• শিরোনাম

    মিয়ানমার সরকার-রোহিংগাদের প্রথম দিন বৈঠক সম্পন্ন

    মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের আশ্বাসে মন ভরেনি রোহিঙ্গাদের

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৯ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২:১৩ পূর্বাহ্ণ

    মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের আশ্বাসে মন ভরেনি রোহিঙ্গাদের

    মিয়ানমারের রাখাইন স্টেটে শুধু মুসলিমরা নয় অন্যান্য জাতি-ধর্মের লোকও গৃহহারা হচ্ছে এবং সহিংসতার শিকার হচ্ছে কারণ রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সাথে আরকান আর্মির মধ্যে প্রতিদিনই সংঘর্ষ সংঘাত চলছে। এমনটি দাবি করেছেন কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আসা মিয়ানমার সরকারের প্রতিনিধি দলের নেতা মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সংস্থা ও অর্থনীতিক বিভাগের মহা পরিচালক চ্যান অ্যাই। বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকালে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এক সংক্ষিপ্ত ব্রিফিং এ তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। তিনি জানান- রোহিঙ্গাদেরকে মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে তাদের সরকার আন্তরিক। মিয়ানমারের ফিরতে ইচ্ছুক রোহিঙ্গাদেরকে প্রথমে এন.ভি.সি কার্ড দেয়া হবে। পরে তাদের নিজেদের বাড়ি-ঘর ফিরিয়ে দেয়া হবে। তবে মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের এসব আশ^াসে মন ভরেনি রোহিঙ্গাদের। মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের সাথে তিন ঘণ্টা আলোচনার পর রোহিঙ্গারা তাদেরকে নাগরিকত্ব, নিরাপত্তা সহ তাদের দাবি পূরণ না হলে মিয়ানমারে ফিরতে ইচ্ছুক নন বলে জানিয়েছেন তারা। বুধবার দুপুর ২টার পর উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প ফোর এক্সটেনশনে মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের সাথে রোহিঙ্গাদের বৈঠক বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলে।

    রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে তৃতীয়বারের মতো কথা বলতে কক্সবাজারের এসেছেন মিয়ানমার ও আসিয়ানের উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল। দুইদিনের সফরে আসা প্রথম দিনেই অর্ধশতাদিক রোহিঙ্গা নেতা-নেত্রীদের সঙ্গে সংলাপ করেছেন প্রতিনিধিদলটি। সংলাপে মিয়ানমারের প্রতিনিধিদলটি রোহিঙ্গাদের ফিরে যেতে বার বার অনুরোধ করার পরও ফিরতে নারাজ রোহিঙ্গারা।

    রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়ে কথা বলতে দুইদিনের সফরে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌছেন মিয়ানমার ও আসিয়ানের একটি উচ্চ পর্যায়ের যৌথ প্রতিনিধিদল। বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এক্সটেনশন-৪ ক্যাম্পে রোহিঙ্গা কমিউনিটি নেতাদের সঙ্গে মিয়ানমার ও আসিয়ান প্রতিনিধিদলের প্রথম দিনের সংলাপ হয়। উক্ত সংলাপে অংশ নিয়েছেন ৪১জন রোহিঙ্গা কমিউনিটি নেতা ও ৬জন কমিউনিটি নারী নেত্রী অংশ নেয়। সংলাপে অংশ নেয়া রোহিঙ্গা নেতাদের ‘এনভিসি’ কার্ড নিয়ে মিয়ানমারের ফিরে যেতে বার বার অনুরোধ করা হয় মিয়ানমারের প্রতিনিধিদলটি। কিন্তু, রোহিঙ্গারা তা প্রত্যাখান করে বলেছেন, রাখাইনে পূর্ণ নাগরিকতা সহ নানা সুযোগ সুবিধা দিলেই ফিরবে এর আগে নয়।

    এর আগে বুধবার সকালে মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সংস্থা ও অর্থনীতিক বিভাগের পরিচালক চ্যান অ্যায়ের নেতৃত্বে ৯ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি দলে মায়ানমারের পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র, ত্রাণ ও পুনর্বাসন, শ্রম ও অভিবাসন এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাগণ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌছেন। এসময় ৭ সদস্যের আসিয়ান প্রতিনিধিদলে রয়েছেন আসিয়ানভুক্ত রাষ্ট্রের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ রয়েছেন।

    উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৭ জুলাই মিয়ানমারের পররাষ্ট্র সচিব মিন্ট থোয়ে’র নেতৃত্বে ১৯ সদস্যের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল রোহিঙ্গা ক্যাম্প সফর করেন। এসময় আসিয়ানের প্রতিনিধিদলটিও সঙ্গে ছিলেন। সে সময়ে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে রোহিঙ্গাদের যৌথ সংলাপে অংশ নেয়। এছাড়াও ২০১৮ সালের ১১ এপ্রিল মিয়ানমারের সমাজকল্যান মন্ত্রী উইন মিয়াট আয়ে’র নেতৃত্বে আরো একটি প্রতিনিধিদল রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলতে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এসেছিলেন। রোহিঙ্গাদের সঙ্গে সংলাপ (ডায়ালগ) করতে দুইদিনের সফরে তৃতীয়বারের মিয়ানমারের প্রতিনিধিদলটি কক্সবাজারে অবস্থান করছেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ