• শিরোনাম

    বাবুল আজাদের যোগদানের পর থেকেই স্বস্তি ফিরেছে ডিজিটাল আইল্যান্ড মহেশখালীতে

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৬:১৪ অপরাহ্ণ

    বাবুল আজাদের যোগদানের পর থেকেই স্বস্তি ফিরেছে ডিজিটাল আইল্যান্ড মহেশখালীতে

    মহেশখালী থানার চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত)বাবুল আজাদ যোগদানের পর থেকেই ডিজিটাল আইল্যান্ড মহেশখালী উপজেলা অবশেষে স্বস্তি ফিরেছে। শান্তির সুবাতাস বইতে শুরু করেছে ডিজিটাল আইল্যান্ড জুড়ে। খুবই চমৎকার ডিজিটাল আইল্যান্ড এর পরিবেশ এবং আইন শৃংখলা পরিস্থিতি আগের তুলনায় খুবই উন্নত। ৯৯৯ নাম্বারে কল দিলেই আইল্যান্ডের প্রত্যন্ত অঞ্চলে সেবা দিতে ছুটে যাচ্ছে ওসি (তদন্ত)বাবুল আজাদের নেতৃত্বে মহেশখালী থানার পুলিশ সদস্যরা। ডিজিটাল আইল্যান্ড মহেশখালী ছাড়াও জেলার সর্বত্র প্রশংসা কুড়িয়েছে তিনি। আইল্যান্ডের সাধারণ জনগনের সাথে পুলিশের দুরত্ব অনেকটা কমে গেছে। ফলে ছোটখাটো অপরাধ করতেও সাহস করছেনা অপরাধীরা। যেখানে বিগত সময়ে মাদক, সন্ত্রাস,অস্ত্রধারি,অস্ত্রকারিগর এবং জলদস্যুদের অভয়ারণ্য ছিল। চারিদিকে বঙ্গবসাগর ঘেরা ডিজিটাল আইল্যান্ডের জনমানুষের মনে ভয়াবহ আতঙ্ক ছিল সন্ত্রাস,জলদস্যু। আইল্যান্ডের বেশির ভাগ মানুষই জীবিকার তাগিদে সাগরে যায় মাছ ধরতে। সেখানে জলদস্যুদের কবলে পড়ে মা হারিয়েছে আদরের সন্তান, সন্তান হারিয়েছে পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম বাবাকে। কেউবা হারিয়েছে শেষ সম্বল বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণে কেনা মাছ ধরার ট্রালারটি। ডিজিটাল আইল্যান্ডের আইন শৃংখলা রক্ষায় আইন প্রয়োগকারি প্রতিষ্ঠানগুলো যখন একপ্রকার হিমশিম খাচ্ছিল। এ অবস্থায় মহেশখালীর দূর্গম জনপদের নিরাপত্তা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব নিয়ে গত ১৯ জুলাই ২০১৯ ইং তিনি মহেশখালী থানায় ওসি (তদন্ত)হিসাবে আনুষ্ঠানিক ভাবে যোগদান করেন।
    যোগদানের পরই মাদক,সন্ত্রাস, অস্ত্রধারি,অস্ত্রকারিগর ও জলদস্যুদের বিরুদ্ধে কঠিন চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেন। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)প্রভাষ চন্দ্র ধর এর নির্দেশে তাঁর নেতৃত্বে নেতৃত্বে সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে কুখ্যাত জলদস্যু,অস্ত্রকারিগর,মাদক ব্যবসায়ী সহ প্রায় অর্ধশতাধিক বাঘা বাঘা সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় মহেশখালী থানা পুলিশ। উদ্ধার করা হয় বিপুল পরিমান আগ্নেয়াস্ত্র। এতে করে পাল্টে যেতে থাকে পুরো ডিজিটাল আইল্যান্ড মহেশখালী উপজেলার চিত্র। ওসি (তদন্ত)বাবুল আজাদ ডিজিটাল আইল্যান্ড মহেশখালীর আইন শৃংখলা রক্ষার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি, সামাজিক অবক্ষয়, যৌতুক ও বাল্য বিয়ে রোধ, মাদক ও জঙ্গীবাদ বিরোধী জনমত সৃষ্টিমূলক কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন সর্বদা। ফলে খুব অল্প সময়েই সাধারণ মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি।
    মহেশখালী থানার (ওসি) তদন্ত বাবুল আজাদ বলেনঃ-মানব সেবার অন্যতম প্লাটফর্ম পুলিশের চাকরি।সেবা প্রার্থীদের সকল ধরনের সহযোগিতা করার জন্য থানার সকল অফিসার’কে অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর স্যার এর নির্দেশ দেয়া আছে। পুলিশ ক্লিায়ারেন্স ও সাধারণ ডায়েরি করতে টাকা লাগেনা। যদি কেউ টাকা দাবি করে তাহলে সরাসরি (ওসি) স্যার/আমাকে জানান। মাদক,সন্ত্রাস,অস্ত্রকারিগর ও জলদস্যু নির্মূল করে পরিচ্ছন্ন মহেশখালী ডিজিটাল আইল্যান্ড গড়তে সবার সহযোগীতা কামনা করেন তিনি।

    দেশবিদেশ/নেছার

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ