সোমবার ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

বাংলাদেশে বিদেশী তহবিলের সংকটে হুমকির মুখে সম্ভবনাময় রেল প্রকল্পগুলি, অন্য বিকল্প খোঁজে সরকার

  |   বুধবার, ০৯ মার্চ ২০২২

বাংলাদেশে বিদেশী তহবিলের সংকটে হুমকির মুখে সম্ভবনাময় রেল প্রকল্পগুলি, অন্য বিকল্প খোঁজে সরকার

দেশবিদেশ নিউজ ডেস্ক:

বৈদেশিক অর্থায়নের সংকটের কারণে বাংলাদেশের দুটি রেলওয়ে প্রকল্প শেষ না হওয়ার ঝুঁকিতে পড়েছে। বাংলাদেশ বেল্ট অ্যান্ড রোড অবকাঠামো প্রকল্পের অংশ হিসাবে আসা রেলওয়ে প্রকল্পগুলির প্রোগ্রামগুলির পুনর্মূল্যায়ন এবং তাদের খরচ কমানোর পরে স্থগিত হয়েছে।

এ নিয়ে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর জানান,“এই দুটি প্রকল্পের সমস্যা হল এগুলো রেলওয়ের সেই প্রকল্পগুলোর মধ্যে যেগুলোর খরচ অনেক বেশি। কিন্তু পুনঃমূল্যায়নের পর, খুব যৌক্তিক ভিত্তিতে, সরকার বুঝতে পেরেছে যে এই
প্রকল্পগুলিতে এত টাকা খরচ করা উচিত নয়। এরপরই রেলের সমস্যা শুরু হয়। প্রকল্পের জন্য আলোচনা করা চীনা কোম্পানি প্রকল্পগুলি সম্পন্ন করতে অস্বীকার করেছে। সরকারও তার সিদ্ধান্তে অবস্থান নিয়েছে। তারা কোম্পানিকে জানিয়েছে যে তারা চাইলে চলে যেতে পারে, তবে সরকার কম খরচে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। এটি ছিল একটি বাস্তব চিত্র। এটি একটি খুব ছোট সমস্যা এবং শুধুমাত্র কিছু অসন্তোষ বাড়াতে পারে। আমি মনে করি না যে এই সমস্যাটি কৌশলগত ইস্যুতে পরিণত হবে। যেহেতু এটি আমাদের অর্থনীতির সাথে সম্পর্কিত এবং আমাদের
বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক স্বার্থ যা আমাদের জন্য ভালো হবে তা দেখাশোনার অধিকার আমাদের সরকারের রয়েছে।”

এটি দেখা গেছে যে প্রকল্পগুলোতে যে ব্যয় হওয়া উচিত ছিল হচ্ছে তার চেয়ে অনেক বেশি।
সরকারের ঘোষণার পর চীনারা প্রকল্পে অর্থায়ন প্রত্যাহার করে নেয়। চীন বাংলাদেশকে প্রকল্পের ৮৫% তহবিল দেওয়ার জন্য ঋণ দিতে সম্মত হয়েছিল এই শর্তে যে চীনা কোম্পানিগুলিকে রেলওয়ে প্রকল্পের জন্য টেন্ডার দিতে হবে। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি
(জাইকা), একটি প্রকল্পে অর্থায়নে আগ্রহ দেখিয়েছে। জয়দেবপুর রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার জনাব রেজাউল ইসলাম বলেন, “সরকারের অগ্রাধিকারমূলক উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের অংশ হিসেবে জয়দেবপুর-ঈশ্বরদী প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এই ডাবল-লাইন প্রকল্পটি সময়মতো সম্পন্ন হলে উত্তরাঞ্চল এবং সারাদেশে যোগাযোগের জন্য এটি একটি যুগান্তকারী রেলওয়ে প্রকল্প
হয়ে উঠত।”

একই এলাকার স্থানীয় সাংবাদিক ও সমাজকর্মী জনাব বেল্লাল হোসেনের মতে, “জয়দেবপুর একটি পুরাতন রেলওয়ে স্টেশন এবং জংশন। এটি বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল থেকে ঢাকা যাওয়ার পথের অর্ধেক। প্রস্তাবিত রেল প্রকল্পগুলো সম্পন্ন হলে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের মানুষের সাথে এই এলাকার মানুষের যোগাযোগে ব্যাপক প্রভাব পড়বে, কারণ ভ্রমণে সময় কম লাগবে। এতে প্রধান
সড়কে চাপ কমবে আর যানজটও কমবে।”

এদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতির অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদের মতে এ নিয়ে রাজনৈতিক টেবিলে আলোচনা হতে পারে দুই দেশের। তিনি বলেন, “ঋণ-ভিত্তিক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে, চীন সাধারণত অভ্যন্তরীণ মানবিক সমস্যা এবং স্বচ্ছতার মতো মানদণ্ডের
বিবেচনায় যায় না। পশ্চিমা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলি অবশ্যই বিবেচনায় নেওয়া উচিত। এখন পর্যন্ত, চীন যখন অন্য দেশে ঋণ-ভিত্তিক বিনিয়োগের জন্য যায়, তখন তারা মূলত তাদের বিনিয়োগের সম্ভাব্যতা, মুনাফা এবং রিটার্ন দেখতে চায়। সুতরাং, সেক্ষেত্রে, বাংলাদেশ যদি প্রকল্পের ব্যয় কমায় এবং চীন মনে করে যে এটি তাদের মার্জিনে প্রভাব ফেলবে, অবশ্যই,
আলোচনা হতে পারে। এখন, এই সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র রাজনৈতিকভাবে পরিবর্তন করা যেতে পারে।”

সুত্র: A24 news agency.

আদেবি/ জেইউ।

Comments

comments

Posted ৭:০০ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ০৯ মার্চ ২০২২

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com