এজাহারে গৃহবধূ রহিমা বেগম আরো জানান, বিবাদী একজন শট প্রতারক ও নারীলোভী ব্যক্তি। স্বামী প্রবাসে থাকে। ওই সুবাধে প্রায় সময় তাকে কুপ্রস্তাব দিচ্ছিলেন। ওই গৃহবধূ জানিয়েছেন, বিবাদী নুর মোহাম্মদ আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। আমি বলেছি আমার স্বামী আছে, সংসার আছে, আমি কিভাবে তোমাকে বিবাহ করবো। কিন্তু কিছুতেই ওই ব্যক্তি বুঝতে চাইনি। বার বার আমাকে কুপ্রস্তাবসহ অনৈতিক কাজে বাধ্য করার চেষ্টা করছিল। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে জানানো হয়েছে। এমনকি বিবাদীর নিকটাত্মীয়দেরকে এ সম্পর্কিত বিষয়ে নালিশ করা হয়েছিল। সর্বশেষ ঘটনার দিন দুপুরে জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার কুমানসে বিবাদী ওই নারীর বসতবাড়িতে আসে। এতে করে ওই কান্ড সংঘটিত হয়েছে। পুলিশ ব্যুরো ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই) কক্সবাজারে কর্মরত এস,আই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ওসমান গণি জানান, তদন্তভার আদালত পিআইবিকে ন্যস্ত করেছে। আমি তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে পেকুয়ায় ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। বিষয়টি যেহেতু স্পর্শকাতর এর অধিক তদন্তের প্রয়োজন। ভিকটিমের জখমী সনদ সরবরাহের জন্য পিবিআই তাগিদ দিয়েছেন।

Comments

comments

Posted ৬:০৯ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com