বুধবার ১২ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৯শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

রাখাইনে নতুন যুদ্ধাপরাধ করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী: অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক   |   বুধবার, ২৯ মে ২০১৯

রাখাইনে নতুন যুদ্ধাপরাধ করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী: অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

রাখাইন রাজ্যে নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মিয়ানমার সেনাবাহিনী নতুন করে যুদ্ধাপরাধ করছে বলে অভিযোগ করেছে মানবাধিকার গ্রুপ অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। বুধবার লন্ডন ভিত্তিক মানবাধিকার গ্রুপটির নতুন এক প্রতিবেদনে সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে বিচার বহির্ভূত হত্যা, নির্যাতন, বিনাবিচারে আটকের অভিযোগ তোলা হয়েছে। নৃতাত্ত্বিক বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অধিকার আদায়ে লড়াইরত এক সশস্ত্র গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে অভিযানের সময় সেনাবাহিনী এসব অপরাধ সংগঠিত করেছে বলে অভিযোগ তুলেছে অ্যামনেস্টি। সংঘাত কবলিত এলাকা থেকে পালিয়ে আসা বহু মানুষের সাক্ষাৎকার এবং ছবি, ভিডিওচিত্র ও স্যাটেলাইট ইমেজ বিশ্লেষণ করে নতুন এই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে অ্যামনেস্টি। তবে রোহিঙ্গা নিপীড়নের অভিযোগের মতো এই অভিযোগও অস্বীকার করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

জাতিগত সংঘাত ও দারিদ্র্য-জর্জরিত রাখাইনে কেবল রোহিঙ্গারাই একমাত্র নিপীড়িত জাতিগোষ্ঠী নয়। রাখাইন বৌদ্ধরা (আরাকান জাতিভূক্ত) সহ সেখানকার বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠী সেনাপ্রাধান্যশীল কেন্দ্রীয় সরকারের নিপীড়নের শিকার হয়। কেবল রোহিঙ্গা ছাড়া বাদবাকি সব জনগোষ্ঠীর স্বীকৃতির প্রশ্নকে সামনে রেখে রাখাইন রাজ্যে নিজেদের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে আরাকান আর্মি। আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার প্রতিষ্ঠার পক্ষে এই সরব ভূমিকা বিশেষত রাখাইন বৌদ্ধদের মধ্যে তাদের গ্রহণযোগ্যতার ভিত্তি হয়েছে। ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা বিরোধী সেনা অভিযানের পর চলতি বছরের শুরুতে সরকারি বাহিনীর ওপর হামলা জোরালো করে আরাকান আর্মি। এসব ঘটনার প্রেক্ষিতে আরাকান আর্মি বিরোধী অভিযান জোরালো করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

বুধবার প্রকাশিত অ্যামনেস্টির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেনাবাহিনীর নির্বিচার হামলায় রাখাইনের বেসামরিক মানুষ নিহত ও আহত হচ্ছে। অ্যামনেস্টির পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া বিষয়ক পরিচালক নিকোলাস বেকুলিন বলেন, ‘রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ব্যাপক সহিংসতার নিয়ে আন্তর্জাতিক তৎপরতার দুই বছরেরও কম সময়ের মধ্যে মিয়ানমার সেনাবাহিনী আবারও রাখাইন রাজ্যে নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ভয়াবহ নিপীড়ন চালাচ্ছে’। তিনি বলেন, ‘রাখাইন রাজ্যে নতুন অভিযান স্পষ্ট করেছে যে একটি অনুতাপ ও সংস্কারহীন সামরিক বাহিনী বেসামরিক নাগরিকদের ওপর কীভাবে সন্ত্রাস চালাচ্ছে আর বিভিন্ন কৌশলে ভয়াবহ মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটাচ্ছে’।

অ্যামনেস্টির প্রতিবেদনে সাতটি বেআইনি হামলার ঘটনায় ১‌৪ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত ও ২৯ জনেরও বেশি আহত হওয়ার ঘটনা নথিভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়াও প্রতিবেদনে নির্যাতন, গুম ও বিনা বিচারে আটকের ঘটনারও বর্ণনা রয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

গত মাসে ছয় নিরস্ত্র বন্দিকে আটকের স্বীকারোক্তি দেয় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। তাদের দাবি নিরস্ত্র এসব ব্যক্তিরা সেনা সদস্যদের অস্ত্র কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে তাদের হত্যায় বাধ্য হয় তারা। তারপরও অ্যামনেস্টির অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জাউ মিন তুন। ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে তিনি বলেছেন সেনাবাহিনী আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয় আর বেসামরিক হতাহতের ঘটনা এড়িয়ে চলে। তিনি বলেন, ‘সেখানে সন্ত্রাসী নির্মূলে অভিযান চলছে। কোনও যুদ্ধাপরাধ সংঘটন না করার বিষয়ে আমরা সতর্ক রয়েছি’।

অ্যামনেস্টির প্রতিবেদনে ছোট আকারের হলেও আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে অপহরণসহ বেসামরিক নাগরিকের বিরুদ্ধে নিপীড়নের অভিযোগ তুলেছে। তবে গোষ্ঠীটির এক মুখপাত্র এএফপিকে বলেছেন, আমি জোরালোভাবে বলছি এধরণের কোনও ঘটনা ঘটেনি।

এবছরের শুরু হওয়া সেনাবাহিনী ও আরাকান আর্মির লড়াইয়ের কারণে প্রায় ৩০ হাজার বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী রাখাইনে বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

Comments

comments

Posted ১১:১১ অপরাহ্ণ | বুধবার, ২৯ মে ২০১৯

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com