শনিবার ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

পেকুয়ায় মাদ্রাসার জমি দখলের অভিযোগ

পেকুয়া প্রতিনিধি   |   শনিবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০২১

পেকুয়ায় মাদ্রাসার জমি দখলের অভিযোগ

কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলায় দখলের কবলে পড়েছে একটি মহিলা দাখিল মাদ্রাসার জমি। আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রভাবশালী মহল মাদ্রাসার জমি দখলে নিয়ে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করলেও স্থানীয় প্রশাসন দখলে জড়িতদের বিরুদ্ধে এখনো পর্যন্ত কোন ধরনের আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি বলে অভিযোগ করেছেন মাদ্রাসার শিক্ষকরা। এ নিয়ে আতংকে রয়েছে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক, ছাত্রী ও অভিভাবকরা। এদিকে মাদ্রাসার জমি দখলের ঘটনায় ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয়দের মাঝে।
জানা যায়, বিগত ২০০১ সালে পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের শেখেরকিল্লাঘোনা গ্রামে পেকুয়া আদর্শ মহিলা দাখিল মাদ্রাসাটি প্রতিষ্টা করেন অধ্যক্ষ মাওলানা কামাল হোছাইনসহ এলাকাবাসীরা। প্রতিষ্টালগ্ন থেকে মাদ্রাসাটি এলাকায় নারী শিক্ষার বিস্তারে উল্লেখ্যযোগ্য অবদান রাখছে। বর্তমানে এ মাদ্রাসার দাখিল দশম শ্রেণী পর্যন্ত প্রায় ৫শতাধিক ছাত্রী অধ্যায়নরত আছে। প্রতিষ্টালগ্ন থেকে স্থানীয় বাসিন্দা অধ্যক্ষ মাওলানা কামাল হোছাইন, শাহাদাৎ হোছাইন ছিদ্দিকী, অধ্যক্ষ নুরুল হক মকছুদী, অডিটর বদিউল আলম ও মোস্তাক আহমদের দানকৃত ৮৫ শতক পৃথক জমি নিয়ে মাদ্রাসাটি প্রতিষ্টিত হয়। বর্তমানে মাদ্রাসায় ২টি পাকা ভবন এবং একটি টিনশেড গৃহ রয়েছে। মাদ্রাসাটি ২০০৪ সালে সরকারী অনুমোদনও লাভ করেছে। তবে এখনো পর্যন্ত এমপিওভুক্ত না হওয়ায় শিক্ষক-কর্মচারীরা কষ্টে দিনাতিপাত করছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, স্থানীয় বাসিন্দা অধ্যক্ষ মাওলানা কামাল হোছাইন, শাহাদাৎ হোছাইন ও অধ্যক্ষ নুরুল হক মকছুদী মাদ্রাসা প্রতিষ্টার পর মাদ্রাসার নামে তাদের অংশের জমি রেজিষ্ট্রিমুলে দানপত্র করলেও দাতা মোস্তাক আহমদ সওদাগর জমির দখল মাদ্রাসাকে বুঝিয়ে দিলেও মাদ্রাসার নামে রেজিষ্ট্রিমূলে দানপত্র সম্পাদন করেনি।
পেকুয়া আদর্শ মহিলা দাখিল মাদ্রাসার প্রতিষ্টাতা অধ্যক্ষ মাওলানা কামাল হোছাইন বলেন, ‘মোস্তাক আহমদ সওদাগর মাদ্রাসার নামে জমিদান করার সময় শতক প্রতি জমির মূল্য ছিল দুই হাজার টাকা। আর বর্তমানে পেকুয়া মৌজায় শতক প্রতি জমির মূল্য পাঁচ লক্ষ টাকা হওয়ার কারণে ২০ বছর পর এসে মোস্তাক আহমদ ভাড়াটে লোকজন নিয়ে মাদ্রাসায় দানকৃত জমি জবর দখলে নিয়ে পাকা সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কাজ শেষ করেছে। তাকে বাধা দেওয়া হলেও কোন কথা শুনেনি। মোস্তাক আহমদের ভাড়াটে লোকজন আমার টিনের ঘেরা বেড়াও ভেঙ্গে নিয়ে গেছে। তিনি আরো বলেন, পেকুয়া মৌজার বিএস দাগ নং ১৯৮৫ এর ১৬ শতক জমি পুরোপুরি দখলে নিতে মোস্তাক আহমদ এর লোকজন গতকাল ২৫ ডিসেম্বর (শনিবার) সকাল ৯টার দিকে মাদ্রাসার জমিতে অনধিকার প্রবেশ করে দখলের চেষ্টা চালায়। এরপর তিনি পেকুয়া থানাকে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
পেকুয়া আদর্শ দাখিল মাদ্রাসার বেশ কয়েকজন শিক্ষক অভিযোগ করে জানান, প্রায় সময় মাদ্রাসার শিক্ষক, ছাত্রীদের অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজসহ মারধর ও হত্যার হুমকি দেয় মোস্তাক আহমদের লোকজন। তারা এ নিয়ে চরম আতংকে রয়েছে।
পেকুয়া আদর্শ মহিলা দাখিল মাদ্রাসার সুপার (ভারপ্রাপ্ত) মাওলানা মনিরুল ইসলাম স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন, মোস্তাক আহমদ গং মাদ্রাসার জমিকে পাকা সীমানা প্রাচীর নির্মান করে মাদ্রাসার শিক্ষক/শিক্ষিকা-ছাত্রীদের যাতায়াতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। তিনি এ ব্যাপারে দ্রæত প্রশাসনের সহায়তা কামনা করেছেন। মাদ্রাসার সুপার আরো বলেন, দখল চেষ্টার ঘটনায় যেকোন সময় মাদ্রাসার শিক্ষক, ছাত্রী ও মাদ্রাসা ভবনে হামলার আশংকাও রয়েছে। তাই এ বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
অপরদিকে, মোস্তাক আহমদ গংয়ের হুমকি-ধমকি ও মাদ্রাসার জমি জবর দখল থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার নিমিত্তে চকরিয়া সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মাদ্রাসার প্রতিষ্টাতা অধ্যক্ষ কামাল হোছাইন বাদী হয়ে অপর ১৯১৩/২১ নং মামলা দায়ের করেন। আর উক্ত মামলায় মোস্তাক আহমদ গংয়ের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারী করেছেন বিজ্ঞ আদালত। এরপরেও মোস্তাক আহমদ গং আদালতে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে বলে কামাল হোছাইন অভিযোগ করেছেন।

Comments

comments

Posted ১১:৫৭ অপরাহ্ণ | শনিবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com