বুধবার ৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

১৭ হাজার কিলোমিটার দূর থেকেও বাংলাদেশের কথা ভাবছেন এক আর্জেন্টাইন

দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক   |   শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০

১৭ হাজার কিলোমিটার দূর থেকেও বাংলাদেশের কথা ভাবছেন এক আর্জেন্টাইন

আর্জেন্টিনার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ নিউকুইন। দেশটির রাজধানী বুয়ের্নস আয়ার্স থেকে ওই প্রদেশটির দূরত্ব প্রায় ১২০০ কিলোমিটার। ঢাকা থেকে দূরত্বটা ১৭ হাজার কিলোমিটারেরও বেশি (১৭৩৬৯ কি.মি)।

ওই নিউকুইনে ছোট্ট একটি বাসায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন বাংলাদেশপ্রেমী এক আর্জেন্টাইন। বাংলাদেশের আলোবাতাস গায়ে লাগিয়েছেন অনেক। বাংলাদেশের পানিতে তেষ্টাও মিটিয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে অর্থ উপার্জন করে পরিবারের চাহিদা মিটিয়েছেন। বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা গায়ে জড়িয়ে এ দেশের সমর্থনে গলা ফাটিয়েছেন। বাংলাদেশের সম্মান বাড়াতে হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করেছেন। এই আর্জেন্টাইনের নাম দিয়েগো আন্দ্রেস ক্রুসিয়ানি। বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক প্রধান কোচ।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এখন গোটা বিশ্ব। লাতিন আমেরিকার এই দেশটিও এর বাইরে নয়। ম্যারাডোনা-মেসিদের দেশে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ১৮৯৪ জন। মারা গেছেন ৭৯ জন।

মানুষ এখন ঘরে বন্দী। ঘর থেকে বের হলেই বিপদ। প্রাণঘাতি এ ভাইরাসটি যাতে সামাজিকভাবে আর ছড়াতে না পারে সে জন্য বিশ্বের প্রায় সব দেশেই চলছে এলাকাভেদে লকডাউন। ক্রুসিয়ানির নিউকুইন প্রদেশেও একইভাবে চলছে লকডাইন। একাকি ঘরে বসে সময় কাটাচ্ছেন। শতভাগ হোমকোয়ারেন্টাইনে আছেন বাংলাদেশের সাবেক এ কোচ।

কেমন আছেন? প্রশ্ন করতেই উল্টো প্রশ্ন ক্রুসিয়ানির, ‘আমরা বাংলাদেশের মানুষ কেমন আছি?’ প্রযুক্তির এ যুগে পৃথিবীর এক প্রান্তের খবর মুহূর্তে অন্য প্রান্তে চলে যায়। বাংলাদেশের অবস্থা কি তা একদম অজানা নয় ক্রুসিয়ানির। এখানে মানুষ যে মারা যাচ্ছেন সে খবর আছে তার কাছেও। তারপরও ক্রুসিয়ানির জানার আগ্রহ বেশি ফুটবল জগতের মানুষের খোঁজখবর।

হোমকোয়ারেন্টাইনে কি একা? নাকি পরিবারের আরো সদস্য আছেন? ‘স্ত্রীর সঙ্গে আমার ডিভোর্স হয়ে গেছে। পাশেই আমার ভাই থাকে। কিন্তু এখন সে বাসায় আসতে পারে না। একটি মিনারেল ওয়াটার কোম্পানিতে চাকরি করে সে। করোনার কারণে সেখানে ফুলটাইম কাজ করতে হচ্ছে। তাই আমি একদম একাই সময় কাটাচ্ছি বাসায়। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাইরে যাচ্ছি না। যেটা এ সময়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ’- বলছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক এই কোচ।

একা একা সময় কাটানো কঠিন। বলতেই দুটো ছবি পাঠিয়ে দিলেন ক্রুসিয়ানি। একটি কোনো প্রাণীর মাংসপোড়া, অন্যটি মদের বোতল। লিখে দিলেন, ‘দিজ ইজ মাই লাস্ট নাইট বার্বিকিউ।’ করোনার দিনগুলো কিভাবে পার করছেন ক্রুসিয়ানি সেটা বোঝালেন এভাবেই।

বাংলাদেশ থেকে চলে যাওয়ার পর তো অনেকদিন হয়ে গেলো। এখনো এ দেশের মানুষের কথা মনে আছে? ‘কেন মনে থাকবে না? কেন ভুলে যাবো? আমি জীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটা সময় বাংলাদেশে কাটিয়েছি। বাংলাদেশ এমন একটা দেশ যে দেশটাকে আমি অনেক ভালোবাসি। সেখানে অনেক মানুষের সঙ্গে মিশেছি। এখন সবাইকে মনে পড়ে। এটাও ঠিক বাংলাদেশে মাঝেমধ্যে আমার কঠিন সময়ও পার হয়েছে। তারপরও দিনশেষে আমি বলবো ঢাকা আমার প্রিয় এক শহর। সবকিছু যখন ভাবি তখন স্মৃতিকাতর হয়ে পড়ি। বিকেএসপিতে জাতীয় দলের ট্রেনিংয়ের দিনগুলোর কথা কখনো ভুলতে পারবো না। এটা ঠিক মানুষ ভুল করবেই। তুমি, আমি সবাই ভুল করতে পারি। সে ভুলগুলো আমাদের মনে অনভূতিও বদলে দেয়। বাংলাদেশ এমন একটি জায়গা যা সবসময় ভালোবাসার ও মিস করার মতো। বাংলাদেশ ছেড়ে চলে এসেছি; কিন্তু এখনো আমি বাংলাদেশের পতাকাসহ অনেক ড্রেস পরি। বিশ্ব এখন কঠিন সময় পার করছে। আমাদের দেশের মানুষের জন্য যেমন ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি, তেমন বাংলাদেশের মানুষের জন্যও করি। আমি চাই সবাই যেন সতর্ক থাকেন’- বাংলাদেশ নিয়ে ভালোবসার কথা জনালেন এই আর্জেন্টাইন।

বাংলাদেশে কাজ করতে গিয়ে অনেক মানুষের সঙ্গে মিশেছেন। বিশেষ কারো কথা মনে পড়ে? বিশেষ কাউকে মিস করছেন কি না? ক্রুসিয়ানি বলেন, ‘চোখ বন্ধ করলে অনেকগুলো মুখ আমার সামনে ভেসে উঠে। সবার নাম মনে নেই। তবে আমার খেলোয়াড়দের কথা সবসময় মনে থাকবে। খেলোয়াড়দের বাইরে কয়েকজন মানুষের নাম বলার সুযোগ নষ্ট করবো না। কানন (ছাইদ হাছান কানন), চুন্নু (আশরাফ উদ্দিন আহমেদ চুন্নু), মহসিন (বাফুফের স্টাফ), নিপু (বায়েজিদ আলম যোবায়ের নীপু), নোমান (বাফুফের প্রয়াত প্রোটকল অফিসার), ডাক্তার দেবাশীষ, ডাক্তার চিশতি, ডাক্তার আমিন, কাজী মো. সালাউদ্দিন (বাফুফে সভাপতি), রাব্বানী হেলাল (গোলাম রাব্বানী হেলাল), মুনীর (প্রয়াত মুনীর আহমেদ), রুপু (সত্যজিত দাশ রুপু), আনোয়ার হেলাল (আনোয়ারুল হক হেলাল), জাম্পু প্রিন্স (আবু হাসান চৌধুরী প্রিন্স), কায়সার (কায়সার হামিদ), মানিক (সফিকুল ইসলাম মানিক), বাবু (আমিরুল ইসলাম বাবু), বাবলু (হাসানুজ্জামান খান বাবলু), ডানা (কামরুন্নাহার ডানা), মিমু (শামিমা সাত্তার মিমু), রক্সি (মাহবুব হোসেন রক্সি)- এদের কথা সব সময়ই আমি মনে করি।’

Comments

comments

Posted ১০:৫১ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com