• শিরোনাম

    * কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ আসন *এমপি বদি সহ তালিকাভুক্ত ৪ কারবারি মিলে ১৭ জনের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ

    মনোনয়ন পেতে ইয়াবা কারবারিদের দৌঁড়ঝাপ

    দেশবিদেশ রিপোর্ট | ১১ নভেম্বর ২০১৮ | ১:৫৫ পূর্বাহ্ণ

    মনোনয়ন পেতে ইয়াবা কারবারিদের দৌঁড়ঝাপ

    স্থানীয় এলাকাবাসী থেকে শুরু করে প্রশাসনিক কড়াকড়ির ঢামাডোলের মুখেও কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ সীমান্তবর্তী আসনটির মনোনয়ন নিতে ইয়াবা কারবারিদের তোড়জোড় চলছে। গতকাল শনিবার পর্যন্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ৪ জন তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারি রাজধানী ঢাকায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয় থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বলে জানা গেছে। তাঁরা ৪ জনই ইয়াবা পাচারের গেইট ওয়ে হিসাবে পরিচিত কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ সীমান্তবর্তী আসনের এমপি পদের জন্য দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন।
    কক্সবাজারের ৪ টি সংসদীয় আসনের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আসনটি হচ্ছে উখিয়া-টেকনাফ। ইয়াবা এবং রোহিঙ্গা সহ নানা কারনে এ আসনটি বিশ্বব্যাপি পরিচিত। আর এ আসনেই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতেও দৌঁড়ঝাপও চলছে লক্ষ্যনীয়ভাবে। গতকাল শনিবার পর্যন্ত গত দু’দিনে এ আসনটিতে কমপক্ষে ১৭ জন স্থানীয় পর্যায়ের নেতা দলীয় মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন।
    টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর শনিবার রাতে নিশ্চিত করেন যে, তৃতীয় বারের মত নির্বাচনে অংশ নিতে বর্তমান এমপি আবদুর রহমান বদি গতকাল আরো অন্যান্য সহযোগিদের সাথে নিয়ে ফরম সংগ্রহ করেছেন। এমপি বদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ ইয়াবা কারবারের তালিকায় প্রথম নম্বরে রয়েছেন।
    টেকনাফের আওয়ামী লীগ নেতা আরো জানান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ ৭৩ জনের তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারি ও বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারি টেকনাফ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাফর আহমদ, টেকনাফ উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মৌলভী রফিক আহমদ এবং তার ভাই টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মৌলভী আজিজ আহমদও দলীয় মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন।
    এ ছাড়াও একই আসনের সাবেক দলীয় এমপি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, তাঁতী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যকরি সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ শফিক মিয়া, টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নুরুল বশর, শাহপরীর দ্বীপের সোনা আলী ও রশিদ আহমদ, টেকনাফের এম,এ, জহির, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, উখিয়ার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মাহমুদুল হক চৌধুরী, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল মনসুর চৌধুরী, জেলা আওয়ামী যুব লীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর ও জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি আলী আহমদ প্রমুখ। প্রসঙ্গত, ঈদ পুণর্মিলনী উপলক্ষে টেকনাফে অনুষ্টিত এক সভায় প্রধান মন্ত্রীর সাথে এমপি আবদুর রহমান বদিকে নিয়ে তুলনা করে দেয়া একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে সারাদেশে আলোচনায় আসা টেকনাফের আওয়ামী লীগ নেতা এম,এ জহিরও গতকাল দলীয় এমপি পদের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।
    এ বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী বলেন-‘দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আসনটির ইয়াবা বদনাম থেকে আমাদের পরিত্রাণ পেতে হবে। এজন্য দেশপ্রেমিক এবং ত্যাগী দলীয় নেতা পরখ করে মনোনয়ন দিতে আমি দলীয় সভানেত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’ অপরদিকে কক্সবাজার জেলা যুব লীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর বলেন-‘ আমার বাবা ছিলেন জাতীয় পরিষদ সদস্য (এমএনএ)এবং সংবিধান প্রণয়ন কমিটির একজন সদস্য। আমি চাই হাইব্রীড নয় দলের ত্যাগি নেতাদের দলীয় মনোনয়ন দেয়া হোক।’
    আসনটিতে দলীয় মনোনয়ন চেয়ে ফরম সংগ্রহকারি দলীয় নেতা ও উখিয়া উপজেলা পরিষদ এবং হলদিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মাহমুদুল হক চৌধুরী বলেন-‘নির্বাচনে দলের জন্য ত্যাগি নেতা যেমনি প্রয়োজন তেমনি স্থানীয়ভাবে জনপ্রিয়তার বিষয়টিও বিবেচনায় রাখা দরকার।’ টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নুরুল বশর ও কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য মোঃ শফিক মিয়া বলেন-‘আমরা এবার উখিয়া-টেকনাফ সীমান্তকে যেকোন ভাবে ইয়াবার কলংক থেকে মুক্ত করতে চাই। এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে ইয়াবা কারবারিদের বয়কট করতে।’ ######

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ