রবিবার ১৪ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

প্রধান সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন পেলো একনেকে

শহীদুল্লাহ্ কায়সার   |   বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯

প্রধান সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন পেলো একনেকে

অনেক চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে অবশেষে কক্সবাজার শহরের মানুষের জন্য একটি শুভ সংবাদ এলো। চূড়ান্ত হলো কক্সবাজার শহরের প্রধান সড়ক সংস্কার এবং প্রশস্তকরণ কাজ। গতকাল ১৬ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক কমিটি (একনেক)’র সভায় সড়ক প্রশস্তকরণের অনুমোদ দেয়া হয়। কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক) এর দুইজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা গতকাল রাতে দৈনিক আজকের দেশবিদেশকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। শহরের ৫দশমিক ২ কিলোমিটার অংশে হবে এই সংস্কার ও প্রশস্তকরণের কাজ। হলিডে মোড় থেকে বাস টার্মিনাল পর্যন্ত প্রশস্ত করা হবে এই সড়ক। যাতে পথচারীদের চলাচলের জন্য উন্নতমানের ফুটপাথসহ থাকবে আধুনিক সুবিধা। সড়ক সংস্কার ও প্রশস্তকরণ কাজ সম্পন্ন হলে শহরের যানজট অনেকাংশে কমে যাবে। এই সড়কটি সংস্কার ও নির্মাণের জন্য দুই বছর আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একটি প্রকল্প জমা দেয় কক্সবাজার উন্নয়ন কর্র্র্তৃপক্ষ (কউক)। কিন্তু বিশাল অংকের ব্যয়ের কারণে দীর্ঘদিন ধরে তা অনুমোদন দেয়া হয়নি। গতকালের অনুমোদনের পর সেই সংকট আর রইলো না।
বর্তমানে সড়ক ও জনপথ বিভাগ এই সড়ক রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করছে। সড়ক সংস্কার ও প্রশস্তকরণের জন্য জমি সংক্রান্ত একটি জটিলতাও দীর্ঘদিন ধরেই আলোচিত হচ্ছে। বিশেষ করে বর্তমানে সড়কের উভয় পাশে থাকা দালানগুলোর কি হবে তা নিয়েও রয়ে গেছে জটিলতা। পাশাপাশি ভূমি অধিগ্রহণের মতো বিষয়গুলোও রয়েছে এই জটিলতার তালিকায়।
গতকাল ১৬ জুলাই রাতে মুঠোফোনে এই বিষয়ে জানতে চাইলে কউক’র একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, সড়কের মালিকানার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রকল্প জমা দেয়ার আগে সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাথে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক)’র একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। ওই সমঝোতা স্মারকের অংশ হিসেবে সড়ক সংস্কার ও প্রশস্তকরণের কাজ পরিচালনা করতে কউক’র কোন সমস্যা নেই।
ভূমির জটিলতা বিষয়ে তিনি বলেন, আর.এস এবং বি.এস মূলে এই জমি সড়ক ও জনপথ বিভাগের। সরকারি এই বিভাগের নামে ইতঃপূর্বে জমি অধিগ্রহণ করা হয়। অধিগ্রহণকৃত জমিতেই হবে সংস্কার ও প্রশস্তকরণের কাজ। ফলে নতুন করে ভূমি অধিগ্রহণের কোন প্রয়োজন হবে না। সড়কের কিছু অংশে ৫০ ফুট এবং কিছু অংশে ১০০ ফুট পর্যন্ত  সংস্কার ও প্রশস্তকরণের কাজ পরিচালনা করা হবে বলেও জানান তিনি।
কউক প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে, কক্সবাজার শহরের প্রধান এই সড়কটির সংস্কার ও প্রশস্তকরণে যে সুযোগ সুবিধা যুক্ত করা হচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে, ফুটপাত, সাইকেল ওয়ে, সবুজায়ন, ফুটওভার ব্রীজ, সড়ক বাতি স্থাপন (বিদ্যুতায়ন), ড্রেন নির্মাণ, ব্রিজ, কালভার্ট, সিসি ক্যামেরা এবং ওয়াইফাই সংযোগ স্থাপন।

Comments

comments

Posted ১:২৬ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com