• শিরোনাম

    আগামীকাল আইনজীবী সমিতির নির্বাচন

    ভোটের ‘নিয়ামক’ নবনির্মিত বার ভবনের চেম্বার

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

    ভোটের ‘নিয়ামক’ নবনির্মিত বার ভবনের চেম্বার

    আগামীকাল শনিবার কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন অনুষ্টিত হচ্ছে। এক বছর মেয়াদের জন্য ফিঃ বছর এ নির্বাচন অনুষ্টিত হয়ে থাকে। কক্সবাজার জেলার সবচেয়ে বড় পেশাজীবী সদস্যদের মিলন কেন্দ্র হিসাবে পরিচিত জেলা আইনজীবী সমিতির বার্ষিক এ নির্বাচনী পরিবেশ ইতিমধ্যে বেশ সরগরম হয়ে উঠেছে।
    প্রতি বারের মতই এবারো দু’টি প্যানেল যথারীতি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করছে। দু’টি প্যানেলের একটি হচ্ছে সরকার সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত ও সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ মনোনীত এডভোকেট আ.জ.ম মঈন উদ্দীন ও এডভোকেট জিয়া উদ্দিন আহমদ পরিষদ এবং অপরটি বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয় আইনজীবী ঐক্য ফ্রন্ট মনোনীত এডভোকেট নুরুল মোর্শেদ আমিন ও এডভোকেট মোঃ তাওহীদুল আনোয়ার পরিষদ।

    আদালত পাড়ায় খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, অন্যান্যবারের মত এবারের নির্বাচনে তেমন দৃশ্যমান উৎসাহ উদ্দীপনা এবং উদ্বেগ-উৎকন্ঠা নেই। তবে সরকার সমর্থক ও সরকার বিরোধী ঘাপটি মেরে থাকা রাজনীতির আদর্শে বিশ্বাসী স্ব স্ব দলীয় লোকজনের মধ্যেও ভিতরে ভিতরে টেনশন বিরাজ করছে।
    আদালত পাড়ার সাথে সংশ্লিষ্ট সাধারণ লোকজনের মতে, সরকার সমর্থিত প্যানেলের প্রার্থীদের সমর্থনে ভোটে বিজয়ী হবার যত যৌক্তিক কারণ রয়েছে তা সরকার বিরোধী প্যানেলে নেই। কেননা একশ বিশ বছরের ঐতিহ্য বহনকারি প্রতিষ্টান জেলা আইনজীবী সমিতি বর্তমান সরকারের সহযোগিতায় পেয়েছে পনের শতক জমি ও সেই জমির উপর বহুতল ভবন নির্মাণের এক অপার সুযোগ।

    তাও সমিতির গেল বারের নির্বাচনে বর্তমান সরকার সমর্থিত প্যানেল (সভাপতি-এডভোকেট আ.জ.ম মঈন উদ্দীন ও সাধারণ সম্পাদক- এডভোকেট ইকবালুর রশীদ আমিন সোহেল) বিজয়ী (হওয়ায় সরকারি জমি বরাদ্দ থেকে শুরু করে সরকারি তিন কোটি টাকা আদায়ে সক্ষম হয়। এমনকি সেই জমিতে দশতলা ভবনের মধ্যে কউকের অনুমোদন সাপেক্ষে বর্তমানে সাত তলা ভবনের নির্মাণ কাজ বর্তমানে দ্রæতগতিতে এগিয়ে চলছে।

    জেলা আইনজীবী সমিতির নির্মাণাধীন বহুতল ভবনের পুরোটাতেই থাকবে কর্মরত বিজ্ঞ আইনজীবীদের চেম্বার। ভবনের এই চেম্বারই এখন শনিবারের নির্বাচনে ‘মোক্ষম অস্ত্র’ হিসাবে দেখা দিয়েছে। সমিতির আট শতাধিক বিজ্ঞ আইনজীবী সদস্যদের একটি বড় অংশ হচ্ছে জুনিয়র আইনজীবীগণ।
    আদালত পাড়ায় কর্মরত আইনজীবীদের চাহিদার প্রধানটি হচ্ছে একটি নির্দ্দিষ্ট ঠিকানা। এমন একটি ঠিকানার স্থান নিশ্চিত করার দায়িত্ব একমাত্র ক্ষমতাসীন দলের সমর্থকরাই দিতে পারেন। তাই সংগত কারনেই আগামীকালের নির্বাচনে বহল আলোচিত চেম্বার বরাদ্দ প্রাপ্তির বিষয়টি অন্যতম আশা-ভরষার জায়গা হয়ে দেখা দিয়েছে।

    আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ আগামীকালের নির্বাচনকে সামনে নিয়ে কর্মরত আইনজীবীদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির তাগিদের পাশাপাশি নিজেদের কল্যাণ সাধনেও তৎপর রয়েছে জানিয়েচেন নেতৃবৃন্দ। তদুপরি সমিতির সদস্যদের পেশাগত কল্যাণেও অনেক প্রশংসিত কাজ করেছে সমিতির আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের নেতৃত্বাধীন প্যানেলের নেতৃবৃন্দ।

    সমিতির নেতৃবৃন্দ ইতিমধ্যে সমিতির তহবিল বৃদ্ধির লক্ষ্যে অনেকগুলো সুদুর প্রসারি কাজে সফলতার সাথে এগিয়েছে। এমনকি সমিতির একজন সদস্য আগে পেশাার বিদায়কালে যে অর্থ পেতেন তা বর্তমানে প্রায় দ্বিগুণের কাছাকাছি নিয়ে যেতেও সমর্থ হয়েছেন।
    জেলা আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্যানেলটির নির্বাচনের যাবতীয় দায়িত্ব নেপথ্যে থেকে পরিচালনা করছেন সমিতির সাবেক সভাপতি, সিনিয়র আইনজীবী এবং কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা। তার সাথে রয়েছেন সমিতির প্যানেলের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ প্যানেলটির সিনিয়র আইনজীবী নেতৃবৃন্দ। এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা এসব বিষয়ে জানান, এবারের প্যানেলের প্রার্থী মনোনয়নে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এমনকি প্যানেলের সমর্থিত আইনজীবীদের মতামতের ভিত্তিতেই প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা বলেন একজন আ্ইনজীবী হিসাবে আমি বলব-আমাদের প্যানেল বিজয়ী হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আরো পাঁচ কোটি টাকা চেয়ে আনার ব্যবস্থা করব। যাতে বার ভবনের কাজ সম্পন্ন করার যায়। আগামীকালের নির্বাচনে যদি আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ বিজয় লাভ করে তাহলে আমি নিজেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিজয়ী প্যানেলের সদস্যদের নিয়ে যাব।

    এদিকে সরকারের বিপক্ষে অবস্থান নেওয়া বিএনপি-জামায়াত রাজনীতির সমর্থক জাতীয় আইনজীবী ঐক্য ফ্রন্ট প্যানেলের প্রার্থীরাও বসে নেই। তারা রাজনীতির মাঠে তেমন সরব না হলেও সমিতির নির্বাচনের ব্যাপারে বেশ তৎপর। তাদের ভাবনা হচ্ছে নিরব বিপ্লব ঘটিয়ে পুরো প্যানেলটি বিজয়ী করা। এক্ষেত্রে সমিতির সদস্যদের তেমন কিছু দেয়ার আশা-ভরসা তাদের তুলনামূলক ক্ষেত্রে ক্ষীণ হলেও প্যানেলের প্রার্থীরা সরকার বিরোধী রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করতেই উঠেপড়ে লেগেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ###

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ