শনিবার ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

মা হয়ে ট্র্যাকে ফিরেই বিশ্ব রেকর্ড শেলির

দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক   |   মঙ্গলবার, ০১ অক্টোবর ২০১৯

মা হয়ে ট্র্যাকে ফিরেই বিশ্ব রেকর্ড শেলির

ফ্লোরেন্স গ্রিফিথ, মারিয়ান জোন্সদের তালিকায় ঢুকে পড়লেন শেলি অ্যান ফ্রেজার প্রাইস। সর্বকালের অন্যতম সেরা মহিলা অ্যাথলিট হিসেবে। এক সন্তানের মা হয়েও ফুরিয়ে যাননি। বরং প্রায় দু’বছর পর ফিরে এলেন রানির মতোই। প্রায় এক যুগ ধরে আন্তর্জাতিক স্তরে এমন সাফল্য খুব কম অ্যাথলিটেরই রয়েছে।

দোহায় বিশ্ব মিটে ১০০ মিটারে আবার সোনা জিতলেন জামাইকান অ্যাথলিট। ৩২ বছর বয়স। কিন্তু পারফরম্যান্স যেন আরও ধারালো হয়ে উঠেছে তার। বিশ্ব মিটে সোনা জিততে সময় নিলেন বিশ্বের দ্রুততম রানার সময় নিলেন ১০.৭১ সেকেন্ড। এ নিয়ে টানা চতুর্থ বার ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন হলেন তিনি। দ্বিতীয় ডাইনা অ্যাসার স্মিথ (১০.৮৩)।

উসেইন বোল্ট আর শেলির উত্থান একই সময় থেকে— ২০০৮ সালের বেজিং অলিম্পিক থেকে। ১০০ মিটারে সোনা জিতেছিলেন তিনি। ২০১২ সালে লন্ডন অলিম্পিকেও ছিলেন দ্রুততম মহিলা। কিন্তু রিওতে নিরাশ করেছিলেন তিনি। দোহার বিশ্ব মিটে ফের পোডিয়াম উঠে শেলি প্রমাণ করলেন, কেন তাঁকে ‘মেয়েদের বোল্ট’ বলা হয়। সবচেয়ে বড় কথা হল, বোল্ট ট্র্যাক থেকে সরে গিয়েছেন অনেক আগেই। শেলি কিন্তু এখনও অপ্রতিরোধ্য।

শেলি যখন ট্র্যাকে দৌড়াচ্ছেন, তখন তার ছেলে বসে গ্যালারিতে। এটাই আরও বেশি করে জামাইকান স্প্রিন্টারকে অনুপ্রাণিত করেছে।

সোনা জেতার পর শেলি বলেছেন, ‘আমার সাফল্যের রহস্যই হল, নিজের প্রতি পরিষ্কার ধারণা রাখা। অ্যাথলিট ও মানুষ হিসেবে সব সময় নিজের ফোকাস ধরে রাখি। চেষ্টা করি যে কঠিন পরিশ্রমটা আমাকে তুলে এনেছে, সেটা চালিয়ে যেতে।’ সঙ্গে জুড়েছেন, ‘ছেলে গ্যালারিতে বসেছিল। এটা আমাকে একটা অন্য রকম অনুভূতি দিয়েছে।’

দেশবিদেশ/নেছার

Comments

comments

Posted ১০:২৯ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ০১ অক্টোবর ২০১৯

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com