সোমবার ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

প্রতিবন্ধী শ্যামলের পরিবারে হাসি ফোটালেন প্রধানমন্ত্রী

তারেকুর রহমান   |   সোমবার, ২১ জুন ২০২১

তারেকুর রহমান ‘পৃথিবী কত কঠিন তা কোনো প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা করলে বুঝা যায়। স্বামীর উপার্জন ছাড়া একজন মহিলা পরিবারের খরচ ও সন্তানের লেখাপড়া খরচ চালিয়ে নিতে কতো কষ্ট ও সংগ্রামের তা আমি বুঝেছি। কারণ আমার স্বামী শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় আমিই সেই কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছি। সংসারে একমাত্র উপার্জনকারী বলতে আমি। মানুষের বাড়িতে কাজ করে পরিবারের আনুসাঙ্গিক খরচ ও সন্তানদের লেখাপড়া চালিয়ে নিচ্ছি। এক মেয়ে মহিলা কলেজে পড়ে, এক ছেলের এইচএসসি শেষ। সবকিছু গুছিয়ে নিতে এখনো আমাকে কঠিন সংগ্রাম করতে হয়। একটি ঘরের অভাবে কতো কষ্ট পেয়েছি রোদ-বৃষ্টি ঝড়ে। কেউ এগিয়ে আসেনি আমার বিপদে। স্বামীর উপার্জন নেই বলে কোথাও মাথা গোঁজার ঠাঁইও পাইনি। অবশেষে মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিলেন মমতাময়ী মা প্রধনমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’ কথাগুলো বলেছেন সদর উপজেলার খুরুশকুল দক্ষিণ হিন্দুপাড়ার জানকী রাণী দাশ। কক্সবাজারে ভূমি ও গৃহহীনদের প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ১৪২৩ পরিবারের তালিকায় স্থান পেয়ে রবিবার(২০ জুন) কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে বাড়ির চাবি বুঝে নিতে গিয়ে এই কথাগুলো বলেন তিনি। জানকী রাণী দাশ কাঁদো কাঁেদা হয়ে বলেন, ‘আমার স্বামী শ্যামল দাশ শারীরিক প্রতিবন্ধী। কোনো কাজকর্ম করতে পারেন না তিনি। তাই মানুষের বাড়িতে কাজ করে আমাকে সংসারের হাল ধরতে হয়। ছেলে-মেয়েকে কলেজে পড়াচ্ছি। তারা যেন মানুষের মতো মানুষ হয়ে আমাদের দুঃখ লাঘব করতে পারে । মানুষের বাড়িতে কাজ করে সংসারের খরচ পোষায় না বলে হাস-মুরগী পালন করি। সামান্য যে ঘরে থাকি সেখানে বৃষ্টি হলে পানি পড়ে আর ঘরের ভেতর থেকে আকাশ দেখা যায়। আমাদের এমন দুঃখ দুর্দশার খবর সদর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার নজরে আসলে গৃহহীনদের প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে একটি বাড়ি পাই। এখন আমি অনেক খুশি। মাথা গোঁজার ঠাঁই পেয়েছি। আমার প্রতিবন্ধী স্বামী, ছেলে-মেয়েকে নিয়ে পাকা বাড়িতে থাকতে পারবো।’ সেমিপাকা ঘর পেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিলেন সংগ্রামী নারী জানকী রাণী দাশ। শ্যামল দাশের মতো আরো শত শত প্রতিবন্ধী প্রধানমন্ত্রীর উপহার নতুন বাড়ি ও জমি পেয়েছে। মুজিববর্ষে কক্সবাজার জেলায় দ্বিতীয় পর্যায়ে ১০১৮ জন ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার স্বপ্নের বাড়ি। রবিবার (২০ জুন) সকাল সাড় ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় দ্বিতীয় ধাপে ভূমিহীন-গৃহহীনদের দুই শতক জমিসহ সেমি পাকা ঘর প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। ভিডিও কনফারেন্সটি কক্সবাজার সদর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে উপভোগ অনুষ্ঠান করা হয়। কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সভাপতিত্ব ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া আক্তার সুইটির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা, কক্সবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ, কানিজ ফাতেমা মোস্তাক এমপি, পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান, মুক্তিযোদ্ধা কামাল হোসেন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েল এবং কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. মুজিবুল ইসলাম প্রমুখ। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিন আল পারভেজ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাবেক সাংসদ এথিন রাখাইন, সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মং এনুং মারমা, জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুরসহ উপকাভোগীরা উপস্থিত ছিলেন। জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বলেন, ‘এই প্রকল্পের আওতায় এর আগে ১ম পর্যায়ে ৩০৩ টি পরিবার নতুন বাড়ি দেয়া হয়েছে। আজ ২য় পর্যায়ে ১০১৮ পরিবারকে নতুন ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া আগামী ৩০ জুনের মধ্যে আরও ১০২ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে বিনামূল্যে জমিসহ ঘর প্রদান করা হবে। এ নিয়ে জেলায়মোট ১৪২৩টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পাবে।’ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া আক্তার সুইটি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজন্ম লালিত স্বপ্ন ছিল বাংলার গরীব-দুঃখীদের মুখে হাসি ফোটাবার। তাই ‘মুজিববর্ষে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’ কথাটির বাস্তব রূপ দিতে প্রধানমন্ত্রী এই মহতী সিদ্ধান্ত নেন। খাস জমি বন্দোবস্ত করে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।’ উল্লেখ্য, সেমিপাকা ঘরে রয়েছে দুটি রুম, একটি বড় বারান্দা, রান্নাঘর ও টয়লেট। পাশাপাশি সুপেয় পানি ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা আছে। এ ছাড়াও আত্মনির্ভরশীল করতে ওইসব পরিবারের সদস্যদের জন্য কর্মসংস্থানের জন্য নানা ধরনের প্রশিক্ষণও দেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

Comments

comments

Posted ৩:১৩ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২১ জুন ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com