• শিরোনাম

    সরকারকে ৪০টি ঘূণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র হস্তান্তর করল ডব্লিউএফপি

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৯ জানুয়ারি ২০২০ | ১১:১৬ অপরাহ্ণ

    সরকারকে ৪০টি ঘূণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র হস্তান্তর করল ডব্লিউএফপি

    ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম(ডব্লিউএফপি) ৪ কোটি টাকা ব্যায়ে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে ৪০টি পুনর্বাসিত সাইক্লোন আশ্রয় কেন্দ্র বাংলাদেশ সরকারকে হস্তান্তর করেছে। ১৯ জানুয়ারী রবিবার সকাল ১১টায় টেকনাফের উত্তর শিলখালী প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেন্টারে আনুষ্ঠানিক কার্যকলাপের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনকে ৪০টি নতুনভাবে পুনর্বাসিত সাইক্লোন আশ্রয় কেন্দ্র হস্তান্তর করে।এসময় কক্সবাজার জেলা প্রশাসন এবং ডব্লিউএফপি থেকে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

    অনুষ্ঠানে ডব্লিউএফপি জানায় নতুনভাবে সংস্কার করা এই আশ্রয়কেন্দ্রগুলো জরুরি পরিস্থিতিতে প্রায় ৩৬ হাজার মানুষকে রক্ষা করবে। ডব্লিউএফপি ডিসাসটার রিসিলিআন্স প্রোজেক্ট এর প্রথম পর্যায়ের অংশ হিসেবে এগুলো কাঠামোগতভাবে পুনর্বাসিত করা হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য আরও ভালভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ এবং সাড়া দেওয়ার জন্য স্থানীয় সরকার এবং স¤প্রদায়ের সক্ষমতা জোরদার করা ডব্লিউএফপি ডিসাসটার রিসিলিআন্স প্রোজেক্ট এর অন্যতম লক্ষ্য। ছয় মাস ব্যাপী পুনর্বাসন কাজের মাধ্যমে এই প্রোজেক্ট কক্সবাজার জেলার স্থানীয় প্রায় ৪ হাজার ৪০০ মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করেছে।

    হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ডব্লিউএফপি কক্সবাজারের এমারজেন্সিকো-অরডিনেটর পিটারগেস্ট বলেন, বাংলাদেশের অন্যতম ঝুঁকিপূর্ণ এবং দুর্যোগপ্রবণ অঞ্চলগুলোর মধ্যে কক্সবাজার অন্যতম। একারণেই আমরা প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় জীবন রক্ষা করতে স্থানীয় জনগনের সহনশীলতা বাড়ানোর জন্য অগ্রাধিকার দিচ্ছি । আমাদের বিশ্বাস এই পুনর্বাসন কাজগুলো এই অঞ্ছলের মানুষের জীবনে টেকসই এবং ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তিনি আরও বলেন,কাঠামগুলোকে অক্ষম-বান্ধব এবং ঘূর্ণিঝড় ও বন্যার সময় আরও দৃঢ়ভাবে সক্ষম করতে ডব্লিউএফপি ৩০টি আশ্রয় কেন্দ্রের মধ্যেবিদ্যুৎ সরবরারের জন্য সৌর প্যানেল স্থাপন করেছে এবং সেগুলোর প্রত্যেকটিতে পানি এবং স্যানিটেশন সুবিধাযুক্ত করেছে।

    অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিসট্রেট মো: শাহজাহান আলি বলেন, আমি ডব্লিউএফপি এবং ইউএসএআইডি ও এফডিএ এর প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা এবং প্রশংসা জানাই তাদের যোগ্য নেতৃত্ব এবং কক্সবাজারের আক্রান্ত স্থানীয় সমাজের প্রতি তাদের কাজের প্রতি প্রতিশ্রæতির জন্য যা একান্তভাবে প্রয়োজন ।আর এই সাইক্লোন আশ্রয় কেন্দ্রগুলো, অন্যান্য অভিযোজন অবকাঠামোগুলোর সাথে, বিশেষত বৃষ্টিপাত এবং বন্যার তীব্রতার সময় স্থানীয় স¤প্রদায়ের সহনশীলতা বাড়াতে অবদান রাখবে। কক্সবাজার জেলা উপক‚লীয় ঘূর্ণিঝড় এবং এর সাথে সংশ্লিষ্ট ঝড়, বন্যা, এবং ভূমি ধ্বসের মত প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকিতে রয়েছে।

    যুক্তরাষ্ট্রের দাতা সংস্থা ইউএসএআইডি এর ইউএস ফরেন ডিসাসটার অফিসার মিস রেচেল গালাগার বলেন, বেশিরভাগ সময়, এই দালান গুলোস্কুল বা ইউনিয়ন পরিষদের অফিস হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু যখন পরবর্তী দুর্যোগ আঘাত হানবে, এই পুনর্বাসিত ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রগুলোর প্রত্যেকটি প্রায় ১,০০০ মানুষকে বন্যা, ভূমিধ্বস, বৃষ্টি, এবং ঝোড় হাওয়া থেকে বাঁচাতে পারবে।

    তিনি আরও জানান,আমরা কক্সবাজারকে দুর্যোগের বিরুদ্ধে আরও সহনশীল করতে যা কাজ করেছি এবং ডব্লিউএফপি, স্থানীয় এনজিও, বাংলাদেশ সরকার এবং স্থানীয় স¤প্রদায়ের সাথে আমাদের স্বাবলম্বনের যে যাত্রা তার সহযোগী অংশীদারত্ব নিয়ে অনেক গর্বিত।
    অনুষ্ঠানে ডব্লিউএফপি জানায় ২০২০সালে উখিয়া এবং টেকনাফ উপজেলায় আরও ৪০টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র পুনর্বাসন সংস্কার করবে।

    দেশবিদেশ/নেছার

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ