বুধবার ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

৪ মাইলের লম্বা খাল পেরিয়ে গেল বিশ্বের বড় জাহাজ

দেশবিদেশ অনলাইন ডেস্ক   |   রবিবার, ১৩ অক্টোবর ২০১৯

৪ মাইলের লম্বা খাল পেরিয়ে গেল বিশ্বের বড় জাহাজ

সাড়ে ৬ কিলোমিটার লম্বা ছোট খালের ভেতর দিয়ে বেরিয়ে গেল বিশ্বের অন্যতম বড় এই জাহাজটি। ছবি: ইউটিউব

ছোট একটি খালের ভেতর দিয়ে পেরিয়ে গেল বিশ্বের অন্যতম বড় একটি জাহাজ। ৪ মাইল বা প্রায় সাড়ে ৬ কিলোমিটার লম্বা একটি ছোট খাল। এর ভেতর দিয়ে বেরিয়ে গেল বিশ্বের সবচেয়ে বড় একটি জাহাজ। অনেক বড় আকারের জাহাজ ছোট্ট একটি খালের ভেতর দিয়ে ঢুকে বেরিয়েও যাওয়ার ভিডিও বেশ সাড়া ফেলেছে।

‘ডেইলি মেইল’ ও ‘দ্য সান’-এর খবরে বলা হয়েছে, বিশ্বের অন্যতম বড় এই জাহাজের নাম দ্য এমএস ব্রেমার। আর ক্যানেলটি গ্রিসের নামকরা করিন্থ ক্যানেল।
জাহাজটি এ বছরের ২৭ সেপ্টেম্বরে যাত্রা শুরু করে ব্রিটেনের সাউদাম্পটন থেকে। গত বুধবার বৃহত্তম জাহাজটি করিন্থ ক্যানেল অতিক্রম করে। জাহাজটি গ্রিসের কয়েকটি দ্বীপের আশপাশের এলাকায় ২৫ রাত ছিল। এই যাত্রা পথে জাহাজটি গ্রিসের রোডস ও কেফালোনিয়া এবং স্পেন ও ইতালির বিভিন্ন বন্দরে যাত্রা করবে।
ব্রিটেনের ফ্রেডের মালিকানাধীন জাহাজটি ১৭১ বছরের পুরোনো। ২২ দশমিক ৫ মিটার বা ৭৩ দশমিক ৮ ফুট প্রস্থের এমএস ব্রেমার জাহাজটি গ্রিসের ২৪ মিটার বা ৭৮ দশমিক ৭ ফুট প্রশস্ত করিন্থ খাল দিয়ে পেরিয়ে গেছে। খালটি সাড়ে ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ। জাহাজটি ৬ কিলোমিটারের খালটি পেরিয়ে যাওয়ার সময় জাহাজের দুপাশে মাত্র তিন ফুট ফাঁকা ছিল। কিন্তু যাত্রা পথের খালের কোনো প্রান্তেই ওই জাহাজের কোনো আঘাত লাগেনি।

জাহাজটির দৈর্ঘ্য ৬৪৩ ফুট (১৯৬ মিটার)। আর ওজন ২৪ হাজার ৩৪৪ টন। করিন্থ খাল দিয়ে পার হওয়ার সময় ১ হাজার ২০০ যাত্রী ছিল ওই জাহাজে। জাহাজটিকে একটি টাগবোট টেনে সাড়ে ৬ কিলোমিটারের খালটি পেরিয়েছিল।

জাহাজটি ব্রিটেনের ফ্রেডের মালিকানাধীন ওলসেন ক্রুজ লাইনের। সেই প্রতিষ্ঠানের অপারেটর ক্লেয়ার ওয়ার্ড বলেন, ওলসেন ক্রুজ লাইনের ১৭১ বছরের ইতিহাসে এটি অনেক আনন্দ ও উত্তেজনার যাত্রা ছিল। এই যাত্রা রোমাঞ্চ জাহাজের যাত্রীদের মধ্য ছড়িয়ে পড়ে।

যাত্রীরা টুইট করে জাহাজের ক্যাপ্টেনের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তাঁরা বলেছেন, যাত্রাপথের আমরা চাইলে গাছ লতা পাতা ছুঁয়ে দেখতে পারতাম।

করিন্থ খালটি আসলে ছোট ছোট জাহাজ পার করার জন্য তৈরি হয়েছিল। এ খালের নির্মাণকাজ ১৮৮০ সালে শুরু হয়েছিল। ১৩ বছর কাজ চলার পর ১৮৯৩ সালে খালটির খননকাজ সমাপ্ত হয়েছিল। খালটিতে দুই পাশেই চুনাপাথরের দেয়াল রয়েছে। পানির স্তর থেকে খালের শীর্ষ স্থান প্রায় ৩০০ ফুট উঁচুতে। তবে সমুদ্রতল থেকে এটি মাত্র ৭০ ফুট প্রশস্ত। খালটি গ্রিসকে পেলপনেশিয়া উপদ্বীপ থেকে পৃথক করেছে। এটি আয়নিয়ান সাগরের উপসাগরীয় উপসাগরকে এজিয়ান সাগরের সোনিক উপসাগরের সঙ্গেও সংযুক্ত করে।

দেশবিদেশ/নেছার

Comments

comments

Posted ৯:৫৭ অপরাহ্ণ | রবিবার, ১৩ অক্টোবর ২০১৯

ajkerdeshbidesh.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক : তাহা ইয়াহিয়া কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
০১৮১২-৫৮৬২৩৭
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com