• শিরোনাম

    সদর হাসপাতালের বর্জ্যরে দুর্গন্ধে অসুস্থ্য হচ্ছে স্কুল শিক্ষার্থীরা

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ২:০৩ পূর্বাহ্ণ

    সদর হাসপাতালের বর্জ্যরে দুর্গন্ধে অসুস্থ্য হচ্ছে স্কুল শিক্ষার্থীরা

    কক্সবাজার সদর হাসপাতালের বর্জ্যরে দুর্গন্ধে অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে স্কুল শিক্ষার্থীরা। দুর্গন্ধের কারনে অনেক শিক্ষার্থী স্কুলে যেতে চাচ্ছেনা। এমন অভিযোগ করেছেন কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাকরা। ৮ম শ্রেনির অভিভাবক মো: জসিম উদ্দিন জানান, স্কুলের প্রধান গেইটের পাশে সদর হাসপাতালের সমস্ত ময়লা আবর্জনা স্তুপ করা হয়। এসব বর্জ্য নিয়মিত পরিস্কার করা হয়না। ফলে পুরো এলাকা দুর্গন্ধে পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে। স্কুলের ছাত্রদের নাকে মুখে হাত দিয়ে ক্লাস করতে হচ্ছে। আরেক অভিভাব সুনীল জানান, তার ছেলে স্কুলে যাওয়ার পর অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। অনেকবার বমি ও ডায়রিয়া হয়েছে। এ জন্য সে স্কুলে যেতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। অভিভাবকরা জানান, সদর হাসপাতালের বর্জ্য দীর্ঘদিন ধরে স্কুলের গেইটের পাশে স্তুপ করা হলেও হাসপাতালের কতৃপক্ষ এই ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেইনি। এ ব্যাপারে পৌরসভার কাছে অভিযোগ করেও কোন সুরাহ হয়নি।
    এতে করে শিক্ষার্থীদের বর্জ্যরে দুর্গন্ধের মধ্যে স্কুলে পড়ালেখা করতে হচ্ছে। শুধু তাই নয় অনেক সময় গলিত লাশের দুর্গন্ধ সহ্য করতে হচেছ শিক্ষক শিক্ষার্থীদের। লাশের গন্ধ আর ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধের কারনে স্কুলের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া এই রাস্তা দিয়ে ৭/৮ স্কুলের শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করছে। শিক্ষার্থীসহ পথচারিরাও দুর্গন্ধের কবলে পড়ছে। অনেক পথচারি এখন এই রাস্তা দিয়ে চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। সদর হাসপাতালের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুরক এক চিকিৎসক জানান, হাসপাতালের রোগিদের নানা রোগের পরিত্যক্ত বর্জ্য স্তুপ করা হয়। এমন কি রক্ত, পুঁচ, সুই, সুতাসহ নানা ব্যবহৃত জীবানুযুক্ত দুষিত আবর্জনা দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এসব দুষিত বর্জ্যরে দুর্গন্ধ মানব শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। যা বাতাসে জীবানু ছড়িয়ে পড়ছে। যার থেকে যে কোন কঠিন রোগ সৃষ্টির আশংকা এড়িয়ে দেয়া যায়না। কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রামমোহন সেন জানান, স্কুলের গেইটের সামনে হাসপাতালের বর্জ্যরে দুর্গন্ধ দীর্ঘদিনের সমস্যা। বিষয়টি হাসপাতাল কতৃপক্ষ ও পৌরসভাকে অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু আজ অব্দি সমস্যার সমাধান হয়নি। সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: পু চ নু জানান, এখন আগের মতো দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছেনা। এরপরও এসব বর্জ্য স্থায়ী নিরসনের জন্য আন্তর্জাতিক এক সংস্থার মাধ্যমে কাজ করা হচ্ছে। এসব বর্জ্য স্তুপ না করে প্রক্রিয়াকরনের মাধ্যমে ডেমেজ করা হবে। ফলে আর দুর্গন্ধ ছড়াবেনা।
    দেশবিদেশ /০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮/নেছার

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ