• শিরোনাম

    পৃথক অভিযানে ৪৩ রোহিঙ্গা উদ্ধার, নিখোঁজ ৬

    সাগরে মানবপাচারেও চলছে দস্যুবৃত্তি

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ১১:৫৩ অপরাহ্ণ

    সাগরে মানবপাচারেও চলছে দস্যুবৃত্তি

    ফের কক্সবাজারে সক্রিয় মানব পাচারকারী চক্র। চক্রটি সাগরপথে শুরু করেছে মানব পাচার। পাচারের পাশাপাশি দস্যুবৃত্তিতেও জড়িয়ে পড়ছে চক্রের সদস্যরা। যার শিকার হচ্ছে উখিয়া এবং টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন অস্থায়ী ক্যাম্পে ক্যাম্পে বসবাসরত রোহিঙ্গারা। পাচারকারীদের কবল থেকে পুরুষের পাশাপাশি নারী আর শিশুরা রক্ষা পাচ্ছে না । মালয়েশিয়া নিয়ে যাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তাদের পাচারের শিকারের পরিণত করা হচ্ছে। পৃথক অভিযানে এই ধরনের পাচারের শিকার ৪৩ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করেছে পুলিশ ও র‌্যাব।
    গত বুধবার ১৩ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ৩১ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়েছে। যাদের মধ্যে ৬ শিশু আর ১২ জন নারী রয়েছে। তারা কুতুপালং এবং বালুখালী অস্থায়ী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা। মহেশখালী উপজেলার সোনাদিয়া দ্বীপের প্যারাবন থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়। মহেশখালী থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের উদ্ধার করে। তবে, পাচারচক্রের কোন সদস্যকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।
    ৩৭ জন রোহিঙ্গার দলে থাকা বাকী ৬ রোহিঙ্গা এখনো পাচারকারীদের কব্জায়। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। ধারণা করা হচ্ছে, মুক্তিপণ আদায়ের জন্য তাদের গোপন স্থানে আটক করে রাখা হয়েছে। পাচারকারী চক্রের সদস্যরা এই কাজে সরাসরি জড়িত।
    উদ্ধারকৃতদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) কক্সবাজার শহরের ফজল মার্কেট সংলগ্ন হোটেল রাজমণিতে এক অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব-৭। রাত সোয়া ৩ টায় পরিচালিত ওই অভিযানে উদ্ধার করা হয় ১২ রোহিঙ্গাকে। এ সময় দুই পাচারকারীকে আটক করতে সক্ষম হন র‌্যাব সদস্যরা। আটককৃত দুই পাচারকারী হলো, চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া উপজেলার পশ্চিম মিরিকেল এলাকার মৃত ওমর আলীর পুত্র মোঃ নুরুল ইসলাম ও উখিয়ার থাইংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ব্লক-বি ২৬ এর বাসিন্দা মোঃ শফিক’র পুত্র জাহেদ আলম।
    পরে উদ্ধারকৃতদের স্ব-স্ব উপজেলার আদালতে উপস্থাপন করা হলে আদালত তাদের ক্যাম্পে প্রেরণ করা নির্দেশ দেন। পরবর্তীকালে আদালতের নির্দেশ অনুসরণ করে উদ্ধারকৃতদের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বসবাসকারী স্বজনদের হাতে সোপর্দ করা হয়।
    এদিকে, পাচারের শিকার রোহিঙ্গাদের উদ্ধারের পরপরই বেরিয়ে এসেছে লোমহর্ষক কাহিনী। কিভাবে পাচারকারীরা তাদের ক্যাম্প থেকে গোপন স্থানে নিয়ে আসে। এরপর স্থান পরিবর্তন করতে বাধ্য করে। নির্যাতনের মাধ্যমে আদায় করে অর্থ। পদে পদে পাচারকারীদের নির্যাতনের এই নির্মম কাহিনী বর্ণনা করেছেন উদ্ধারকৃত কয়েকজন রোহিঙ্গা নারী।
    রোহিঙ্গা নারীদের বর্ণনায় বেরিয়ে এসেছে, শুধু কক্সবাজার জেলার বাসিন্দা নয়। খোদ রোহিঙ্গাদের একটি শক্তিশালী চক্রও রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বেশ সক্রিয়। কক্সবাজার শহরে এই চক্রের অন্যতম সদস্য পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের সমিতি পাড়ার সেলিম এবং সদস্যা লায়লা। মহেশখালীর সোনাদিয়ার শাহীন, এনাম, আনছার, মনুইয়্যা এবং শামশু। তবে, মৃত্যুভয়ে রোহিঙ্গা পাচারকারীদের নাম প্রকাশ করেনি উদ্ধারকৃতরা। পুলিশ এবং কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকির সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে পাচারকারীরা তাদের কক্সবাজারে নিয়ে এসেছিলো তাও বর্ণনা দিয়েছে এই নারীরা।
    ফাতেমা এবং শহীদা দুই সহোদরা। ষোড়শী এই দুই রোহিঙ্গার পিতা কুতুপালং ৪নং আনরেজিস্টার্ড ক্যাম্পের বাসিন্দা শামশুল আলম। বুধবার তাদের সোনাদিয়ার প্যারাবন থেকে উদ্ধার করা হয়। ফাতেমা এবং শহীদা জানিয়েছে, মঙ্গলবার পাচারকারীদের প্রলোভনে তারা ক্যাম্প ত্যাগ করে। ক্যাম্পের চারপাশে ১১ টি নিরাপত্তা চৌকি আছে। এসব চৌকিতে দায়িত্বরতদের চোখ ফাঁকি দিতে তারা প্রথমে হেঁটে ক্যাম্প থেকে বের হয়। এরপর তাদের তুলা হয় একটি গাড়িতে। গাড়িটি কিছুদূর যেতেই তাদের নামিয়ে আবারো হাঁটতে বাধ্য করা হয়। এভাবেই তারা বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিয়ে পাচারকারীদের সঙ্গে কক্সবাজার শহরে প্রবেশ করে। কক্সবাজার শহরে পৌঁছে তারা সমিতি পাড়ার সেলিমের ঠিক করা বাড়িতে উঠে। ওই সময় বাড়িটিতে আরো বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গার দেখা পায় তারা। সেখান থেকেই রাতে ইঞ্জিনচালিত বোটে করে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় সোনাদিয়ায়।
    সোনাদিয়ায় পৌঁছার পর তাদের প্যারাবনে আটকে রাখা হয়। কেড়ে নেয়া হয় তাদের কাছে থাকা মোবাইল ফোন। পাশাপাশি তাদের কাছে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কারও কেড়ে নেয় পাচারকারীরা। যাদের কাছে কিছু পাওয়া যায়নি তাদের উপর চলে নির্মম নির্যাতন। অনেকেই নির্যাতন সইতে না পেরে পাচারকারীদের মোবাইল ফোনে ক্যাম্পে থাকা স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। এরপর বিকাশের মাধ্যমে দাবিকৃত টাকা দেয়ার পর নির্যাতন থেকে রেহাই পায়। প্যারাবনে পৌঁছার পরই তারা শাহীন, এনাম আনছার, মনুইয়্যা আর শামশুর নাম শুনতে পায়। তারা আটককৃতদের উপর নির্যাতন চালায় বলেও জানায় উল্লিখিত দুই সহোদরা। বুধবার রাত ১১ টার দিকে মহেশখালী থানার পুলিশ প্যারাবন থেকে তাদের উদ্ধার করে বলেও জানায় তারা।
    মহেশখালীতে উদ্ধারকৃত রোহিঙ্গাদের বিষয়ে জানতে চাইলে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর বলেন, আমাদের অভিযান পরিচালনার খবর পেয়ে পাচারকারীরা কৌশলে পালিয়ে যায়। অভিযানের পর ৬ জন শিশু সহ ৩১ জনকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। এরপর তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত তাদের স্ব-স্ব ক্যাম্পে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দিলে তা বাস্তবায়ন করা হয়।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ