• শিরোনাম

    হোয়াইক্যংয়ে সন্দেহজনক লোকজনের নিকট মসজিদ-মাদ্রাসার গোপন হস্তান্তরের অভিযোগ

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৪ নভেম্বর ২০১৯ | ১:১৬ পূর্বাহ্ণ

    হোয়াইক্যংয়ে সন্দেহজনক লোকজনের নিকট মসজিদ-মাদ্রাসার গোপন হস্তান্তরের অভিযোগ

    কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের একটি মসজিদ ও মাদ্রাসা গোপনে সন্দেহজনক জঙ্গি সম্পৃত্ত ব্যক্তিদের হাতে হস্তান্তরের অভিযোগ উঠেছে। মসজিদ পরিচালনা কমিটি গ্রামবাসীর অগোচরে এমন কাজটি করেছে বলে অভিযোগে বলা হয়েছে। যাদের মসজিদটি হস্তান্তর করা হয়েছে সেইসব ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জঙ্গি সম্পৃত্ততার অভিযোগ এনেছেন গ্রামবাসী ও মসজিদের জমির দাতাগণ।

    কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তের একটি জঙ্গলাকীর্ণ পাহাড়ী জনপদের একটি প্রাচীন মসজিদ ও মাদ্রাসা গোপনে ‘জঙ্গি গোষ্ঠির’ কাছে হস্তান্তর করার ঘটনায় এলাকায় চলছে তোলপাড়। সন্দেহভাজন লোকজন নিজেদের মতবাদ চর্চার একটি মিলন ক্ষেত্র তৈরির কাজ করার উদ্দেশ্যে মসজিদ ও মাদ্রাসাটি নিজেদের আয়ত্তে আনার কাজ করছে বলে স্থানীয়রা মনে করছেন।
    টেকনাফের হোয়াইক্যং বাজারের পশ্চিমে পাহাড়ী এলাকা লাতুরীখোলা নামক গ্রামের পশ্চিমপাড়া বায়তুন নূর জামে মসজিদ ও আল মাদ্রসাতুল ইসলামিয়া দারুল কোরআন ওদারুল আইতাম ফোরকানিয়া মাদ্রাসাটি নিয়েই এমন গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। মাদ্রাসা ও মসজিদটি যারা নিয়েছেন তাদের প্রধান ব্যক্তিরা মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বলে জানা গেছে।

    আবদুল্লাহ সুলতান নামের এক ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। তিনি স্থানীয় একই গ্রামের হাফেজ বক্তার আহমদের সন্তান বলে জানা গেছে। গ্রামের মৃত নজির আহমদের পুত্র সিরাজুল হক, মৃত বদিউর রহমানের পুত্র আলী আহমদ, মৃত ইলিয়াছের পুত্র আবদুল মালেক, হাজী উলা মিয়ার পুত্র নুরুজ্জামান ও মুত আবদুল মালেকের পুত্র আবদু শুক্কুর এরকম অভিযোগ এনে গত ২৭ অক্টোবর টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট এক লিখিত অভিযোগনামা দায়ের করেছেন।

    এসব বিষয়ে সিরাজুল হক বলেন, তারা ১০ ভাই সহ তাদের পরিবার মসজিদ ও মাদ্রাসার জন্য প্রায় এক কানি জমি দান করেছিলেন। সেই দান করা জমিতে নির্মিত মসজিদ ও মাদ্রাসাটি পরিচালনা কমিটির লোকজন গোপনে জঙ্গি গোষ্টির নিকট হস্তান্তর করেন বলে লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে।
    এলাকাবাসীর সন্দেহ, অরণ্যঘেরা পরিবেশের মসজিদ ও মাদ্রাসাটিকে রোহিঙ্গাদের একটি গোপন মিলন ক্ষেত্র করতেই এমন কাজটি করা হয়েছে। এ বিষয়ে মসজিদ কমিটির লোকজনের বক্তব্য জানতে চেষ্টা করেও তাদের কাউকে মোবাইলে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় গ্রামবাসী বিষয়টি তদন্ত করে রহস্য উদঘাটনের দাবি জানিয়েছেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে দৈনিক আজকের দেশ বিদেশ