বৃহস্পতিবার ৯ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

হিমছড়ি সৈকতে ভেসে এসেছে বিশালাকৃতির কুঁজো তিমি

দেশবিদেশ প্রতিবেদক   |   শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১

হিমছড়ি সৈকতে ভেসে এসেছে বিশালাকৃতির কুঁজো তিমি

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের মেরিনড্রাইভ সড়কের হিমছড়ি সৈকতে ভেসে এসেছে বিশালাকৃতির মৃত তিমি। শুক্রবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে তিমিটি ভেসে উঠতে দেখতে পায় স্থানীয় বাসিন্ধা। তখনো পুরোপুরি জোয়ারের পানি নেমে যায়নি। জোয়ারের পানি নেমে যাওয়ায় পর পূর্ণ ভাটায় সাগরের বালুতটে পড়ে থাকা মৃত তিমি স্পষ্ট দৃশ্যমান হয়। তবে মৃত তিমিটি পঁচন ধরায় গন্ধ ছড়াচ্ছে। সাগরের পানিতে ভাসতে ভাসতে মৃত তিমিটির সামনের অংশ বিকৃত হয়ে গেছে। আনুমানিক ১৬ থেকে ১৭ বছর বয়সী এ তিমিটি হয়ত ৭/৮ দিন পুর্বে মারা গেছে বলে ধারনা করছে সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ। ৪৪ ফুট দীর্ঘ ও ২৬ ফুট ডায়া এ তিমিটি আনুমানিক আড়াই টন ওজন হবে বলেও ধারণা করা হচ্ছে। খবর পেয়ে জেলা প্রশাসন, স্থানীয় পুলিশ, বনবিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর ও মৎস্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্টরা ঘটনাস্থলে অবস্থান করছেন। সেই সাথে শতশত উৎসুক মানুষ এই তিমি দেখতে ভীড় করে।
বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট কক্সবাজারের মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শফিকুরর রহমানা জানান ,এটি নীল তিমি নয়। এটি কুঁজো ( ঐঁসঢ়নধপশ যিধষব) তিমি। বিশে^ এই কুঁজো তিমি বিরল। বিরল প্রজাতির এই তিমি মহাসাগরে বিচরণ করে। দলবেঁধে বিচরণ করাই তাদের স্বভাব। তারা দলবেঁধে বসবাস করে। একে অপরের প্রতি তাদের খুব মায়া মমতা থাকে। তিনি ধারণা করেন এই তিমিটি দলছুঁট হয়ে যাওয়ায় মৃত্যু হয়। এরা খুব অভিমানি হয় তাই তাকে দল থেকে বের করে দেয়ায় এই তিমিটি হয়তো আত্মহত্যা করেছে। নিজেদের বিচরণ স্থান ত্যাগ করে খাদ্য গ্রহণ না করাসহ নানা বিপদের সম্মুখীন হয়ে মৃত্যু হতে পারে। এটি বাংলাদেশের জলসীমার বাইরে মৃত্যু হয়ে পরে বঙ্গোপসাগর হয়ে কক্সবাজারের হিমছড়িতে ভেসে এসেছে।

কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি দীপক শর্মা দীপু ধারণা করে বলেন, দলছুট হয়ে তিমিটি পথ হারিয়ে তাদের বিচরণ স্থান থেকে বঙ্গোসাগরের কাছাকাছি চলে আসে। যেখানে খাদ্য সংকট ছিল। খাদ্য সংকটে সম্মুখীন হয়ে অথবা বড় কোন জাহাজের ধাক্কায় এই তিমির মৃত্যু হতে পারে। তিনি জানান, ১৯৯১ সালে লাবণী সৈকতে ও ২০০৮ সালে হিমছড়ি সৈকতে এভাবে ভেসে এসেছিল বিশালাকারের নীল তিমি। দীর্ঘদিন পর আবার বিশালাকৃতির নীল তিমি সৈকতে ভেসে এসেছে। ভেসে আসা বিশাল আকারের এই নীল তিমিটি পঁচে গন্ধ ছড়াচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এটি মাটিতে পুতে ফেলা না হলে দুর্গন্ধে পরিবেশ বিপর্যস্থ হয়ে পড়বে।

মেরিন লাইফ বিশেষজ্ঞ জহিরুল ইসলাম জানান, আনুমানিক ১৬ থেকে ১৭ বছর বয়সী এ তিমিটি হয়ত সপ্তাহ পুর্বে মারা গেছে। ৪৪ ফুট দীর্ঘ ও ২৬ ফুট ডায়া এ তিমিটি আনুমানিক আড়াই টন ওজন হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস এম খালেকুজ্জামান জানিয়েছেন, এ প্রজাতির তিমি আমাদের বঙ্গোপসাগরে রয়েছে। বিশেষ করে সুন্দরবনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে এসব তিমি দেখা যায়। হয়তো তিমিটি মারা যাওয়ার পর ভাসতে ভাসতে কক্সবাজার সৈকতের উপকূলে ভিড়েছে। ধারণা করা হচ্ছে সপ্তাহ পুর্বে তিমিটি মারা গেছে। মৃত তিমিটির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তবে কি কারণে মারা গেছে সেটি জানা যাবে ময়নাতদন্তের পর।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আমিন আল পারভেজ মৃত তিমি পরিদর্শন শেষে বলেন, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর, মৎস্য সম্পদ অধিদপ্তরের বিশেষজ্ঞদের সাথে কথা বলে করণীয় ঠিক করা হবে। তিনি বলেন, সাগরে লক্ষ প্রজাতির প্রাণীর বিচরণ। মাঝেমধ্যে কিছু কিছু প্রাণী মারা যাওয়াটা স্বাভাবিক। তবু কোন কারণে তিমিটি মারা গেছে, তা নির্ণয়ের চেষ্টা করা হবে। এরপর দ্রুত সময়ের মধ্যে এটি মাটিতে পুতে ফেলা হবে।

Comments

comments

Posted ১১:৩৫ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com