• শিরোনাম

    আজ জানাযা ঃ সর্বত্র শোকের ছায়া

    সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা জি.এম রহিমুল্লাহর ইন্তেকাল

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২১ নভেম্বর ২০১৮ | ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ

    সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা জি.এম রহিমুল্লাহর ইন্তেকাল

    কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী কক্সবাজার জেলা শাখার সেক্রেটারী, জননেতা জি.এম রহিমুল্লাহ (৫৩) ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহে ওয়াইন্না ইলাহি রাজেউন। গতকাল ২০ নভেম্বর বেলা ২টা ৪৫ মিনিটে তাঁর শ্বশুরবাড়ির হোটেল সাগরগাঁওয়ের একটি কক্ষ থেকে এই জামায়াত নেতার নিথর দেহ উদ্ধার করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে-১৯ নভেম্বর রাতে ঘুমোতে গিয়ে কোন এক সময় তিনি হার্ট স্ট্রোকে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর ডায়াবেটিস ও হার্টের সমস্যা ছিল।
    মরহুম জামায়াত নেতার শ্যালক ও হোটেল সাগরগাঁওয়ের পরিচালক জাহিদুল ইসলাম জানান ১৯ নভেম্বর রাত ১১টায় জি.এম রহিমুল্লাহ হোটেলের ৪র্থ তলার ৩১৬ নম্বর কক্ষে একা ঘুমোতে যান। ২০ নভেম্বর সকাল ১০টায় হোটেলের এক বয় চেয়ারম্যানকে নাস্তার জন্য ডাকতে গিয়েও কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে ঘুমিয়েছেন মনে করে ফিরে আসে। সকাল গড়িয়ে বেলা আড়াইটায়ও চেয়ারম্যান দরজা খুলছেন না দেখে বয় বেয়ারাদের সন্দেহ হয়। পরে খবর পেয়ে আমরা ভাইয়েরা এসে বিকল্প চাবি দিয়ে রুম খুলে দেখি আমার ভগ্নিপতি বা-পাশ হয়ে শুয়ে আছেন। জাগাতে গেলে দেখি তিনি শক্ত হয়ে গেছেন। পরে কক্সবাজার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মরহুমের সুরত হাল রিপোর্ট তৈরী করেন।
    এদিকে মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৪ কন্যা, দেড় বছরের একমাত্র ছেলে নাফহাম, তিন ভাই, ৩ বোন, অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, রাজনৈতিক সহযোদ্ধা, গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর স্ত্রী ৫ সন্তানের জননী সাজেদা বেগম কক্সবাজার সানি বিচ স্কুলের সিনিয়র শিক্ষিকা এবং মরহুমের বড় ভাই প্রফেসর জি.এম সলিমুল্লাহ কক্সবাজার সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ছিলেন। জীবদ্দশায় বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী জি.এম রহিমুল্লাহ ছাত্র অবস্থায় ইসলামী ছাত্র শিবিরের কক্সবাজার জেলা সভাপতি, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্র আন্দোলন বিষয়ক সম্পাদকসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। ছাত্র জীবন শেষে তিনি বিপুল ভোটে ভারুয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। বিগত কয়েক বছর ধরে জি.এম রহিমুল্লাহ বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী কক্সবাজার জেলা শাখার সেক্রেটারীর দায়িত্ব পালন করছেন। সর্বশেষ তিনি বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ, বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থীদের হারিয়ে কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
    অন্যদিকে কক্সবাজার জেলা জামায়াতের শীর্ষ নেতা ও আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে জামায়াত মনোনীত স্বতন্ত্র প্রার্থী জি.এম রহিমুল্লাহর আকস্মিক মৃত্যুর খবরে তাঁর স্বজন ও হাজারো নেতা-কর্মীর মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। অনেকে প্রিয় নেতার মরদেহের পাশে গিয়ে অঝোর কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এ সময় তাঁর রাজনৈতিক সহযোদ্ধা এডভোকেট নুরুল ইসলাম বলেন অব্যাহত ভাবে রাজনৈতিক মিথ্যা ও গায়েবী মামলার বলি হলেন ইসলামী আন্দোলনের দক্ষ সংগঠক, কক্সবাজারের সিংহ পুরুষ জি.এম রহিমুল্লাহ।
    এদিকে আজ ২১ নভেম্বর সকাল সাড়ে ১০টায় জি.এম রহিমুল্লাহর প্রথম নামাজে জানাযা কক্সবাজার কেন্দ্রীয় ঈদগাঁহ মাটে এবং দ্বিতীয় নামাজে জানাযা আজ বাদে জোহর তাঁর গ্রামের বাড়ি ভারুয়াখালীর মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। পরে বানিয়া পাড়া তাঁর বাবা-মায়ের কবরের কাছে তাকে দাফন করা হবে।
    জামায়াত নেতৃবৃন্দের শোক
    কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা জামায়াতের সেক্রেটারী জিএম রহিমুল্লাহর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর জামাতের আমীর ও কক্সবাজার জেলার সাবেক আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান, কক্সবাজার জেলা আমীর মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান, নায়েবে আমির মাওলানা আবদুল গফুর, অধ্যক্ষ মাওলানা নূর আহমদ আনোয়ারী।
    শোক প্রকাশ করেছেন- কক্সবাজার শহর জামায়াতের আমীর আলহাজ্ব সাইয়েদুল আলম, সেক্রেটারি আবদুল্লাহ আল ফারুক, সদর উপজেলা আমীর অধ্যাপক মাওলানা খোরশেদ আলম আনচারী, সেক্রেটারী মাওলানা মোস্তাক আহমদ, রামু উপজেলা আমীর সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ফজলুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান, ঈদগাঁও জামাতের আমীর মাওলানা সলিম উল্লাহ জিহাদী প্রমুখ।
    জামায়াত নেতারা বলেন, জে এম রহিমুল্লাহ ছাত্র জীবন থেকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। অজপাড়া গাঁয়ের একজন ছেলে হয়েও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে কেন্দ্র পর্যন্ত ছাত্র শিবিরের নেতৃত্ব দেন। তখনকার সময়ে তার নেতৃত্ব ছিল খুবই প্রশংসনীয়।
    তারা আরো বলেন, জি এম রহিমুল্লাহ ছিলেন একজন সাচ্চা ঈদানদার লোক। তিনি একাধারে রাজনৈতিক নেতা, নিষ্ঠাবান সমাজকর্মী, নির্লোভ ব্যক্তি। ইউপি চেয?ারম্যান থেকে শুরু করে উপজেলা পর্যন্ত তাকে অনিয়ম-দুর্নীতি স্পর্শ করতে পারেনি। তাকে হারিয়ে শুধু জামায়াত নয়, কক্সবাজারবাসী একজন সম্পদ হারিয়েছে। জামায়াত নেতৃবৃন্দ মরহুমের আতœার মাগফিরাত ও শোকাহত স্বজনের প্রতি সমবেদনা জানান।
    কক্সবাজার পৌর পরিষদের শোক
    কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট রাজনীতিক জিএম রহিমুল্লাহ’র মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছে কক্সবাজার পৌর পরিষদ। সংবাদপত্রে প্রেরিত এক বিবৃতিতে শোক প্রকাশ করেন মেয়র মুজিবুর রহমান, প্যানেল মেয়র-১ মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, প্যানেল মেয়র-২ হেলাল উদ্দিন কবির, প্যানেল মেয়র-৩ শাহেনা আক্তার পাখি, কাউন্সিলর আক্তার কামাল আজাদ, মিজানুর রহমান, দিদারুল ইসলাম রুবেল, সাহাব উদ্দিন সিকদার, ওমর ছিদ্দিক লালু, আশরাফুল হুদা ছিদ্দিকী জামশেদ, রাজ বিহারী দাশ, সালাউদ্দিন সেতু, নুর মোহাম্মদ, কাজী মোরশেদ আহাম্মদ বাবু, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ইয়াছমিন আক্তার, জাহেদা আক্তার, নাছিমা আক্তার ও সচিব রাসেল চৌধুরী। তাঁরা মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
    এদিকে বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশন, কক্সবাজার এর পক্ষ থেকে সভাপতি মোঃ খোরশেদ আলম ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাবুদ রাজনসহ পৌরসভার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ মরহুমের শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।
    জেলা নেজামে ইসলাম পার্টি ও ইসলামী ছাত্রসমাজের শোক
    কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, জেলা জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারী জেনারেল জিএম রহিম উল্লাহর আকস্মিক ইন্তেকালে গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন, বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টি কক্সবাজার জেলা সভাপতি মাওলানা হাফেজ ছালামতুল্লাহ, সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা আ. হ.ম নুরুল কবির হিলালী, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মদ ইয়াছিন হাবিব, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ফরিদুল হক, কক্সবাজার শহর সভাপতি মাওলানা নুরুল হক চকোরী, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা খালেদ সাইফী, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসমাজ কক্সবাজার জেলার সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি হাফেজ মুহাম্মদ আবুল মঞ্জুর, কক্সবাজার জেলার নবনির্বাচিত সভাপতি হাফেজ শওকত আলী, সহ-সভাপতি মুহাম্মদ আব্দুল হামিদ, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ দিদারুল আলম, সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ জায়নুল আবেদীন প্রমুখ। এক শোকবার্তায় নেতৃবৃন্দ বলেন, জিএম রহিম উল্লাহ ছিলেন, একজন সদালাপী, দায়িত্বপরায়ণ, সৎ সাহসী জনপ্রতিনিধি। ইসলামী সমাজ বিনির্মাণে একনিষ্ঠ, অকুতোভয় সৈনিক, আদর্শ রাজনীতিবিদ। তাঁর আকস্মিক ইন্তেকালে জেলাবাসী একজন গুণী মানুষ ও সাহসী রাজনীতিবিদকে হারালো। আমরা মহান আল্লাহর দরবারে মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করি এবং শোকাহত পরিবার- পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করি।
    জেলা বিএনপির শোক
    কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কক্সবাজার জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল জিএম রহিমুল্লাহর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক এড. শামীম আরা স্বপ্না।
    এক শোকবাণীতে নেতৃবৃন্দ মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও শোকাহত স্বজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
    লুৎফুর রহমান কাজলের শোক
    জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও এস.এস.সি ৮২ ব্যাচের সদস্য প্রিয় বন্ধু জি.এম রহিম উল্লাহ’র মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন কক্সবাজার সদর রামু আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির মৎস্যজীবি বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুর রহমান কাজল।
    ঢাকায় অবস্হানরত লুৎফুর রহমান কাজল এক শোক বার্তায় মরহুমের আত্বার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।
    সদর বিএনপির শোক
    কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কক্সবাজার জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল জিএম রহিমুল্লাহর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন কক্সবাজার সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল মাবুদ ও সাধারণ সম্পাদক গিয?াস উদ্দিন জিকু।
    শোকবাণীতে তারা মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও শোকাহত স্বজনের প্রতি সমবেদনা জানান।
    জিএম রহিমুল্লাহ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার (২০ নভেম্বর) কক্সবাজার শহরের হোটেল সাগরগাঁওতে মারা যান। এর আগের রাতে তিনি হোটেলের চতুর্থ তলার ৩১৬ নম্বর কক্ষে একাই ঘুমান বলে জানান হোটেল সাগরগাঁওয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও জিএম রহিমুল্লাহর শ্যালক শাহেদুল ইসলাম।
    মরহুমের নামাজে জানাজা বুধবার (২১নভেম্বর) সকাল দশটায় কক্সবাজার কেন্দ্রীয় ঈদগাঁও মাঠে এবং বাদে জুহর ভারুয়াখালীতে অনুষ্ঠিত হবে।
    মরহুমের স্বজনেরা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ